সোমবার, ২০ মে ২০১৯ ইং

বইমেলার ডায়েরি-১৫

 প্রকাশিত: ২০১৮-০২-১৬ ০০:৩৪:১৪

রেজা ঘটক:

আজ বৃহস্পতিবার ছিল ফাগুনের তৃতীয় দিন। অমর একুশে বইমেলার পনেরতম দিন। বইমেলা শুরু হয়েছিল দুপুর তিনটায় আর যথারীতি শেষ হয়েছে রাত নয়টায়। কিন্তু আমি কাজ থাকায় সূর্য ডোবার আগেই বইমেলা থেকে চলে এসেছি।

বাংলা একাডেমি'র লিটলম্যাগ চত্বরে গিয়ে কিছুক্ষণ আড্ডা দিয়েছি। আড্ডায় যে বিষয়টি জানতে পারলাম, তা গুরুতর অপরাধের পর্যায়ে পড়ে।

বাংলা একাডেমি এবার যে আন্তর্জাতিক সাহিত্য সম্মেলন করছে, সেখানে বাজেট সংকুলান করেছে মূল বইমেলার বাজেট থেকে। যে কারণে অমর একুশে বইমেলার মূল মঞ্চে সন্ধ্যাবেলায় যে গানের অনুষ্ঠান হয়, সেখানে আর্টিস্টদের পেমেন্ট দেয়া হচ্ছে কম।

এবার প্রতিদিন সেই বাজেট মাত্র বিশ হাজার টাকা। অথচ যা গতবছরও এরচেয়ে অনেক বেশি ছিল। ঢাকার বাইরে থেকে যে সকল বাউলরা গান করতে আসেন, তারা গান শেষে একাডেমি থেকে টাকা পেতেন। এবার বাজেট কমিয়ে দেওয়ায়, সেই বাউলদের তো আসা যাওয়ার বাস ভাড়াও হবে না।

বাংলা একাডেমি আন্তর্জাতিক সাহিত্য সম্মেলন করার জন্য এই যে বাজেট কাটছাঁট করে শিল্পীদের পারিশ্রমিকের উপর অযৌক্তিক পেমেন্ট কর্তন করল, আমি এটার তীব্র প্রতিবাদ জানাচ্ছি।

একাডেমি চাইলে স্পন্সর ম্যানেজ করতে পারে। তাই বলে আগে থেকে ফিক্স করা বিষয়ের উপর এভাবে কলম চালিয়ে একাডেমি একটা দুর্নাম করছে।

আগে যে শিল্পীকে পাঁচ হাজার টাকা পেমেন্ট করা হতো, এখন তাকে তিন হাজার বা দুই হাজার টাকা পেমেন্ট করা হচ্ছে। এটা খুবই খারাপ উদাহরণ হচ্ছে। এভাবে এখানকার বাজেট ওখানে খরচ করার এই চর্চাটির সাথে মূল বাজেটে ঝামেলা হবার কথা।

গোটা দেশ যেখানে দুর্নীতি, অপকর্ম, কুচক্রীদের সিন্ডিকেটে পরিণত হয়েছে, সেখানে জাতির মননের প্রতীক হিসেবে বাংলা একাডেমিও সেই একই অপকর্মে লিপ্ত হলে, তা আমরা মানতে পারি না। শিল্পীদের যথাযথ পেমেন্ট কীভাবে দেওয়া যাবে, তা একাডেমিকেই ঠিক করতে হবে। সরকার সংস্কৃতি বিষয়ে বাজেট দেয় সবচেয়ে কম। সরকারি সেই কুইচ্ছার বহিঃপ্রকাশ এবার বাংলা একাডেমিও দেখাচ্ছে। যা একটি জাতির জন্য মোটেও শুভকর নয়।

আশা করি বিষয়টি নিয়ে বাংলা একাডেমির শুভ বুদ্ধির উদয় হবে। আন্তর্জাতিক সাহিত্য সম্মেলনও যেমন করতে হবে, পাশাপাশি নিজেদের স্থানীয় শিল্পীদেরও যথাযথ মূল্যায়ন করতে জানতে হবে।

নিজে না খেয়ে মেহমানদারির কোনো মানে নাই। তাছাড়া একাডেমির এই আন্তর্জাতিক সাহিত্য সম্মেলন কোনো কবি-লেখকরা পর্যন্ত এখনো ভালো করে জানে না। এটা একটা পিকনিক পার্টি হলে আমার আপত্তি আছে।

বন্ধুরা বইমেলায় আসুন, নিজের পছন্দের বই কিনুন। প্রিয়জনকে বই উপহার দিন। সবাইকে অমর একুশে বইমেলার শুভেচ্ছা। বইমেলা অমর হোক। ভাষা শহীদদের আত্মার শান্তি কামনা করি। জয়তু অমর একুশে গ্রন্থমেলা। জয়তু ভাষার মাস।
১৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৮

  • রেজা ঘটক: কথাসাহিত্যিক, চলচ্চিত্র নির্মাতা।

আপনার মন্তব্য