মঙ্গলবার, ১৫ অক্টোবর ২০১৯ ইং

নিজস্ব প্রতিবেদক

২৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ০১:৫৯

বিএনপির সমাবেশকে ঘিরে সিলেটের রাজনীতিতে হঠাৎ উত্তাপ

গত ডিসেম্বরে অনুষ্ঠিত একাদশ জাতীয় সাংসদ নির্বাচনের পর থেকেই স্থবিরতা দেখা দিয়েছিলো সিলেটের রাজনীতিতে। দিবসভিত্তিক বিভিন্ন আয়োজন আর ঘরোয়া কর্মসূচীতেই সীমাবদ্ধ ছিলো রাজনৈতিক কর্মকান্ড। পুলিশের গ্রেপ্তারি অভিযানও অনেকটা কমে এসেছিলো নির্বাচনের পর থেকে।

তবে সিলেটে বিএনপির মহাসমাবেশকে ঘিরে সিলেটে ফের উত্তপ্ত হয়ে ওঠেছে রাজনৈতিক মাঠ। দুর্নীতির মামলায় কারান্তরীন দলীয় চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে আজ (মঙ্গলবার) সিলেট নগরীর রেজিস্ট্রারি মাঠে বিভাগীয় মহাসমাবেশের আয়োজন করেছে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদি দল-বিএনপি।

এই মহাসমাবেশের ঠিক পূর্ব মূর্হর্তে গত রোববার রাতে সিলেট জেলার কয়েকটি উপজেলায় অভিযান চালিয়ে বিএনপির অন্তত ২০ নেতাকর্মীকে আটক করে পুলিশ। পুলিশের হঠাৎ এই তৎপরতায় বিএনপি নেতাকর্মীদের মধ্যে দেখা দেয় গ্রেপ্তার আতঙ্ক। এতে রাজনীতিতে ফিরে আসে উত্তাপও।

এই উত্তাপ আরও বাড়িয়ে তোলো সোমবারের পুলিশের ভূমিকা। অনুমতি না থাকার কারণ দেখিয়ে সোমবার রেজিস্টারি মাঠে বিএনপির মঞ্চ তৈরিতে বাধা দেয় কতোয়ালি থানা পুলিশ। একপর্যায়ে পুলিশ মঞ্চ ও ব্যানার খুলে নেয় বলেও অভিযোগ করেন বিএনপি নেতারা।

তবে পুলিশের এই আপত্তি সত্ত্বেও রেজিস্ট্রারি মাঠে যথাসময়েই সমাবেশ করার ঘোষণা দিয়েছেন বিএনপি নেতারা। পুলিশ আর বিএনপির মুখোমুখি অবস্থানের কারণে এই সমাবেশকে ঘিরে দেখা দিয়েছে উত্তেজনা।

আজকের সমাবেশে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন। এছাড়া বিএনপির স্থায়ী কমিটির আরও কয়েকজন সদস্য উপস্থিত থাকবেন বলে জানা গেছে। এই সমাবেশকে সফল করতে গত কয়েদিন ধরে ব্যাপক প্রচারণা চালাচ্ছেন দলটির সিলেটের নেতারা। স্থিমিত হয়ে পড়া দলকে চাঙ্গা করা ও শো-ডাউন দেওয়ার উপলক্ষ্য হিসেবে এই মহাসমাবেশকে বেছে নেন সিলেট বিএনপির নেতারা।

তবে স্থানীয় বিএনপি নেতাদের অভিযোগ, সমাবেশ আয়োজনের সহযোগিতা চেয়ে মহানগর পুলিশের কাছে আবেদন করলেও পুলিশ কোনো সাড়া দেয়নি। বরং সোমবার সমাবেশের মঞ্চ তৈরিতে বাধা দেয় এবং একপর্যায়ে মঞ্চের সরঞ্জাম ও ব্যানার খুলে নেয় পুলিশ। বাধা সত্ত্বেও যথাসময়ে নির্ধারিত স্থানে সমাবেশ আয়োজনের কথা জানান তারা।

বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান এ জেড এম জাহিদ হোসেন বলেন, কেন্দ্রীয় সিদ্ধান্ত অনুযায়ী বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার মুক্তি দাবিতে সিলেটে বিএনপির বিভাগীয় সমাবেশ যথাসময়ে যথাস্থানে হবে।

এ ব্যাপারে কতোয়ালি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সেলিম মিঞা বলেন, বিএনপি রেজিস্ট্রারি মাঠে সমাবেশ করার জন্য অনুমতি নেয়নি। তাই রেজিস্টারি মাঠ থেকে তাদের মঞ্চসহ সব সরঞ্জাম সরিয়ে নিতে বলেছি।

আপনার মন্তব্য

আলোচিত