শনিবার, ২৫ জানুয়ারি ২০২০ ইং

নিজস্ব প্রতিবেদক

০৭ ডিসেম্বর, ২০১৯ ০১:২৮

যেভাবে জেলার প্রার্থী থেকে মহানগর আ. লীগের সভাপতি মাসুক উদ্দিন

সিলেট জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি প্রার্থী ছিলেন মুক্তিযোদ্ধা মাসুক উদ্দিন আহমদ। সম্মেলনের আগের দিন পর্যন্ত এই পদে প্রচারণা চালিয়েছেন তিনি। জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতির দায়িত্বেও ছিলেন। আর মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি প্রার্থী ছিলেন মাসুক উদ্দিনেরই ছোট ভাই আসাদ উদ্দিন। তবে সবাইকে অবাক করে দিয়ে বৃহস্পতিবার সম্মেলনে সিলেট মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি করা হয় মাসুক উদ্দিনকে।

কীভাবে জেলার প্রার্থী থেকে মহানগরের সভাপতি হয়ে গেলেন মাসুক উদ্দিন- এনিয়ে নেতাকর্মীদের মধ্যে চলছে নানা জল্পনা কল্পনা। মহানগরের সভাপতির পদ পেয়ে মাসুক উদ্দিনও কিছুটা বিস্মিত।

শুক্রবার সিলেটটুডে টোয়েন্টিফোরের সাথে আলাপকালে মাসুক উদ্দিন আহমদ বলেন, আমি জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি প্রার্থী ছিলাম। সারাজীবনই জেলার রাজনীতি করেছি। জকিগঞ্জ-কানাইঘাট এলাকায় রাজনীতি করেছি। তাই এবার জেলার সভাপতি হতে চেয়েছিলাম। কিন্তু সম্মেলন উপলক্ষে বৃহস্পতিবার কেন্দ্রীয় নেতারা সিলেটে এসে হঠাৎ করেই আমাকে মহানগরের সভাপতি পদে মনোনয়ন দাখিল করতে বলেন। দলীয় সভানেত্রীই এমন নির্দেশ দিয়েছেন বলে তারা জানান।

মাসুক উদ্দিন বলেন, এমন প্রস্তাব পেয়ে আমি প্রথমে বিস্মিত হয়ে যাই। আরও কয়েকজন কেন্দ্রীয় নেতার সাথে এ ব্যাপারে কথা বলি। তারা সকলেই জানান- নেত্রী এমন নির্দেশ দিয়েছেন। এরপর আমার ছোট ভাই মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আসাদ উদ্দিন আহমদের সাথে পরামর্শ করি। সেও নেত্রীর নির্দেশ মেনে মহানগরের সভাপতি পদে মনোনয়ন জমা দেওয়ার পরামর্শ দেয়। সকলের সঙ্গে পরামর্শ করে, একেবারে শেষ মুহূর্তে, সবাই মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ার প্রায় আধঘণ্টা পর আমি আমি মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি পদে মনোনয়নপত্র জমা দেই। এরপর তো সভাপতি পদে আমার নাম ঘোষণা করা হয়।

নতুন দায়িত্ব প্রসঙ্গে মাসুক উদ্দিন বলেন, মহানগরের রাজনীতিতে নতুন হলেও এখানকার সকল নেতাকর্মীরাই আমাকে আন্তরিকভাবে গ্রহণ করে নিয়েছেন। আজ (শুক্রবার) সারাদিন প্রায় হাজার তিনেক নেতাকর্মী বাসায় এসে আমাকে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন। যারা আসছেন তাদের অনেককেই আমি চিনি না। ফলে সবাইকেই প্রথমে জিজ্ঞেস করে নিচ্ছি- 'আপনারা কেউ মামলার আসামি-টাসামি নেই তো?' সবাইকে বলেছি- 'আমার সাথে সেলফি তুলবেন না। তাতে আমাকে আরও বিপদে ফেলবেন। সেলফিবাজির রাজনীতি আমি পছন্দ করি না।'

মহানগর আওয়ামী লীগকে আরও সুশৃঙ্খল এবং সংগঠনকে আরও শক্তিশালী করার লক্ষ্য নতুন এই সভাপতির। এছাড়া রাজনীতি থেকে দুর্বৃত্তায়ন দূর করারও লক্ষ্যের কথা জানান তিনি।

মাসুক উদ্দিন বলেন, আমাদের নেত্রী চাচ্ছেন স্বচ্ছ ভাবমূর্তির মানুষের হাতে নেতৃত্ব তুলে দিতে। দল থেকে অপরাধীদের ছাটাই করতে। আমিও সে লক্ষ্যে কাজ করবো। আওয়ামী লীগ ছাড়াও অঙ্গ সহযোগী সংগঠনেরও ভাবমূর্তি ফেরাতে আমি কাজ করবো।

প্রসঙ্গত, বৃহস্পতিবার অনুষ্ঠিত সিলেট জেলা ও মহানগর আওয়ামী লীগের সম্মেলনে নতুন সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক হন যথাক্রমে মাসুক উদ্দিন আহমদ ও অধ্যাপক জাকির হোসেন। এরআগে টানা প্রায় আড়াই দশক মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি ছিলেন সিলেট সিটি করপোরেশনের সাবেক মেয়র বদরউদ্দিন আহমদ কামরান, আর সাধারণ সম্পাদক ছিলেন আসাদ উদ্দিন আহমদ।

আপনার মন্তব্য

আলোচিত