সোমবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯ ইং

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

১৯ আগস্ট, ২০১৯ ২০:০৬

তালাকের বিচার চাওয়ায় ভারতে মেয়ের সামনেই মাকে পুড়িয়ে হত্যা

মোবাইল ফোনে স্বামী তিন তালাক দেয়ার পর থানায় অভিযোগ জানাতে গিয়েছিলেন স্ত্রী। ওই ‘অপরাধে’, মেয়ের সামনেই স্ত্রীর গায়ে কেরোসিন ঢেলে পুড়িয়ে মারলো স্বামী ও শ্বশুরবাড়ির লোকজন। ভারতের উত্তরপ্রদেশের শ্রাবস্তীতে এ ঘটনা ঘটেছে।

নিহতের পরিবার জানিয়েছে, শ্রাবস্তীর বাসিন্দা সাইদাকে মোবাইল ফোনে তিন তালাক দেন তার স্বামী নাফিস। কর্মসূত্রে মুম্বাইয়ে থাকতেন নাফিস। এর পর গত ৬ আগস্ট এই ঘটনার কথা পুলিশে জানান সাইদা। তিনি লিখিত অভিযোগও করতে চান। কিন্তু পুলিশ সাইদার অভিযোগ না নিয়ে তাকে বাড়ি ফিরে যেতে বলে। প্রাথমিকভাবে মিটমাটের চেষ্টা করে পুলিশ। নাফিসকে ডেকেও পাঠানো হয়।

১৫ আগস্ট উত্তরপ্রদেশে নিজের গ্রামের বাড়িতে ফেরে নাফিস। কিন্তু পুলিশের পরামর্শ মেনে নেননি নাফিস। জানা গেছে, সাইদাকে বাড়ি থেকে তাড়িয়ে দিতে চেয়েছিল নাফিস। কিন্তু এতে রাজি না হওয়ায় নাফিস, তার মা এবং দুই বোন মিলে সাইদার উপর চড়াও হন।

আর এমন ভয়াবহ ঘটনা ঘটেছে সাইদার পাঁচ বছরের মেয়ের সামনেই। পুলিশের কাছে সে দিনের ঘটনার বিবরণ তুলে ধরেছে সাইদার মেয়ে। তার জবানবন্দিতে জানা যায়, সাইদা শ্বশুরবাড়ি ছাড়তে রাজি না হলে তাকে মারধর করেন নাফিস। সে সময় সাইদার গায়ে কেরোসিন ঢেলে দেন নাফিসের দুই বোন। নাফিসের মা দেশলাই জ্বালিয়ে সাইদার গায়ে আগুন ধরিয়ে দেন।

এ ঘটনার পর থেকে বেপাত্তা নাফিস ও তার পরিবার। এখনও কাউকে গ্রেপ্তার করতে পারেনি পুলিশ। তবে পণ নেওয়া ও খুনের অভিযোগে মামলা দায়ের করা হয়েছে। কেন প্রথমেই সাইদার অভিযোগ নেয়া হয়নি সেটিও তদন্ত করে দেখা হচ্ছে।

উল্লেখ্য, তাৎক্ষণিক তিন তালাক বন্ধে ইতোমধ্যেই ঐতিহাসিক পদক্ষেপ নিয়েছে কেন্দ্রীয় সরকার। গত জুলাই মাসেই সংসদে পাস হয়েছে তিন তালাক বিল। কিন্তু এরপরও শ্রাবস্তীতে এমন ঘটনা ঘটলো।

আপনার মন্তব্য

আলোচিত