শনিবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৯ ইং

সিলেটটুডে ডেস্ক

০৩ জুলাই, ২০১৯ ১৩:০৩

নিউইয়র্কে মুন্সিগঞ্জ-বিক্রমপুর এসোসিয়েশনের বনভোজন

উৎসবমুখর ও আনন্দঘন পরিবেশের মধ্য দিয়ে অনুষ্ঠিত হয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের অন্যতম আঞ্চলিক সংগঠন মুন্সিগঞ্জ-বিক্রমপুর এসোসিয়েশন ইনকের বার্ষিক বনভোজন।

৩০ জুন রোববার অনুষ্ঠিত এ বনভোজনে নিউইয়র্কসহ যুক্তরাষ্ট্রে বসবাসরত মুন্সিগঞ্জ জেলার নারী-পুরুষ-শিশু-কিশোররা দিনভর প্রাকৃতিক সৌন্দর্যমন্ডিত ওয়েস্টচেস্টার ক্রোটন পয়েন্ট পার্কের খোলা মাঠে খেলাধুলাসহ নানান আনন্দে মেতে ওঠেন।

বর্ণাঢ্য এ আয়োজনে কমিউনিটি নেতৃবৃন্দসহ মুন্সিগঞ্জ-বিক্রমপুর এলাকার বিপুল সংখ্যক প্রবাসী যোগ দেন। মুন্সিগঞ্জ-বিক্রমপুর প্রবাসীদের আনন্দ-উচ্ছ্বাসে ভরা এই মিলন মেলায় ছিল বাংলাদেশী রকমারি খাবার আয়োজন, খেলাধুলা ও মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক পরিবেশনা।

অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের সভাপতি ড. সিদ্দিকুর রহমান ও বিশেষ অতিথি মুন্সিগঞ্জ-বিক্রমপুর এসোসিয়েশনের প্রধান উপদেষ্টা ফার্মাসিস্ট মোহাম্মদ আক্তার হোসেন অন্যান্য অতিথি ও সংগঠনের কর্মকর্তাদের সঙ্গে নিয়ে বেলুন উড়িয়ে বনভোজনের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন।

সংগঠনের উপদেষ্টা ও উৎসব কমিটির প্রধান সমন্বয়কারী মো. রফিকুল ইসলামের পরিচালনায় এবং সভাপতি আবু সায়েম ঢালীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে অতিথিরা ছাড়াও অন্যদের মধ্যে শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন, এসোসিয়েশনের উপদেষ্টা ও সাবেক সাধারণ সম্পাদক আক্তার হোসেন, উপদেষ্টা ড. এস এ শেলী, সাধারণ সম্পাদক হাবিবুর রহমান দেওয়ান, উৎসব কমিটির আহ্বায়ক কাজী কায়্যূম উদ্দিন, সদস্য সচিব ও কোষাধ্যক্ষ খান মো. শাহজাহান, যুগ্ম আহ্বায়ক আবদুল আজিজ, সমন্বয়কারী কাজী জামান বিট, যুগ্ম সদস্য সচিব মনসুর আহমদ, বাংলাদেশ সোসাইটির সাধারণ সম্পাদক রুহুল আমিন সিদ্দিকী, ক্রীড়া ও আপ্যায়ন সম্পাদক মোহাম্মদ নওশেদ হোসেন, কার্যকরী সদস্য আজাদ বাকির, যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী ফোরামের সভাপতি হারুন উর রশিদ, আমেরিকান-বাংলাদেশি ওয়েলফেয়ার অর্গানাইজেশন ইনকের সভাপতি আব্দুস শহীদ, বাংলাদেশি কমিউনিটি অব নর্থ ব্রঙ্কসের সভাপতি সিরাজুল ইসলাম খান, কমিউনিটি এক্টিভিস্ট সোনার বলাই প্রমুখ।

আয়োজকরা জানান, বিপুল সংখ্যক মুন্সিগঞ্জ-বিক্রমপুরবাসী বনভোজনে অংশ নেন। এদিন সকালে প্রবাসীরা বাস ও প্রাইভেটকারযোগে বনভোজন স্থলে সমবেত হতে থাকেন। এ সময় প্রবেশমুখে আয়োজকদের আন্তরিক আতিথেয়তায় সবাই মুগ্ধ হন। দীর্ঘদিন পর প্রবাসীরা একে অপরকে কাছে পেয়ে মেতে ওঠেন সুখ-দুঃখের আলাপনে। অনেকে ঘুরে ঘুরে প্রাকৃতিক সৌন্দর্য উপভোগ করেন। সূর্যের তেজ কমে আসতেই শুরু হয় বনভোজনের বিভিন্ন আয়োজনাদি।

বিভিন্ন বয়সী ছেলে-মেয়েদের জন্য আয়োজন করা হয় খেলাধুলার। নারীদের জন্যও ছিল বিশেষ আয়োজন। সবশেষে আয়োজন করা হয় বনভোজনের অন্যতম আকর্ষণ র‌্যাফেল ড্র। এতে পুরষ্কার হিসেবে ছিল বিভিন্ন মূল্যবান সামগ্রী। শেষে খেলাধুলায় অংশগ্রহণকারী এবং র‌্যাফেল ড্র বিজয়ীদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ করা হয়।

প্রধান অতিথি ড. সিদ্দিকুর রহমান ও বিশেষ অতিথি ফার্মাসিস্ট মোহাম্মদ আক্তার হোসেনকে বিশেষ উপহার সামগ্রী প্রদান করা হয়।

সংগঠনের সাংস্কৃতিক সম্পাদক জুঁই ইসলামের পরিচালনায় প্রবাসের জনপ্রিয় শিল্পীদের মনোজ্ঞ পরিবেশনা দর্শক-শ্রোতারা দারুণভাবে উপভোগ করেন। শিল্পীদের মধ্যে ছিলেন সবিতা দাস, মনিকা দাস প্রমুখ।

বনভোজনে নিউইয়র্কের খলিল বিরিয়ানি হাউজের খাবার দিয়ে অতিথি আপ্যায়ন করা হয়।

অনুষ্ঠানে সভাপতি আবু সায়েম ঢালী ও সাধারণ সম্পাদক হাবিবুর রহমান দেওয়ান প্রবাসী মুন্সিগঞ্জ-বিক্রমপুর বাসীসহ আমন্ত্রিত অতিথিদের শুভেচ্ছা জানিয়ে বলেন, সকলের ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় অনুষ্ঠিত হয়েছে আজকের এই সুন্দর অনুষ্ঠান।

তারা বলেন, মুন্সিগঞ্জ-বিক্রমপুর প্রবাসী ভাই-বোনেরা একটি পরিবারের মতো। সম্প্রীতি ও সৌহার্দ পরিবেশের মধ্য দিয়ে এগিয়ে যাচ্ছে মুন্সিগঞ্জ-বিক্রমপুর এসোসিয়েশন। বনভোজনে সহযোগিতাদের প্রতি বিশেষ কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন তারা। সংগঠনকে সামনে এগিয়ে নিতে সকলের সার্বিক সহযোগিতা ও পরামর্শ কামনা করেন।

বক্তারা বলেন, এ ধরণের আয়োজন নতুন প্রজন্মকে বাংলাদেশের কৃষ্টি-কালচারের সাথে পরিচিত করার সুযোগ করে দেয়। তারা বিভাজমান মুন্সিগঞ্জ-বিক্রমপুর এসোসিয়েশনসমূহের সকলকে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার তাগিদ দিয়ে আগামীতে এক সাথে বনভোজন করার পরামর্শ দেন।

এ উৎসব আয়োজনে প্রবাসী মুন্সিগঞ্জ-বিক্রমপুর ছাড়াও কমিউনিটির বিশিষ্ট ব্যক্তিরা উপস্থিত ছিলেন। সার্বিক সহযোগিতায় ছিলেন মুন্সিগঞ্জ-বিক্রমপুর এসোসিয়েশন ইনকের কর্মকর্তাবৃন্দ।

সার্বিক তত্ত্বাবধানে ছিলেন মুন্সিগঞ্জ-বিক্রমপুর এসোসিয়েশনের সভাপতি আবু সায়েম ঢালী, সিনিয়র সহসভাপতি আকবর হোসেন, সহসভাপতি জহিরুল আমিন ফারুক, সেলিম ঠাকুর, মো. মামুন শেখ, মো. নাদিম আহমেদ, মো. আনোয়ার শেখ ও কাজী কাইয়্যূম উদ্দিন, সাধারণ সম্পাদক মো. হাবিবুর রহমান দেওয়ান, সহসাধারণ সম্পাদক মনসুর আহম্মেদ, কোষাধ্যক্ষ খান মোহাম্মদ শাহজাহান, সাংগঠনিক সম্পাদক নুসরাত শারমীন, প্রচার সম্পাদক কাজল মাঝি, সাংস্কৃতিক সম্পাদিকা জুই ইসলাম, সহকারী সাংস্কৃতিক সম্পাদিকা মনিকা দাস, সমাজকল্যাণ সম্পাদক আসমা আজিজ, আন্তর্জাতিক সম্পাদিকা আইনুন রিবিন, ক্রীড়া সম্পাদক মো. সবুজ, আপ্যায়ন সম্পাদক সায়মা জামান, সদস্য মো. আবুবকর, মাহমুদুল হাসান, মো. অপু, মো. মিলু, মো. রোমান ও মো. রতন শেখ।

পরামর্শক ছিলেন প্রধান উপদেষ্টা মোহাম্মদ আকতার হোসেন, উপদেষ্টা মো. আখতার হোসেন, ড. এস আই শেলী, লে. কর্নেল (অব.) আবদুল মালেক, মুক্তিযোদ্ধা সাজেদুল ইসলাম, মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার আবদুল হালিম, মো. রফিকুল ইসলাম, কাজী জামান বিটু, মো. আবদুল আজিজ ও মো. আব্দুল হাই।

আপনার মন্তব্য

আলোচিত