মঙ্গলবার, ১৭ সেপ্টেম্বর ২০১৯ ইং

সিলেটটুডে ডেস্ক

০৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ১২:৫৯

এরশাদের আসনে মনোনয়ন চান ছেলে সাদ

বাবার সঙ্গে ছেলে সাদ এরশাদ

সাবেক রাষ্ট্রপতি ও জাতীয় পার্টির সাবেক চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের মৃত্যুতে শূন্য হওয়া রংপুর-৩ আসনের উপনির্বাচনে দলীয় মনোনয়ন ফরম তুলেছেন তার বড় ছেলে রাহগীর আল মাহি সাদ এরশাদ।

মঙ্গলবার দুপুরে বনানীতে পার্টির চেয়ারম্যানের রাজনৈতিক কার্যালয় থেকে তিনি মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করেন।

এরশাদের জীবদ্দশায় সাদ এরশাদ রাজনীতির মাঠে না থাকলেও বাবার মৃত্যুর পর মা রওশন এরশাদের সঙ্গে সঙ্গেই থাকছেন। তার মা দলের সিনিয়র কো চেয়ারম্যান রওশন এরশাদ চাইছেন, নিজের ছেলেকে রাজনীতির ময়দানে নিয়ে আসতে।

এদিকে মনোনয়ন ফরম তুলে চমক দেখিয়েছেন এরশাদের ভাগ্নি মেহে জেবুন্নেছা রহমান টুম্পা। নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের বিবিএ ফ্যাকাল্টির পরিচালক টুম্পা কিছু দিন আগেই রাজনীতিতে যোগ দিয়েছেন। দলের চেয়ারম্যান পদ পাওয়ার পর জি এম কাদের তাকে নীলফামারী জেলা জাতীয় পার্টির আহ্বায়ক কমিটির কার্যকরী সদস্য পদ দিয়েছেন। এরশাদের বোন মেরিনা রহমানের মেয়ে টুম্পা। মেরিনা দশম জাতীয় সংসদে সংসদ সদস্যও হয়েছিলেন। টুম্পা স্বামী জিয়াউদ্দিন বাবলু জাপার সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য, যিনি এরশাদের মন্ত্রিসভায় শিক্ষা উপমন্ত্রীও হয়েছিলেন। টুম্পার ভাইও জাপার প্রেসিডিয়াম সদস্য আদেলুর রহমান আদেল এখন নীলফামারী-৪ আসনের সংসদ সদস্য।

১৯৭৩ সালে প্রথম সংসদ নির্বাচনে রংপুর সদর আসনে নির্বাচিত হয়েছিলেন আওয়ামী লীগের সিদ্দিক হোসেন। ১৯৭৯ সালের নির্বাচনে জয় পান বিএনপির রেজাউল হক সরকার রানা। ১৯৮৬ সালে জাতীয় পার্টির প্রার্থী শফিকুল গণি স্বপন জেতার পর থেকে এই আসনটি আর কখনো হাতছাড়া হয়নি তাদের।

১৯৮৮ সালে মোফাজ্জল হোসেন মাস্টার, ১৯৯১ ও ১৯৯৬ সালে হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ, ২০০১ সালে জি এম কাদের, ২০০৮ সালে হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ, ২০০৯-এ (উপনির্বাচন) রওশন এরশাদ, ২০১৪ ও ২০১৮ সালে হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ এই আসনে নির্বাচিত হন।

রংপুর-৩ আসনে আগামী ৫ অক্টোবর ভোটগ্রহণের দিন ঠিক করেছে নির্বাচন কমিশন। ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী, রিটার্নিং কর্মকর্তার কাছে মনোনয়নপত্র জমা দেওয়া যাবে ৯ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত, তা বাছাই হবে ১১ সেপ্টেম্বর, মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের শেষ সময় ১৬ সেপ্টেম্বর।

একাদশ সংসদে বিরোধীদলীয় নেতা এরশাদ ৯০ বছর বয়সে গত ১৪ জুলাই মারা যান। তার মৃত্যুতে রংপুর-৩ আসন শূন্য ঘোষণা করে সংসদ সচিবালয়। আসন শূন্য হওয়ার পরবর্তী ৯০ দিনের মধ্যে করার সাংবিধানিক বাধ্যবাধকতা রয়েছে।

রংপুর সদর উপজেলা এবং রংপুর সিটি করপোরেশনের ১-৮ নম্বর ওয়ার্ড ছাড়া বাকি এলাকা নিয়ে গঠিত রংপুর-৩ আসনে ভোটার সংখ্যা ৪ লাখ ৪১ হাজার ৬৭৩ জন। এই আসনে সম্ভাব্য ভোটকেন্দ্র ১৩০টি, ভোটকক্ষ ৯১০টি। রংপুর-৩ আসনে ইভিএমে ভোটগ্রহণ হবে বলে ইতোমধ্যে ইসি জানিয়েছে।

আপনার মন্তব্য

আলোচিত