বুধবার, , ১২ ডিসেম্বর ২০১৮ ইং

অনলাইন ডেস্ক

২৭ জুলাই, ২০১৮ ১৯:১৫

চন্দ্রগ্রহণ নিয়ে যত কুসংস্কার!

প্রাচীন এবং অকেজো কিছু ধারণা এখনও কিছু মানুষ আঁকড়ে ধরে আছেন। এগুলো হতে পারে ধর্মীয়, হতে পারে পারিবারিক কোনো প্রথা। পরিবারের প্রবীণ মানুষের কাছে এসব প্রথার মূল্য বেশি।

তাদের মাথার ভেতরে এসব প্রথা এমনভাবে গেঁড়ে বসে আছে। তবে এই মুহূর্তে সব থেকে আলোচ্য বিষয়টি বোধ হয় আজ রাতের চন্দ্রগ্রহণ।

এটি শতাব্দীর দীর্ঘতম পূর্ণগ্রাস চন্দ্রগ্রহণ। বাংলাদেশ সময় শুক্রবার রাত ১১টা ১৩ মিনিট ৬ সেকেন্ড থেকে শনিবার ভোর পাঁচটা ৩০ মিনিট ২৪ সেকেন্ড পর্যন্ত চন্দ্রগ্রহণ হবে।

পূর্ণগ্রহণ শুরু হবে রাত একটা ৩০ মিনিটে আর শেষ হবে রাত তিনটা ১৩ মিনিট ৩৬ সেকেন্ডে। আকাশ মেঘমুক্ত থাকলে দেশের সব বিভাগ থেকেই গ্রহণটি পুরোপুরি দেখা যাবে। এই চন্দ্রগ্রহণ নিয়ে মানুষের মধ্যে নানা কুসংস্কার প্রচলিত আছে। এসবের কোনও বৈজ্ঞানিক ভিত্তি আছে কী?

এই ধরনের কিছু প্রশ্ন এবং সেগুলোর উত্তর দেয়া হলো পাঠকের জন্য:

প্রশ্ন: অন্তঃসত্ত্বা মহিলারা চন্দ্রগ্রহণ দেখলে তাদের গর্ভের সন্তানের ক্ষতি হয় কি?

উত্তর: একেবারেই তা হয় না। জ্যোতিষ মতে, এমন ধারণা একেবারেই ভুল। চন্দ্রগ্রহণের সময়ে অন্তঃসত্ত্বা মহিলারা স্বাভাবিক জীবনযাপন করতে পারেন। এতে তার বা সন্তানের ক্ষতির কোনও সম্ভাবনাই নেই।

প্রশ্ন: চন্দ্রগ্রহণের সময়ে কিছু খাওয়া বা পান করা উচিত কী?

উত্তর: চন্দ্রগ্রহণের সময়ে খাওয়া পা পান করায় বৈজ্ঞানিকভাবে কোনও নিষেধাজ্ঞা নেই। এমন কিছু বলা হয়নি ধর্মেও। শুধু কুসংস্কারের বশে এখনও অনেকে গ্রহণের সময়ে খাওয়া-দাওয়া বা পানি পান করেন না।

প্রশ্ন: চন্দ্রগ্রহণের সময় সত্যিই কী পশুদের ব্যবহারে পরিবর্তন দেখা যায়?

উত্তর: চন্দ্রগ্রহণের সময় পশু-পাখিরা অযথা ডাকাডাকি করে, ডানা ঝাপটায়। এর কারণ, অসময়ে অন্ধকার হয়ে যায়। ২০১০ সালে এমন তথ্য প্রকাশ করে যুক্তরাষ্ট্রের পেনসিলভানিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের নৃতত্ত্ব বিভাগ।

প্রশ্ন: মানুষের মনে কি কোনও প্রভাব ফেলে চন্দ্রগ্রহণ?

উত্তর: নাসা এমন তথ্য মানতে একেবারেই রাজি নয়। সংস্থাটির মতে, চন্দ্রগ্রহণের সময় কোনও ব্যক্তির মানসিক সমস্যা হলে তা একেবারেই তার মনের ব্যাপার। ছোট থেকে শুনে আসা ভয়গুলিই কাজ করে। এর কোনও বৈজ্ঞানিক ভিত্তি নেই।

প্রশ্ন: চন্দ্রগ্রহণের সময় কী মানুষ অসুস্থ হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়?

উত্তর: যুক্তরাষ্ট্রের এক সমীক্ষায় এমন তথ্যই উঠে আসে। চন্দ্রগ্রহণের সময় কার্ডিওভাসকুলার সমস্যা, করোনারি, ইউরিনারি, হেমারেজের সমস্যা আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হন অনেক মানুষ। চন্দ্রগ্রহণের জন্যই যে তারা এসব সমস্যা আক্রান্ত হন, তা প্রমাণসাপেক্ষ।

আপনার মন্তব্য

আলোচিত