আজ বৃহস্পতিবার, , ২৬ এপ্রিল ২০১৮ ইং

নিজস্ব প্রতিবেদক

১২ জানুয়ারী, ২০১৮ ১৮:৪৭

ক্যান্সার কেন হৃদপিণ্ডে হয় না?

সিলেট সরকারি পাইলট স্কুলের শিক্ষার্থী জানতে চাইলেন- ‘ক্যান্সার কেন হৃদপিণ্ডে হয় না?’, বর্ডার গার্ড পাবলিক স্কুলের শিক্ষার্থী সানজিদা আক্তারের প্রশ্ন- ‘মানুষের ব্যবহারে জিনের কোনো প্রভাব আছে কি না?’ আরেকজনের প্রশ্ন- ‘ডারউইনের তথ্য অনুযায়ী- বানর থেকে বিবর্তিত হয়ে মানুষ হয়েছে, ধর্ম বলে ভিন্ন কথা; কোনটা সত্যি?’

শুক্রবার সিলেট মেট্রোপলিটন ইউনিভার্সিটিতে আয়োজিত বিজ্ঞান অলিম্পিয়াডের প্রশ্নোত্তর পর্বে শিক্ষার্থীদের এমন বিচিত্রসব প্রশ্নবাণে জর্জরিত হন অতিথিরা।

‘বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির উন্নয়নে’ এই স্লোগানে শুক্রবার দিনব্যাপী আয়োজনের মধ্যদিয়ে অনুষ্ঠিত হয় ‘বিজ্ঞান অলিম্পিয়াড ২০১৮’ এর সিলেট বিভাগীয় পর্যায়ের প্রতিযোগিতা। মেট্রোপলিটন ইউনিভার্সিটির অধ্যাপক এম হাবিবুর রহমান লাইব্রেরি হলে অনুষ্ঠিত এ প্রতিযোগিতায় প্রায় তিনশ’ শিক্ষার্থী অংশ নেয়। বাংলাদেশ বিজ্ঞান একাডেমির উদ্যোগে, মেট্রোপলিটন ইউনিভার্সিটির সিএসই সোসাইটির আয়োজনে ও ফার্স্ট সিকিউরিটি ইসলামী ব্যাংকের সহযোগিতায় এ প্রতিযোগিতায় দুটি গ্রুপের ২০ শিক্ষার্থী জাতীয় পর্যায়ের বিজ্ঞান অলিম্পিয়াডে অংশগ্রহণের জন্য মনোনীত হয়।

অনুষ্ঠানের অতিথি শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের পদার্থবিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক ড. বদিউজ্জামান ফারুক শিক্ষার্থীদের এই প্রশ্ন করাকে উৎসাহিত করে বলেন, প্রশ্ন করাটাই সবচেয়ে কঠিন কাজ। উত্তর অনেকেই দিতে পারে। কিন্তু প্রশ্ন করতে পারে না। প্রশ্ন করতে না পারলে জানা যাবে না।

তিনি বিজ্ঞান অলিম্পিয়াড আয়োজনের প্রয়োজনীয়তা তুলে ধরে বলেন, এই ধরণের অলিম্পিয়াড মানুষের জানার আগ্রহ বাড়ায়। আমাদের প্রায় সবার হাতের মুঠোয় গুগল আছে। সেখানে প্রশ্ন করলেই উত্তর পাওয়া যায়। কিন্তু আমরা প্রশ্ন করি না। কারণ আমাদের আগ্রহ নেই। ফলে শিক্ষার্থীদের মধ্যে জানার আগ্রহ বাড়াতে হবে।

দিনভর প্রতিযোগিতা শেষে বিকেলে বিজয়ী শিক্ষার্থীদের মধ্যে পুরষ্কার বিতরণ করা হয়। মেট্রোপলিটন ইউনিভার্সিটির বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. মো. নজরুল হক চৌধুরীর সভাপতিত্বে সমাপনী অনুষ্ঠানে অধ্যাপক ড. বদিউজ্জামান ফারুক ছাড়া আরও বক্তব্য রাখেন, জীববিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক আজিজুর রহমান লস্কর, শাবিপ্রবি’র রসায়ন বিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক ড. আশরাফুল আলম, অধ্যাপক বাসিত ইবনে হাবিব, ফার্স্ট সিকিউরিটি ইসলামী ব্যাংকের সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট কাজী মোতাহের হোসেন।

এমইউ সিএসই সোসাইটির কোষাধ্যক্ষ অমিত চক্রবর্তীর সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানের কো-অর্ডিনেটর হিসেবে ছিলেন মেট্রোপলিটন ইউনিভার্সিটির সিএসই বিভাগের সহকারি অধ্যাপক ফুয়াদ আহমেদ। উপস্থিত ছিলেন এমইউ সিএসই সোসাইটির সিনিয়র সহ-সভাপতি মোহাম্মদ আবিদ কায়সার, সাধারণ সম্পাদক শাহরিয়ার তকী আফিন্দী প্রমুখ।

আয়োজকরা জানান, বিজ্ঞান অলিম্পিয়াডের সিলেট বিভাগীয় পর্যায়ের প্রতিযোগিতার জন্য বিভিন্ন স্কুল ও কলেজের ২৮০ জন শিক্ষার্থী অংশগ্রহণ করেন। তন্মধ্যে ক গ্রুপ (নবম-দশম) থেকে ১০ জন এবং খ গ্রুপ (একাদশ-দ্বাদশ) থেকে ১০ জন শিক্ষার্থী ঢাকায় এ অলিম্পিয়াডের জাতীয় পর্যায়র প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণের জন্য মনোনীত হয়। ক গ্রুপ থেকে মনোনীতরা হচ্ছে- অরিত্র দেবনাথ, আহমেদ আশরাফ জাওয়াদ, সাফায়াত জামিল, সপ্তক চন্দ্র, আবিদ হাসান, শুভ্র রায় শুভ, গুলসানা চৌধুরী, আদিল আহমেদ, মেহেদি হাসান শুভ ও রূপন কান্তি দাস। খ গ্রুপ থেকে মনোনীতরা হচ্ছে- ফারহান মোহিত নিটোল, আব্দুল গফুর, আবিদ মো. তাওসীফ, আহনাফ দাইয়ান, হোসাইন মাসুম, রুমানা আক্তার, তানজিম উদ্দিন আহমেদ, তন্ময় কান্তি সাহা, খায়রুল আলম ও মিনহাজ আহমেদ। এদের সবার হাতে পুরস্কার তুলে দেন অতিথিরা।

আপনার মন্তব্য

আলোচিত