মঙ্গলবার, ১৯ নভেম্বর ২০১৯ ইং

সিলেটটুডে ডেস্ক

২৬ অক্টোবর, ২০১৯ ২১:৫৭

সদস্যপদ প্রত্যাহারের চিঠির পর বিমল বিশ্বাসকে বহিস্কার

বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টির প্রাথমিক সদস্যপদ থেকে নিজেকে প্রত্যাহারের পর দল থেকে বহিস্কৃত হয়েছেন দলটির সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও পলিটব্যুরোর সদস্য বিমল বিশ্বাস।

শনিবার (২৬ অক্টোবর) রাজধানীর তোপখানা রোডের ফেনী সমিতি মিলনায়তনে ওয়ার্কার্স পার্টির দু'দিনব্যাপী কেন্দ্রীয় কমিটির বৈঠকের প্রথম দিনে বিমল বিশ্বাসকে দল থেকে বহিস্কার করা হয় হয়। আগামী ২ থেকে ৫ নভেম্বর অনুষ্ঠেয় দলের দশম কংগ্রেসকে সামনে রেখে কেন্দ্রীয় কমিটির এই বৈঠক হয়েছে। এর আগে একই স্থানে দলের পলিটব্যুরোর সভাও অনুষ্ঠিত হয়।

এরআগে গত ২৩ অক্টোবর বিমল বিশ্বাসের প্রাথমিক সদস্যপদ থেকে নিজেকে প্রত্যাহার করে নেন। ওইদিন পাঠানো এক চিঠিতে বিমল বিশ্বাস বলেন, একটি মার্কসবাদ, লেনিনবাদভিত্তিক কমিউনিস্ট আদর্শ থেকে অধঃপতিত নেতৃত্বের অধীনে কেউ পার্টি করতে পারে বলে আমি মনে করি না। ওয়ার্কার্স পার্টি এই আদর্শের অধিকার হারিয়েছে। এ কারণে পার্টি ছেড়েছি। গঠনতান্ত্রিকভাবে দলের মেম্বারশিপ প্রত্যাহার আমার ডেমোক্রেটিক রাইট।

তবে শনিবার ওয়ার্কার্স পার্টির এই সভায় বিমল বিশ্বাসের সদস্যপদ প্রত্যাহারের আবেদন গ্রহণ না করে দল থেকে বহিস্কারের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয় তাকে।

সভায় বলা হয়, বিমল বিশ্বাস দলের কাছে তার চিঠি পৌঁছানোর আগেই কংগ্রেস থেকে যারা বেরিয়ে আসবে তাদের নিয়ে দল করবেন বলেছেন। দলের অভ্যন্তরে বিতর্কের জন্য প্রকাশিত 'ফোরাম' এর লেখা ফেসবুকে দিয়েছেন। এসব স্পষ্টভাবে প্রমাণ করে তিনি দল ভাঙার জন্য উপদলীয় চক্রান্তে ছিলেন এবং এখনও আছেন। এসব কর্মকাণ্ডের মাধ্যমে দলীয় শৃঙ্খলা চরমভাবে লঙ্ঘন করেছেন তিনি। এছাড়া তার প্রত্যাহারপত্রে যেসব আদর্শিক ও রাজনৈতিক বিষয় উল্লেখ করেছেন, সেটাও দল প্রত্যাখ্যান করছে। প্রতিটি বিষয়ে সিদ্ধান্ত গ্রহণ ও বাস্তবায়নে দু'দফার সাধারণ সম্পাদক হিসাবে মুখ্য ভূমিকা পালন করেছেন তিনি। সুতরাং তার এসব অভিযোগ অবাস্তব। আদর্শগত বিচ্যুতির জন্য তিনিই মূলত দায়ী। দল আজ ঐক্যবদ্ধ। এই ঐক্য আরও সংহত করেই দলের কংগ্রেস সফল করার প্রত্যয় ঘোষণা করা হয়।

দলের সভাপতি রাশেদ খান মেনন এমপির সভাপতিত্বে পলিটব্যুরো ও কেন্দ্রীয় কমিটির বৈঠকে কংগ্রেস সংক্রান্ত বিষয়াবলী উত্থাপন করেন সাধারণ সম্পাদক ফজলে হোসেন বাদশা এমপি। এ সময় কেন্দ্রীয় নেতা আনিসুর রহমান মল্লিক, নুরুল হাসান, ড. সুশান্ত দাস, মোস্তফা লুৎফুল্লাহ এমপি, মাহমুদুল হাসান মানিক, ইকবাল কবির জাহিদ, হাজেরা সুলতানা, নুর আহমদ বকুল, কামরুল আহসান, অনিল বিশ্বাস, অ্যাডভোকেট নজরুল ইসলাম, মোসাদ্দেক লাবু, আমিরুল ইসলাম আমিন, জ্যোতি শংকর ঝন্টু প্রমুখ বক্তব্য দেন।

১৯৪৬ সালের ১২ জুলাই জন্ম নেওয়া বিমল বিশ্বাস ১৯৬২ সালে শিক্ষা আন্দোলনের সময় বাম রাজনীতিতে যুক্ত হন। রুশ-চীন দ্বন্দ্বে সারাবিশ্বে কমিউনিস্ট পার্টির বিভাজনের পর তিনি ছিলেন চীনপন্থি শিবিরে। নানা দল হয়ে ১৯৯২ সালে ওয়ার্কার্স পার্টি গঠিত হলে সেই অমল সেন ও রাশেদ খান মেননের নেতৃত্বে গঠিত ওয়ার্কার্স পার্টিতে যুক্ত হন বিমল বিশ্বাস।

আপনার মন্তব্য

আলোচিত