সোমবার, ২১ অক্টোবর ২০১৯ ইং

নিজস্ব প্রতিবেদক

২২ জানুয়ারী, ২০১৯ ২২:২৮

সিলেটের মঞ্চে 'নবান্ন ফিরে আসো' মঞ্চস্থ

'নবান্ন ফিরে আসো' নাটকের একটি মুহুর্ত

নাট্যমঞ্চ প্রথম লোকনাট্য উৎসবের ৩য় দিন মঙ্গলবার (২২ জানুয়ারি) সন্ধ্যা সাড়ে ৬ টায় সিলেটের কবি নজরুল অডিটোরিয়ামে হল ভর্তি দর্শকের উপস্থিতে চট্টগ্রামের নাট্য সংগঠন ‘অ্যাভাঁগার্ড’ পরিবেশন করে তাদের নাটক 'নবান্ন ফিরে আসো'।

নাটকের পাণ্ডুলিপি রচনা করেছেন সুমন টিংকু এবং নির্দেশনা দিয়েছেন বাংলাদেশ গ্রুপ থিয়েটার ফেডারেশনের সভাপতি মণ্ডলীর সদস্য মুসলেহ উদ্দিন শিকদার রিপন।

মৃত্তিকালগ্ন সন্তানগণ মৃত্তিকামগ্ন হয়েই জন্মস্বাদ আস্বাদন করে আনন্দিত হয়। সনাতন মৃত্তিকাই গর্ভধারিণী, তাদের। তাদের পারষ্পরিক সহজাত ভালোবাসার সম্পর্ক অনাদিকালের। এই স্মপর্ক নাড়ির, এই সম্পর্ক বন্ধনের, যেমন মাতৃদুগ্ধের সাথে গর্ভজাতের। কিন্তু, ‘কাল’ ও তার চরিত্র বদলে ‘আকাল’ হয়ে উঠে। লোভে পড়ে সন্তানও হয়ে উঠে আপন প্রসবিনীর হন্তারক। মাতৃদুগ্ধ কে কলুষিত করতে সেও গরলের পেয়ালা হাতে দাঁড়ায় অশুভের আহ্বানে। ইতিহাস অবাক নয়নে তাকিয়ে দেখে, জননী হত্যাযজ্ঞের মঞ্চ সাজায় তারই আত্মজ। ইতিহাস দেখতে থাকে, ভ‚মিলগ্ন কৃষ্টি, বহুকালের আচার একদিন ক্রমেই অবলুপ্ত হতে বাধ্য হয়। সভ্যতা যার নাম, সেই দুর্বৃত্ত হরণ করে ভুমির যা কিছু সুন্দর। ধর্ষিতা ভ‚মি, সব হারানো ভুমি পড়ে থাকে নিথর, উপায়হীন। পরাজয় আর সম্ভ্রমহীনতায় সে ন্যুব্জ হতে হতে নুয়ে পড়ে প্রতিদিন। আর এই সবকিছুর গ্রন্থিক একজন সে অনেক উঁচু পাহাড়ে দাঁড়িয়ে অট্টহাসি দেয়। সাম্রাজ্যবাদ তার নাম। এই মৃত্তিকার এবং বলাবাহুল্য এই গ্রহের ধ্বংসই তার লক্ষ্য। অসহায় ক্রীড়নক সকল নিজেদের ধ্বংসের ক্ষণ গুনে। তবুও কালপুরুষের তেজদীপ্ত আলো নিয়ে সীতা দেবীরা দাঁডায় প্রতিরোধের আগুন হাতে। এমনি নানা নাটকিয়তা আর আলো আধারির খেলায় মঞ্চস্থ হয় নাটক' নবান্ন ফিরে আসো।'

নাটক শুরুর পূর্বে প্রখ্যাত সংগীত পরিচালক, গীতিকার, সুরকার ও বীরমুক্তিযোদ্ধা আহমেদ ইমতিয়াজ  বুলবুলের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে ১ মিনিট নিরবতা পালন করা হয়। এছাড়াও নাটক শেষে নাট্যমঞ্চ সিলেটের পক্ষ থেকে অংশগ্রহণকারী দলকে একটি উৎসব স্মারক প্রদান করা হয়।

এদিকে আজ উৎসবের ৪র্থ দিন বুধবার সন্ধ্যায় মঞ্চস্থ হবে নাটক 'মহুয়া।' ময়মনসিংহ অঞ্চলের ঐত্যিহাসিক ঘটনা নিয়ে নির্মিত নাটকটি মঞ্চস্থ করবে ময়মনসিংহের বহুরূপী নাট্য সংস্থা। এ নাটকের রচনা করেছেন কবি দ্বীজ কানাই এবং গ্রন্থনায় আছেন শাহাদাত হোসেন খান হীলু। নাটকটি দেখার জন্য আয়োজক সংগঠন নাট্যমঞ্চ সিলেটের পক্ষ থেকে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে।

আপনার মন্তব্য

আলোচিত