সোমবার, ১৯ আগস্ট ২০১৯ ইং

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

১০ মে, ২০১৯ ১১:৪৯

তারাবির নামাজের সময় পূর্ব লন্ডনের মসজিদে গুলি

যুক্তরাজ্যের পূর্ব লন্ডনের ইলফোর্ড এলাকার সেভেন কিংস মস‌জিদে রমজানের তারাবির নামাজের সময় গুলির ঘটনা ঘটেছে। তবে এতে কেউ হতাহত হয়নি।

স্কটল্যান্ড ইয়ার্ডের বরাত দিয়ে বিবিসির এক প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে, বৃহস্পতিবার (৯ মে) রাত পৌনে ১১টার দিকে তারাবির নামাজের সময় মসজিদের বাইরে এই গুলির ঘটনা ঘটেছে।

বিবিসি জানায়, বৃহস্পতিবার রাতে ইলফোর্ডের হাই রোড এলাকার সেভেন কিংস মসজিদে মুসল্লিরা যখন তারাবির নামাজ পড়ছিলেন, সে সময় বন্দুকধারী এক ব্যক্তি মসজিদ চত্বরে উপস্থিত হন এবং মসজিদে প্রবেশের চেষ্টা করলে ভেতরে নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকা কয়েকজন ওই ব্যক্তিকে বাধা দেন। এরপর মসজিদ এলাকায় ফাঁকা গুলির আওয়াজ শোনা যায়।

অবশ্য লন্ডন পুলিশ জানিয়েছে, তাদের বিশ্বাস এটি কোনো ধরনের জঙ্গি কর্মকাণ্ড বা হামলা নয়।

পুলিশ জানায়, ঘটনাস্থলে সশস্ত্র পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। এ ঘটনায় কেউ হতাহত বা মসজিদ ক্ষতিগ্রস্ত হয়নি। সেখান থেকে গুলির নমুনা উদ্ধার করা হয়েছে। তাতে ধারণা করা হচ্ছে, ব্যবহৃত অস্ত্রটি একটি ব্ল্যাঙ্ক-ফায়ারিং হ্যান্ডগান। পুলিশ সারা রাত মসজিদের নিরাপত্তায় থাকবে বলেও জানানো হয়।

এদিকে, টুইটারে লন্ডন মুসলিম পরিষদের অন্যতম মুখপাত্রের শেয়ার করা এক বিবৃতিতে সেভেন কিংস মসজিদের ইমাম মুফতি সুহালি জানান, সন্দেহভাজন ওই ব্যক্তির উদ্দেশ্য স্পষ্ট নয়। এ ঘটনাকে যেন মনগড়া করে প্রচার করা না হয়।

মুফতি আরো বলেন, নামাজের সময়ে এক ব্যক্তি মসজিদ ভবনে প্রবেশ করেন। কিন্তু ‘মসজিদের নিরাপত্তায় থাকা আমাদের ভাইদের বাধার মুখে ওই সন্দেহভাজন ঘটনাস্থল থেকে চলে যান।’

পুলিশ জানিয়েছে, এ ঘটনায় মসজিদের প্রতিনিধিদের সঙ্গে কাজ করছে পুলিশ। নিরাপত্তা নিশ্চিতের ব্যাপারে স্থানীয় গোষ্ঠীকে আশ্বস্ত করা হচ্ছে। এতে এখন পর্যন্ত কাউকে গ্রেপ্তার করা হয়নি, তদন্ত চলছে বলেও জানায় তারা।

এর আগে ২০১৭ সালে লন্ডনের ফিন্সবারি পার্ক এলাকায় এক মসজিদে সন্ত্রাসী হামলায় এক ব্যক্তি নিহত ও অন্তত নয়জন আহত হন।

সম্প্রতি সারা বিশ্বে বিভিন্ন ধর্মের উপাসনালয় কেন্দ্রে হামলার ফলে এগুলোতে নিরাপত্তার বিষয়টি প্রধান হয়ে উঠেছে।

গত মার্চে নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চে সন্ত্রাসী হামলায় ৫০ জন নিহত হন। এরপর গত এপ্রিলে শ্রীলঙ্কায় ইস্টার সানডেতে চার্চে সন্ত্রাসী হামলায় নিহত হন অন্তত ২৫৩ জন। এর এক সপ্তাহ পরই এক অস্ত্রধারী যুক্তরাষ্ট্রের ক্যালিফোর্নিয়ায় একটি সিনাগগে হামলা চালালে এক নারী নিহত হন।

আপনার মন্তব্য

আলোচিত