শুক্রবার, , ১৬ নভেম্বর ২০১৮ ইং

গালিবনামা

 প্রকাশিত: ২০১৮-০১-২১ ১৯:০৪:৫২

মাসুদ পারভেজ:

 

১.১
তুমি জানলেই না কি বিভ্রমের যাতনা
পউষের কুয়াশায় খেলে যায় মাদকতা
পেয়ালায় উপচে পড়ে উচ্ছ্বাস ;
গালিব এসে ধরা দেয় রহস্যনিঃস্বনে
এসো, আরও একটিবার এসো
ও পায়ে ওষ্ঠ ছোঁয়াবো

১.২
বিভঙ্গের বিভোর পেয়ালায় গালিব এসে আবক্ষ দাঁড়ায়
ভাবখানা এমন: আকণ্ঠ মদ করবে পান
উড়ে যাক মিইয়ে যাক যাবতীয় যাতনা
বিষাদে তরী বেয়ে যাবো দূরে
ঠিক বহুদূরে,
মনোমালিন্য এড়িয়ে সুরার পেয়ালা হাতে
গিট খুলে গ্যালে ঝরঝরে
বেরিয়ে আসে অনর্গল কথামালা
শব্দে শব্দের মাদকতায় ;
গালিব, অবারিত- অক্ষয় ও অমর

 

১.৩
হ্নদয়ের সাধাসাধিতে দ্যাখাও হে ঈশ্বর
গোপন বক্ষ
আমি যে বারবার হেরে যায় গালিবের কাছে

১.৪
মদের নেশায় চুর গালিব
অপলক চেয়ে আছে পেয়ালায়
হে ঈশ্বর, দোর বন্ধ করো না;
অনন্তদ্বারে প্রবেশ করাও
কোন বাগানের মালি হে তুমি,
ফোটাও কামিনীর শোভা
দ্রাক্ষালতা বেয়ে উঠে কোন সে রজনী ;
কোন সে উর্বশী রজনীতে
গালিব আর মাসুদ মিলেমিশে হয় গুঢ়
জীবনজটিলতা ফুঁৎকারে উড়িয়ে,
শরাবকে করছে দৃঢ়

১.৫
বেহুঁশ হওয়া মাতালের আঘাতে
খুলে গ্যাছে নিমীলিত চোখ।
পৃথিবীর সব রঙ বর্ণ হারালে
থাকে শুধু চোখের অসুখ।

১.৬
মলয় বাতাসে,
মাদিরার সুবাসে ভর করে উড়ে আসে মির্জা গালিব, পালকি থেকে নামলে খুলে যায় কথার গিট।
মনের অর্গল ভেঙে বেরিয়ে আসে আবক্ষ খৈয়াম।
হাফিজের রুবাইয়ে প্রাণ যায় দূরদেশের এক বুভুক্ষুর
অত:পর জীবন আবদ্ধ হয় মাক্সিমে।
ভাবার্থ খুবলে খুবলে শেষ করে দুরাশার অতীত
ভবিষ্যৎ আকাশের উজ্জ্বল পেয়ালায় ;
আকণ্ঠ পান করে যায় নিদ্রাতুর দুটি চোখ

১.৭
প্রেমের সাগর সিঞ্চনে ব্যতিব্যস্ত যুগল
ফুলের আগুনে ওম নাও।
কুয়াশার সতেজতা বিলীন হওয়ার আগে;
গালিব বলে, থেমো না এ পথে
যাও রোদ্দুরে, বিহানের সন্ধানে

১.৮
রোশনাইয়ের রওশন বাড়ায়
জীবনের ক্ষত,
সুঁই গ্যাছে বেঁকে, রীতিমতো অবাধ্য জীবনের মত।
বাগিচায় বুলবুলির ডাকে খুলে যায় বাতায়ন
প্রাচীর টপকে ঢুকে পড়ে আরেক জীবন।
গালিবের মাহফিলে এ কার পদচিহ্ন
হাল্লাজ বলে, খুঁজে দ্যাখো-
জীবনের পরম সত্য।
জুলুসে অবারিত এ দোর
আসা-যাওয়ার মাহফিলে
কেন, তব, নির্বিকার মাসুদ

১.৯
অনুগ্রহ নয়, ফাঁস লেগে আছে আলিঙ্গনের মত।
নেকড়ের হিংস্র থাবায় পত্রপাঠ গুটায়,
মধু আহরণের দল
পেয়ালায় থেকে যায় ওষ্ঠ ছোঁয়া
চুইয়ে চুইয়ে বুক ভেসে যায় অতল জলে
গালিব, জীবনের এ কোন পাঠ
ফাঁস লেগে যায় বুকের শালবনে
সবুজ পাতার মরণ নেশায়
প্রণয়ে চরণ ভাসায় মাসুদ
গালিব, বলে, এ পথে মিশেছে অনন্তের স্রোত
যাই তব, হে বন্ধু
দিলে পেয়েছি চোট,
ক্ষতস্থান মাথাচাড়া দিয়ে উঠে
দগদগে তার বুক

আপনার মন্তব্য