শনিবার, , ২০ অক্টোবর ২০১৮ ইং

সিলেটটুডে ডেস্ক

২২ মে, ২০১৮ ০৩:২৮

‘ভালো মানের’ অ্যান্ড্রয়েড ফোনের দাম কত?

মন্ত্রী, প্রতিমন্ত্রী, উপমন্ত্রী, সচিব ও ভারপ্রাপ্ত সচিবেরা মোবাইল ফোন সেট কেনার জন্য আগের নির্ধারিত টাকার পরিমাণ পাঁচগুণ বাড়িয়েছে সরকার। এখন থেকে তারা ৭৫ হাজার টাকা করে পাবেন। এত দিন এ জন্য তারা ১৫ হাজার টাকা করে পেতেন।

সোমবার তেজগাঁওয়ে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত হয় এই মন্ত্রিসভায় বৈঠক। সভায় সভাপতিত্ব করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। পরে সচিবালয়ে সংবাদ সম্মেলন করে সভার সিদ্ধান্ত জানান মন্ত্রিপরিষদ সচিব মোহাম্মদ শফিউল আলম।

মন্ত্রিপরিষদ সচিব জানান, যুগ্ম সচিব, অতিরিক্ত সচিবসহ যেসব কর্মকর্তা সার্বক্ষণিকভাবে মোবাইলের সুবিধা পান না, তারা মোবাইল ফোন ব্যবহার ভাতা হিসেবে মাসে ১ হাজার ৫০০ টাকা করে পাবেন। এত দিন তারা ৬০০ টাকা করে পেতেন।

ভালো মানের ফোনের দামের বিষয়টি নিয়ে বলাবলি হচ্ছে মন্ত্রিপরিষদ সচিব শফিউল আলমের ব্রিফিংয়ের পর। সোমবার মন্ত্রিসভার নিয়মিত বৈঠকের সিদ্ধান্ত নিয়ে এক ব্রিফিংয়ে সচিব জানান, মন্ত্রিসভার সদস্য এবং সচিবদেরকে বিনামূল্যে ফোন দেয়ার প্রস্তাবে নীতিগত সায় এসেছে।

সচিব বলেন, যেহেতু ভালো মানের অ্যান্ড্রয়েড ফোন ৭৫ হাজার টাকার নিচে কেনা যায় না, তাই তাদেরকে এই দামেই ফোন দেয়ার সিদ্ধান্ত হয়েছে।

এবার দেখা যাক ‘ভালো মানের’ কিছু মোবাইল ফোনের দাম। সচিব অ্যান্ড্রয়েড ফোনের কথা বলেছেন, তাই বিশ্বজুড়ে ভালো মানের ফোন হিসেবে জনপ্রিয় আইফোনকে বাদ দিয়ে দেয়া যায়। কারণ, এর অপারেটিং সিস্টেম অ্যান্ড্রয়েড নয়, আইওএস।

বাংলাদেশের বাজারে অ্যান্ড্রয়েড অপারেটিং সিস্টেমের ফোনের জনপ্রিয়তার মধ্যে রয়েছে স্যামসাং, হুয়াওয়ে, অপো এবং শাওমির মত প্রতিষ্ঠানগুলো। এর মধ্যে স্যামসাং ও হুয়াওয়ের ফ্লাগশিপ ফোনগুলোর দাম লাখ খানেকেরও বেশি। অপো এবং শাওমি ফোনের দাম মোটামুটি হাতের নাগালে।

স্যামসাংয়ের সর্বশেষ ফ্লাগশিপ ফোনগুলো হলো গ্যালাক্সি এস নাইন প্লাস, গ্যালাক্সি নোট এইট, গ্যালাক্সি এস এইট এবং এস এইট প্লাসের।

স্যামসাং মোবাইল বাংলাদেশের তথ্য মতে, গ্যালাক্সি এস নাইন প্লাসের দাম ১ লাখ ৫ হাজার ৯০০ টাকা। গ্যালাক্সি নোট এইটের দাম ৯৯ হাজার ৯০০ টাকা। গ্যালাক্সি এস এইটের দাম ৭৯ হাজার ৯০০ টাকা, এস এইট প্লাসের দাম ৮৯ হাজার ৯০০ টাকা।

অন্যদিকে হুয়াওয়ের সর্বশেষ ফ্লাগশিপ ফোন মেট ১০ প্রো বাংলাদেশে পাওয়া যাচ্ছে ৮৩ হাজার ৯০০ টাকায়।

হুয়াওয়ে নোভো থ্রি ই ফোনটির মূল্য ২৭ হাজার ৯৯০ টাকা। মিড রেঞ্চে এই প্রতিষ্ঠানটির আরেকটি ফোন পাওয়া যাচ্ছে। মডেল নোভা টু আই। দাম ২৪ হাজার ৯৯০ টাকা।

শাওমির মি এ ওয়ান বিক্রি হচ্ছে ২১ হাজার ৯৯০ টাকায়। রেডমি ফাইভ প্লাস পাওয়া যাচ্ছে ১৭ হাজার ৯৯০ টাকায়। রেডমি নোট ফোর ১৯ হাজার ৯৯০ টাকায় মিলছে। এছাড়াও ফ্লাগশিপ প্রিমিয়াম ঘরানার ফোন মি মিক্স টু পাওয়া যাচ্ছে ৫৬ হাজার ৪৯০ টাকায়।

অপোর এফ সেভেন ৬ জিবি র্যাামের ফোনটির মূল্য ৩৫ হাজার ৯৯০ টাকা। এরপরেই আছে অপো এফ ফাইভ। যার দাম ৩২ হাজার ৯৯০ ঢাকা। এফ থ্রির দাম ২৪ হাজার ৯৯০ টাকা। অপো এফ থ্রির প্লাসের দাম ৪০ হাজার ৯০০ টাকা।

বাংলাদেশি উৎপাদিত হ্যান্ডসেট উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠান ওয়ালটন, সিম্ফনির স্মার্টফোন ২০ হাজার টাকা থেকে ৩০ হাজার টাকার মধ্যে পাওয়া যাচ্ছে।

তবে নিরাপত্তার জন্য ব্ল্যাকবেরি বিশ্বজুড়েই সমাদৃত। তবে তাদের রয়েছে নিজস্ব অপারেটিং সিস্টেমস। এর বাইরে গত কয়েক বছর ধরে কানাডিয়ান কোম্পানিটি অ্যান্ড্রয়েড অপারেটিং সিস্টেম নির্ভর ফোনও তৈরি করছে। আর এই ফোনগুলোর কয়েকটি মডেল বাংলাদেশে বিক্রি করছে একটি প্রতিষ্ঠান।

ব্ল্যাকবেরির সর্বশেষ কি-ওয়ান মডেলটির কালো রঙের সংস্করণ পাওয়া যাচ্ছে বাংলাদেশে। জানুয়ারিতে এটি বাজারে আসার পর এটির দাম ছিল প্রায় ৫৩ হাজার ৯৯০ টাকা।

আপনার মন্তব্য

আলোচিত