রবিবার, , ১৭ ফেব্রুয়ারী ২০১৯ ইং

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

০৯ ফেব্রুয়ারী, ২০১৯ ১২:২০

চিড়িয়াখানায় সঙ্গীর আক্রমণে বাঘিনীর মৃত্যু

যুক্তরাজ্যের লন্ডন চিড়িয়াখানায় নতুন সঙ্গী এক পুরুষ বাঘের আক্রমণে বিপন্ন প্রজাতির সুমাত্রান বাঘিনী মারা গেছে। মাত্র ১০ দিন আগে অসীম নামের বাঘটিকে ওই চিড়িয়াখানায় দীর্ঘদিনের বাসিন্দা মেলাতি নামের বাঘিনীর জন্য আনা হয়েছিল।

শনিবার (৯ ফেব্রুয়ারি) বিবিসি অনলাইনের খবরে এ বিষয়টি নিশ্চিত করা হয়েছে।

তারা জানায়, এক বিবৃতিতে লন্ডন চিড়িয়াখানা জানিয়েছে, ড্যানিশ সাফারি পার্ক থেকে অসীম নামের বাঘটিকে আনা হয়। ১০ বছর বয়সী সুমাত্রান বাঘিনী মেলাতির সামনে আনার আগে নতুন পরিবেশে অভ্যস্ত করার জন্য অসীমকে কিছুদিন আলাদা রাখা হয়। তবে দুটি বাঘকে একসঙ্গে রাখার পর তারা মারামারি শুরু করে। ঘটনা খুব দ্রুত ভয়াবহ আকার ধারণ করে। অসীমকে দ্রুত আলাদা করে নেওয়া হয়। তবে অনেক চেষ্টার পরও ১০ বছর বয়সী মেলাতিকে বাঁচানো যায়নি।

বিবৃতিতে বলা হয়, এ ঘটনায় চিড়িয়াখানার কর্মীরা বেদনাহত। কর্মীদের এখন নজর অসীমের যত্ন নেওয়া।

এর আগে মেলাতির সঙ্গী ছিল জে জে নামের একটি বাঘ। সে সময় মেলাতি সাতটি শাবকের জন্ম দেয়। জে জেকে ৩০ জানুয়ারি ফ্রান্সে নিয়ে যাওয়া হলে মেলাতির জন্য নতুন সঙ্গী হিসেবে অসীমকে আনা হয়।

ধারণা করা হয়েছিল, মেলাতির জন্য অসীম হবে সবচেয়ে ভালো সঙ্গী, অথচ ঘটেছে উল্টোটা।

অসীমকে আনার পর কর্তৃপক্ষ বলেছিল, অসীম দারুণ আকর্ষণীয় ও আত্মবিশ্বাসী এবং তার জীবনের সব বাঘিনীর প্রতি সে প্রচণ্ড দরদি। আশা করা যায়, সুন্দরী মেলাতির জন্য সে হবে সঠিক সঙ্গী।

লন্ডন চিড়িয়াখানায় মেলাতি ২০১৩ সালে দুটি শাবকের জন্ম দেয়। তবে একটি পুলের পানিতে ডুবে মারা যায়। পরে ২০১৪ সালের ফেব্রুয়ারিতে তিনটি এবং ২০১৬ সালের জুনে আরও দুটি শাবকের জন্ম দেয়।

এ খবরের প্রচ্ছদে ব্যবহৃত মেলাতি ও তার শাবকের ছবিটি ২০১৬ সালে দ্য গার্ডিয়ানের বেস্ট ফটো গ্যালারিতে স্থান পায়।

ইন্দোনেশিয়ার সুমাত্রার জঙ্গল সুমাত্রান বাঘের প্রাকৃতিক আবাস। তবে এই প্রজাতির বাঘ এখন বিপন্ন। ১৯৭০ সালে সুমাত্রান বাঘের সংখ্যা ছিল আনুমানিক এক হাজার। সে সংখ্যা কমতে কমতে এখন ৩০০–তে নেমে এসেছে।

আপনার মন্তব্য

আলোচিত