মঙ্গলবার, ১০ ডিসেম্বর ২০১৯ ইং

শাবি প্রতিনিধি

২১ নভেম্বর, ২০১৯ ১৮:৫৪

মানববন্ধনে প্রক্টরের বাধার প্রতিবাদে শাবিতে বিক্ষোভ ও সমাবেশ

শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীদের মানববন্ধনে প্রক্টরের বাধার প্রতিবাদে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ করেছেন সাধারণ  শিক্ষার্থীরা।

বৃহস্পতিবার (২১নভেম্বর) দুপুরে বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগার ভবনের সামনে একটি মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। মানববন্ধন শেষে প্রতিবাদী বিক্ষোভ মিছিল বের করে ক্যাম্পাসের গুরুত্বপূর্ণ সড়ক প্রদক্ষিণ করে উপাচার্য ভবনের সামনে গিয়ে সমাবেশে মিলিত হয়।

এসময় ফয়সাল আহমেদ শুভর সঞ্চালনায় বক্তব্য দেন নাযিরুল আযিম বিশ্বাস, সুদীপ্ত ভাস্কর অর্ঘ্য, নিশাত জাহান নিসা, তানভীর আকন্দ, তাবিয়া তাসনীম আনিকা, স্বপন আহমেদ প্রমুখ।

সমাবেশে নাযিরুল আযিম বিশ্বাস বলেন, মানববন্ধন হচ্ছে জনমত গঠনের প্রক্রিয়া। এর জন্য প্রশাসনের অনুমিত নিতে হয় না। যদি অনুমতি নিতে হতো ১৯৫২, ৬৬ কিংবা ৭১ সালের আন্দোলন হতো না। আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়ে আইন বা নিয়মনীতি করার সময় শিক্ষার্থীদের কোন মতামত নেয়া হয় না।

এসময় সুদীপ্ত ভাস্কর অর্ঘ্য বলেন, ঈদেরছুটি, পূজার ছুটিসহ যেকোনো ইস্যুকে কেন্দ্র করে হল বন্ধ করে দেয় বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। জানুয়ারি মাস শিক্ষার্থীদের জন্য গুরুত্বপূর্ণ একটি সময়। এসময়ে শিক্ষার্থীরা নতুন করে টিউশন নেয়ার সুযোগ পায়। সমাবর্তনের পরবর্তী সময়ে তারিখ থেকে হল বন্ধ রাখার কোনো যৌক্তিকতা নেই।

তিনি বলেন, বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন হল বন্ধের কোন যৌক্তিকতা আমাদেরকে দেয় না। গতকাল আমাদের মানববন্ধনে শিক্ষার্থীর উপস্থিতি হারের কারণ দেখিয়ে মানববন্ধন নৎসাত করে দেয় প্রশাসন। সংখ্যার ভিত্তিতে সত্য মিথ্যা বিবেচনা করা কখনোই কখনোই যৌক্তিকতার মধ্যে পড়ে না।

নিশাত জাহান নিসা বলেন, শীতকালীন সময়ে মেয়েদেরকে পূর্বের সময়ের তুলনায় এক ঘণ্টা আগে প্রবেশ করতে হয়।  বিশ্ববিদ্যালয়ের লাইব্রেরি বন্ধ হয় রাত আটটায়। তবে আমাদের হলে প্রবেশ করতে হয় সন্ধ্যা সাতটায়, এটি হাস্য রসাত্মক কৌতুক বলে মনে হয়।

প্রসঙ্গত, আগামী বছরের আট জানুয়ারি অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে বিশ্ববিদ্যালয়ের তৃতীয় সমাবর্তন। এসময় ক্যাম্পাস ও আবাসিক হলগুলো বন্ধের সিদ্ধান্ত নিয়েছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। হল বন্ধের প্রতিবাদে আন্দোলন করছেন শিক্ষার্থীরা।

আপনার মন্তব্য

আলোচিত