রবিবার, ১৮ আগস্ট ২০১৯ ইং

মীর আন্‌-নাজমুস সাকিবের উপন্যাস ‘পৌনঃপুনিকতা’ প্রকাশিত

 প্রকাশিত: ২০১৭-০২-০৮ ১১:০২:৪৯

 আপডেট: ২০১৭-০২-০৮ ১১:০৬:০৪

নিজস্ব প্রতিবেদক:

শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (শাবিপ্রবি) গণিত বিভাগের প্রাক্তন শিক্ষার্থী, সংগঠক, গবেষক ও সাংবাদিক মীর আন্‌-নাজমুস সাকিবের লেখা প্রথম উপন্যাস ‘পৌনঃপুনিকতা’র মোড়ক উন্মোচন সম্পন্ন হয়েছে। নাজমুল হক নাজুর প্রকাশনায় বইটি বাজারে নিয়ে এসেছে ঘাস প্রকাশন।

মঙ্গলবার (০৭ ফেব্রুয়ারি) সন্ধ্যায় সিলেটের কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে চলমান অমর একুশে বইমেলায় বইটির মোড়ক উন্মোচন করা হয়। এসময় উপস্থিত ছিলেন শাবিপ্রবির কোষাধ্যক্ষ ও সাহিত্যিক প্রফেসর ড. মো. ইলিয়াস উদ্দীন বিশ্বাস, একই বিশ্ববিদ্যালয়ের গণিত বিভাগের বিভাগীয় প্রধান প্রফেসর ড. মো. আনোয়ারুল ইসলাম, লেখিকা আলেয়া রহমান, গল্পকার ও ‘দৈনিক সিলেটের ডাক’ পত্রিকার সহ-সম্পাদক সেলিম আউয়াল, কবি শামীমা কালাম এবং বাংলাদেশ কবিসভার সভাপতি সিদ্দিক আহমদ।

মোড়ক উন্মোচনের পর প্রফেসর ড. মো. ইলিয়াস উদ্দীন বিশ্বাস বলেন ‘আমি উপন্যাসের কিছু অংশ পড়েছি। মূলত বর্তমান সমাজ কাঠামোতে পরিবারে সন্তানদের প্রতি পিতামাতার অবহেলা, পারিবারিক দ্বন্দ্ব-সংঘাত, ইত্যাদির চালচিত্র ফুটে উঠেছে। আশাকরি পাঠকদের উপন্যাসটি ভালো লাগবে’।

প্রফেসর ড. মো. আনোয়ারুল ইসলাম বলেন, ‘আমি সাকিবের লেখালিখির অভ্যাস সম্পর্কে অনেক আগে থেকেই জানি। ও যদি লেখালিখির সাথে থাকে, তাহলে ভবিষ্যতে আরও অনেক ভালো করবে’ ।

উপন্যাসের মূল চরিত্রে আছেন একজন শখের লেখক, যিনি পেশায় প্রাইভেট ব্যাংকের ম্যানেজার। তিনি তার চার বছরের ছেলেকে নিয়ে থাকেন শহর থেকে একটু দূরে একটা বাগান বাড়িতে। ছুটির দিনগুলোতে দুজন মিলে বেরিয়ে পড়েন প্রকৃতি দর্শনে। তাঁদের জীবনের সাথে জড়িয়ে আছে নানা রকমের নানা চরিত্র। শখের এ লেখকটি লেখার মাধ্যমে ফুটিয়ে তোলার চেষ্টা করেন তাঁর জীবনে ঘটে যাওয়া সুখ-দুঃখ, হাসি-কান্নার কাহিনীগুলোকে। বাবা-ছেলের জীবনে ভালোবাসা আছে, প্রকৃতিপ্রেম আছে, রাগ আছে, অভিমান আছে, হিংসা আছে, জীবনবোধ আছে, বিচ্ছেদ আছে, পুনর্মিলন আছে, অ্যাকশন আছে, এমনকি রহস্যও আছে। জীবনের প্রতিটি পদক্ষেপে তাঁদের রয়েছে অসংখ্য অপ্রাপ্তি, কষ্ট, একাকীত্ব, বিচ্ছেদ আর দীর্ঘশ্বাস। যা তাঁরা প্রকৃতির মাঝে ভুলে থাকার চেষ্টা করেন। এভাবেই কাহিনী এগিয়ে চলে।

আগামী ১৩ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত চলা বইমেলাটির ঘাস প্রকাশনের স্টল ছাড়াও বইটি পাওয়া যাবে সিলেটের আখালিয়ার শাবিপ্রবি গেইটের পশ্চিম পার্শ্বস্থ গ্রন্থ বিতান ‘মশাল’, জিন্দাবাজার রাজা ম্যানশনস্থ ‘বইপত্র’ এবং বন্দর বাজারের ‘নিউ নেশন লাইব্রেরি’ থেকে। এছাড়াও সিলেটের মাছুদিঘির পাড়, তালতলাস্থ ‘ঘাস প্রকাশন’ ও ‘ছাপাকানন’-এর কার্যালয়েও পাওয়া যাবে।

আগ্রহী পাঠকরা বইটি কুরিয়ার যোগে সংগ্রহ করতে পারবেন; এক্ষেত্রে ০১৯৬৩৮০৪২২৪ এই নম্বরে মুঠোফোনে যোগাযোগ করতে হবে।

আপনার মন্তব্য