বৃহস্পতিবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯ ইং

স্পোর্টস ডেস্ক

১২ জুন, ২০১৯ ০১:২৪

হতাশ মাশরাফি, খুশি লঙ্কান দলপতি

বিশ্বকাপে বাংলাদেশ-শ্রীলঙ্কার ম্যাচ বৃষ্টিতে ভেসে যাওয়ায় হতাশা ঝরেছে অধিনায়ক মাশরাফির কণ্ঠে, অন্যদিকে এই ম্যাচ থেকে এক পয়েন্ট পেয়ে যাওয়ায় নিজের খুশির কথা প্রকাশ করেছেন লঙ্কান দলপতি দিমুত করুণারত্নে।

এই মাঠে ঠিক আগের ম্যাচেও পাকিস্তানের বিপক্ষে বৃষ্টিতে এক পয়েন্ট পেয়েছিল শ্রীলঙ্কা। নিজেদের প্রথম খেলায় নিউ জিল্যান্ডের বিপক্ষে হেরেছিলেন শ্রীলঙ্কা। এনিয়ে চার খেলায় চার পয়েন্ট পেল লঙ্কানরা। অন্যদিকে, প্রথম খেলায় দক্ষিণ আফ্রিকাকে হারিয়ে দেওয়ার পর পরের দুই ম্যাচে নিউ জিল্যান্ড ও ইংল্যান্ডের কাছে হেরে যায় বাংলাদেশ। বাংলাদেশের পয়েন্ট চার খেলায় তিন।

মঙ্গলবার ব্রিস্টলের কাউন্ট গ্রাউন্ডে দুই দলের হাবভাবেও ছিল যেন বিপরীত অবস্থা। লঙ্কানদের বিপক্ষে প্রায় ধরে রাখা এক পয়েন্ট খোয়ানের চিন্তায় বিষণ্ণ দেখা গেছে বাংলাদেশ দলকে। লঙ্কানদের প্রকাশ্যে খেলা চাইতে দেখা গেলেও শরীরী ভাষায় তাদের ঠিক মুষড়ে পড়তে দেখা যায়নি।

ম্যাচ শেষে অধিনায়ক দিমুত করুণারত্নে এনিয়ে প্রশ্নের মুখে পড়লেন। দুই পয়েন্ট পেয়ে তারা খুশি কিনা। কিছুটা কূটনৈতিক জবাব দিলেও নিজেদের স্বস্তি ঠিকই জানিয়ে দিয়েছেন তিনি, ‘আমার মনে হয় দল হিসেবে আমরা খেলতেই এসেছি। মাঝেমাঝে পয়েন্ট পেলে মনে হয় ঠিকই আছে। কিন্তু না খেলেও আমরা শুধু শুধু পয়েন্ট পেতে চাই না। আমরা খেলতে চাই, জিততে চাই এবং পয়েন্ট পেতে চাই। দুর্ভাগ্যজনকভাবে এখানে বৃষ্টি ছিল। হ্যাঁ পয়েন্ট পেয়ে আমরা খুশি।’

এদিকে, ঠিক বিপরীত অবস্থা বাংলাদেশের। মাশরাফির কণ্ঠে এনিয়ে ঝরল হতাশা। 'সব দলের জন্য মাঠে এসে খেলতে না পারা হতাশাজনক। টুর্নামেন্ট এভাবেই এগিয়ে যাচ্ছে। আমরা নিউ জিল্যান্ডের বিপক্ষে সুযোগ পেয়েছিলাম। ইংল্যান্ডের বিপক্ষে তেমনটা পারিনি। কিন্তু আজকের দিনটা খুবই হতাশার', বললেন অধিনায়ক।

বাংলাদেশ প্রধান কোচ স্টিভ রোডসও হতাশা লুকালেন না। এ থেকে উত্তরণের পথ আগেভাগেই দেখা উচিত বলে মনে করছেন তিনি। বললেন, 'আমার মনে হয় রিজার্ভ ডে থাকতে পারত। আপনি যদি ইংলিশ আবহাওয়া জেনে থাকেন তাহলে দুঃখজনকভাবে এই সময়ে অনেক বৃষ্টি সহ্য করতে হবে। আমরা বলতে পারব না কখন বৃষ্টি নামবে। কিন্তু এই মুহূর্তে এটা করাতে (রিজার্ভ রাখা কিছু সমস্যাও আছে। টুর্নামেন্টের আয়োজকদের জন্য এটা বড় মাথা ব্যথা হত। আমি জানি, এটা (রিজার্ভ ডে) করা কঠিন হতো। কিন্তু আমরা খেলার মাঝে বেশ কিছু সময় পাই। এক ভেন্যু থেকে আরেক ভেন্যু যাওয়া একদিন পিছিয়ে দলেই এটা সম্ভব হতো। আমরা চাঁদে মানুষ পাঠাতে পারি তাহলে রিজার্ভ ডে রাখতে পারব না কেন (হাসি)। সমর্থকদের জন্যও এটা হতাশার।’

আপনার মন্তব্য

আলোচিত