শুক্রবার, ১৩ ডিসেম্বর ২০১৯ ইং

একটা বন্দুক; গুটিকতক বুলেট

 প্রকাশিত: ২০১৯-১১-২৭ ১০:১৯:৫৯

মাসুদ পারভেজ:

একটা বন্দুক চাই
খুব দরকার একটা বন্দুকের
বন্দুকের আকাল না হলেও বন্দুক আমার নাগালে নেই। একটা বন্দুক লাগবেই;
একটা বন্দুক, হোক সেটা থ্রিনট থ্রি অথবা অত্যাধুনিক চাইনিজ রাইফেল;
একটা বন্দুক চাই।

বন্দুক হাতে পেলেই প্রথমত সজলকে খুন করবো। নিরপেক্ষ মানুষ রেখে কোন ফায়দা নেই। তার মাথার খুলি স্রেফ উড়িয়ে দিবো কারণ
কোন কিছু নিয়ে তার অনুযোগ নেই। সে সবসময় মচ্ছবে থাকে, তাই তাকে সরাতে হবে। একটা বন্দুক পেলে নন্দিতার বিয়ের খরচ যোগাড় করে দিবো । নন্দিতা তার নেশাখোর প্রেমিককে খুব ভালোবাসে। যে কোন মূল্যে তার চিকিৎসা করানো চাই। একমাত্র ভালোবাসাই পারে তাকে ফেরাতে। একটা বন্দুক চাই, বন্দুক পেলে, সোজা গিয়ে রাতের আন্ধারে গ্রামের ভূস্বামীটার মগজ বের করে ফেলবো। শালা একটা স্রেফ ভূমিখোর। এর জন্য সে সকল ভূমিদাসদের তাড়িয়ে দিচ্ছে প্রশাসনের সহযোগিতায়। তাকে আর বাড়তে দেওয়া যায় না, তাই একটা বন্দুক চাই।

একটা বন্দুক চাই নগরের যে ক'জন ধর্ম ব্যবসায়ীদের চিনি তাদের রক্তে নদী বয়ে দেওয়ার জন্য। ধর্ম পুঁজি করে তাদের সম্পদ যেমন বাড়তে দেওয়া যায় না তেমনি আর একজনকেও বিভ্রান্ত হতে দেওয়া যায় না।
একটা বন্দুক চাই কারণ অবণীকে ভয় দেখাতে হবে, বন্দুকের শেষ বুলেটে আমার মরণ হবে।
হয় অবণী ভালোবাসবে নাহয় নিজের খুলি উড়িয়ে দিবো।
যদি অবণীর সম্মতি মেলে তাহলে শেষ বুলেটখানা
একজন উচ্চমার্গীয় সুশীলের জন্য বরাদ্দ করবো।
আমার খুব শখ একজন সুশীল মারা;
মরার আগে তার মগজ পরীক্ষা করে দেখাটাও ইদানিং ভাবছি।

একটা বন্দুকের গুটিকয়েক বুলেটে কিছুই হবে না কিন্তু
একটা বন্দুক নিয়ে অনেক প্রশ্নের উত্তরণ ঘটবে
এবং একটা বন্দুক নিয়ে বিপ্লববাদ মনোভাব জন্ম নিবে কারণ অনেকের মাথায় এটা নিয়ে কিলবিল করে বেড়াচ্ছে।
অতএব, একটা বন্দুক চাই।

আপনার মন্তব্য