শুক্রবার, ১৫ নভেম্বর ২০১৯ ইং

অনলাইন প্রতিবেদক

০২ জুলাই, ২০১৬ ২৩:১৭

‘ঢাকা হামলা’ : পরিচয় মিললো নিহতদের

গুলশানে হলি আর্টিসান ক্যাফেতে সন্ত্রাসী হামলায় নিহত ২০ জনের জাতীয়তা প্রকাশ করা হয়েছে। নিহতদের মধ্যে ৯ জন ইতালিয়ান, ৭ জন জাপানি, ৩ জন বাংলাদেশি এবং ১ জন ভারতীয় নাগরিক। ঢাকায় কর্মরত একজন সিনিয়র কূটনীতিক গণমাধ্যমকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

নিহত বাংলাদেশিদের মধ্যে রয়েছে ট্রান্সকম গ্রুপের চেয়ারম্যান লতিফুর রহমানের নাতি ফারাজ হোসেন, ডেএক্সওয়াই ইন্টারন্যাশনালের মানব সম্পদ বিভাগের পরিচালক ইশরাত আখন্দ এবং ল্যাভেন্ডারের মালিকের নাতনী অবিন্তা কবীর। অবিন্তা কবীর মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের মায়ামির এমোরি ইউনিভার্সিটির জর্জিয়া ক্যাম্পাসের ছাত্রী। তিনি ঢাকায় তার পরিবারের সাথে দেখা করতে এসেছিলেন বলে বিশ্ববিদ্যালয় সূত্র নিশ্চিত করেছে।

এছাড়াও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের একটি সংবাদ মাধ্যম জানায়, ওই হামলায় দুইজন মার্কিন শিক্ষার্থী নিহত হয়েছেন। তাদের মধ্যে একজন ভারতীয় নাগরিক তারুশী জৈন। তিনি বারকেলি ইউনিভার্সিটি অব ক্যালিফোর্নিয়ার ছাত্রী।
 
ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী সুষমা স্বরাজও ঢাকার হামলায় ভারতীয় এই তরুণীর মৃত্যুর খবর জানিয়েছেন।

শনিবার এক টুইটার বার্তায় তিনি বলেন, “আমি অত্যন্ত বেদনার সঙ্গে জানাচ্ছি যে, ঢাকায় সন্ত্রাসীদের হাতে জিম্মি ভারতীয় তরুণী তারুশি অস্ত্রধারীদের হামলায় নিহত হয়েছে।”

নিহত নাগরিকদের পরিচয় প্রকাশ করেছে ইতালির পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়।
নিহত নয় ইতালীয়: ছবি লা রিপাবলিকা
এরা হলেন- বারিধারাভিত্তিক ইতালীয় বায়িং হাউজ স্টুডিও টেক্স লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) নাদিয়া বেনেদিত্তো, গুলশান ২ নম্বরের আরেক ইতালীয় বায়িং হাউজ ডেকাওয়ার্ল্ডের প্রাইভেট লিমিটেডের এমডি ভিনসেনজো দ আলেস্ত্রো, ক্লদিও মারিয়া দান্তোনা, সিমোনা মন্টি, মারিয়া রিবোলি, আডেলে পুগলিসি, ক্লদিও চাপেলি, ক্রিস্টিয়ান রোসিস ও মারকো তোনডাট।

শনিবার ইতালির পররাষ্ট্রমন্ত্রী পাওলো জেনতিলোনিও ঢাকায় হামলায় তাদের নয় নাগরিক নিহত এবং একজন নিখোঁজ থাকার খবর জানিয়েছেন।

তাকে উদ্ধৃত করে রয়টার্সের এক প্রতিবেদনে বলা হয়, “নিহত নয়জনকে (ইতালীয়) আমরা চিহ্নিত করেছি। আরও একজন নিখোঁজ রয়েছেন, তিনি লুকিয়ে থাকতে পারেন বা আহতদের মধ্যে থাকতে পারেন… আমরা তার খোঁজ করছি।”

নিহতদের মধ্যে জাপানের সাত নাগরিক রয়েছেন বলে দেশটির মুখ্য মন্ত্রিপরিষদ সচিব ইয়োশিহিদি সুগা শনিবার জানিয়েছেন।

এছাড়া সকালে ওই ক্যাফে থেকে আরেক জাপানিকে গুলিবিদ্ধ ও জখম অবস্থায় উদ্ধার করা হয় বলে দেশটির উপ-মুখ্য মন্ত্রিপরিষদ সচিব কোইচি হাগিউদা জানান।

নিহত ছয় জাপানি হলেন- তানাকা হিরোশি, ওগাসাওয়ারা, শাকাই ইউকু, কুরুসাকি নুবুহিরি, ওকামুরা মাকাতো, শিমুধুইরা রুই ও হাশিমাতো হিদেইকো।

শুক্রবার রাতে রাজধানীর গুলশানের হলি আর্টিসান ক্যাফেতে একদল সশস্ত্র সন্ত্রাসবাদীরা হামলা চালিয়ে জিম্মি করে প্রায় ৪০ জনকে। রাত থেকেই কয়েক দফা অভিযান চালায় পুলিশ, র‌্যাব ও সোয়াট। পুলিশের অভিযানে সন্ত্রাসীরা পাল্টা হামলা চালালে গ্রেনেডের আঘাতে মৃত্যু হয় পুলিশের সহকারী কমিশনার মো. রবিউল করিম ও বনানী থানার ওসি সালাউদ্দীন খান।

পরে শনিবার সকালে সেনাবাহিনীর প্যারা কমান্ডোর ‘অপারেশন থান্ডারবোল্ট’ নামের বিশেষ অভিযানে দখলমুক্ত হয় হলি আর্টিসান। এ সময় পালাতে গিয়ে গুলিতে নিহত হয় ৬ হামলাকারী। এ সময় এক জঙ্গিকে আটক করা হয়।

আপনার মন্তব্য

আলোচিত