আজ রবিবার, , ২০ মে ২০১৮ ইং

সিলেটটুডে ডেস্ক

২৩ এপ্রিল, ২০১৮ ২৩:০৬

বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রী হয়রানি: বাসচালকসহ গ্রেপ্তার ৩

রাজধানীর বাড্ডায় তুরাগ পরিবহনের একটি বাসে বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রীকে যৌন হয়রানির অভিযোগে গণপরিবহন তুরাগের চালকসহ তিনজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। সোমবার (২৩ এপ্রিল) সন্ধ্যায় রাজধানীর গুলশান থানা পুলিশের একটি দল সায়েদাবাদ থেকে বাসসহ তাদের গ্রেপ্তার করে।

গ্রেপ্তারকৃতরা হলেন- গ্রেট তুরাগ পরিবহনের চালক রুমান (২৭), সুপারভাইজার মনির (২৭) এবং হেলপার নয়ন (২৯)।

বিষয়টি নিশ্চিত করে ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) গুলশান থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবু বকর জানান, সায়েদাবাদ থেকে বাসসহ তিনজনকে গ্রেপ্তার করে থানায় আনা হয়। পরে মামলার বাদী তাদের শনাক্ত করেন।

প্রসঙ্গত, শনিবার (২১ এপ্রিল) বেলা পৌনে ১টার দিকে বাড্ডা লিংক রোড থেকে তুরাগ বাসে ওঠেন উত্তরা যাওয়ার জন্য। তিনি মেয়েদের জন্য সংরক্ষিত আসনেই বসেছিলেন। তখন বাসে যাত্রী সংখ্যা ছিল কম। তাদের মধ্যে যারা নেমে যান, তাদের বদলে কাউকে বাসে নতুন করে না তোলায় সন্দেহ হয় ওই তরুণীর। আর বাসটি যখন প্রায় খালি হয়ে যায় তখন চালকের সহকারী ওই তরুণীতে বাসের পেছনের আসনে গিয়ে বসতে বলেন।

এ সময় বাসের আরেকজন সহকারী দরজার সামনে দাঁড়িয়ে কোনো যাত্রী যেন না উঠে সেটা নিশ্চিত করছিলেন। এটা দেখে ওই তরুণীর সন্দেহ আরও বেড়ে যায়। তখন তিনি দরজার কাছে গিয়ে নামার চেষ্টা করেন। কিন্তু চালকের সহকারী তার হাত চেপে ধরেন। আর আরেকজন গেট লাগাতে শুরু করেন।

এ সময় সজোরে দুই সহকারীকে ধাক্কা দিয়ে মেয়েটি চলন্ত বাস থেকে নেমে পড়েন। তারপর অন্য বাসে করে বিশ্ববিদ্যালয়ে ফিরে ঘটনা খুলে বলেন সহপাঠীদের।

এই ঘটনার পর সোমবার (২৩ এপ্রিল) সকালে তুরাগ পরিবহনের ৪০টি বাস আটকে রেখে বিক্ষোভ করেন বিশ্ববিদ্যালয়টির শিক্ষার্থীরা।

শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের মুখপাত্র পারভেজ হোসেন বলেন, বাসের চালক, সুপারভাইজার ও হেলপারকে গ্রেপ্তার করলেও আটকে রাখা বাসা ছাড়া হবে না। আসামিদের আদালতে নেওয়ার পর কারাগারে না নেওয়া পর্যন্ত বাস ছাড়বো না। কারণ বাস মালিকরা লিয়াজোঁ করে আসামিদের ছাড়িয়ে নিতে পারে। জড়িতদের শাস্তি না হওয়া পর্যন্ত আন্দোলন চলবে বলেও জানান তিনি।

আপনার মন্তব্য

আলোচিত