মঙ্গলবার, ২৩ জুলাই ২০১৯ ইং

নিজস্ব প্রতিবেদক

২৭ এপ্রিল, ২০১৯ ২৩:২১

বাউল সুরে শেষ হলো ‘চিত্রন উৎসব’

বাউল শিল্পীদের গানে গানে শেষ হলো চারুশিক্ষা প্রতিষ্ঠান চিত্রনের এক যুগপূর্তিতে যুগপূর্তি উসব। শনিবার রাতে সিলেটের প্রবীন বাউল আব্দুর রহমানসহ বাউল শিল্পীদের গানে মেতে উঠে উৎসব প্রাঙ্গণ। শুক্রবার নগরীর শ্রীহট্ট সংস্কৃত কলেজ মাঠে দুইদিনব্যাপী এ উৎসবের শুরু হয়।

উৎসব উপলক্ষ্যে চিত্রনের শিক্ষার্থীদের আঁকা ছবি নিয়ে দুদিনব্যাপী চিত্রপ্রদর্শনী শনিবার সকাল থেকেই দর্শনাথীদের জন্য ছিলো উন্মুক্ত। দিনভর বিভিন্ন বয়সী দর্শনার্থীরা খুঁদে আঁকিয়েদের ছবি দেখতে হাজির হন সংস্কৃত কলেজে।  দিনভর দর্শনার্থী-শিল্পবোদ্ধাদের প্রশংসায় ভাসে চিত্রনের শিক্ষার্থী খুঁদে আকিয়েরা।  

সন্ধ্যায় শুরু হয় বাউল গানের আসর। এতে গান পরিবেশন করেন বাউল আবদুর রহমান, বাউল বশির উদ্দিন সরকার, বাউল লাল শাহসহ তাদের শিষ্যরা। এছাড়াও গান পরিবেশন রতন দেব ও সুমিত্রা সুমি। বাঁশির সুরে মুর্ছনা তুলেন পাপলু চক্রবর্তী।

এরপর চিত্রনের বর্ষসেরা ১২ শিক্ষার্থীর হাতে সম্মাননা তুলে দেন বাউল আব্দুর রহমান।

চিত্রনের  প্রথম বর্ষের শিক্ষার্থী এস এম রাফান, দ্বিতীয় বর্ষের আয়েশা খান নায়না, তৃতীয় বর্ষের অভিষেক চক্রবর্তী,  কারুকলায় পরিণয় দে প্রত্যয়, চিত্রনের প্রথম শিক্ষার্তী সাকিব আবসারসহ ১২ জনকে সনদ প্রদান করা হয়। এসময় উৎসবে গান পরিবেশন করা বাউল শিল্পীদেরও চিত্রনের পক্ষ থেকে উত্তরীয় প্রদান করা হয়।

রাত ৯টায় চিত্রনের পরিচালক সত্যজিত চক্রবর্তীর বক্তব্যের মধ্য দিয়ে শেষ হয় উৎসব।

এরআগে শুক্রবার বিকেলে দুইদিনব্যাপী এ উৎসবের উদ্বোধন করেন একুশে পদকপ্রাপ্ত চিত্রশিল্পী, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা অনুষদের অধ্যাপক জামাল আহমদ।

উদ্বোধনী পবে বিশেষ অতিথি ছিলেন চিত্রশিল্পী ও সংগীত পরিচালক হ্যারল্ড রশীদ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা অনুষদের অধ্যাপক, চিত্রশিল্পী আনিসুজ্জামান আনিস ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা অনুষদের সহযোগী অধ্যাপক সীমা ইসলাম।

২০০৭ সালে জন্ম নেওয়া চিত্রন চারুশিক্ষালয় এ বছর এক যুগ অতিক্রিম করেছে। যুগপূর্তি উপলক্ষ্যে আয়োজন করা হয় এ উৎসবের।

আপনার মন্তব্য

আলোচিত