রবিবার, ২৫ আগস্ট ২০১৯ ইং

স্পোর্টস ডেস্ক

০৬ আগস্ট, ২০১৯ ১৫:০১

হাথুরুসিংহের বিদায়ে শ্রীলঙ্কার নতুন কোচ জয়ারত্নে

জাতীয় দলের কোচ চণ্ডিকা হাথুরুসিংহের সঙ্গে চুক্তি বাতিলের সিদ্ধান্ত নিয়েছে শ্রীলঙ্কা ক্রিকেট বোর্ড (এসএলসি), জানিয়েছে দেশটির সংবাদমাধ্যম। নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ঘরের মাঠে সিরিজে শ্রীলঙ্কা দলের অন্তবর্তীকালীন কোচের দায়িত্ব পালন করবেন জেরোমে জয়ারত্নে।

শ্রীলঙ্কার সংবাদমাধ্যম জানিয়েছে, চণ্ডিকা হাথুরুসিংহের সঙ্গে পথচলার ইতি টানার সিদ্ধান্ত নিয়েছে দেশটির ক্রিকেট বোর্ড (এসএলসি)। ২০২০ সালের ডিসেম্বর পর্যন্ত হাথুরুসিংহের চুক্তির মেয়াদ থাকলেও তা আগেই বাতিল করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে এসএলসি।

দুই পক্ষ নানা ব্যাপারে একমত হতে না পারায় হাথুরুসিংহেকে আর শ্রীলঙ্কা দলের কোচ পদে রাখা হবে না। ঘরের মাঠে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে সিরিজে শ্রীলঙ্কা দলের অন্তর্বর্তীকালীন কোচের দায়িত্ব পালন করবেন বোর্ডের প্রধান পরিচালন কর্মকর্তা জেরোমে জয়ারত্নে।

১৪ আগস্ট গলে সিরিজের প্রথম টেস্ট দিয়ে শ্রীলঙ্কা সফর শুরু করবে নিউজিল্যান্ড।

দেশটির সংবাদমাধ্যম ‘ডেইলি নিউজ’ এ নিয়ে শ্রীলঙ্কা ক্রিকেট বোর্ডের সেক্রেটারি মোহন ডি সিলভার উদ্ধৃতি প্রকাশ করেছে, ‘এসএলসি কর্মকর্তাদের নিয়ে আজ (কাল) আমাদের একটি বৈঠক আছে। চণ্ডিকা হাথুরুসিংহের সঙ্গে আমরা নিজেদের চুক্তি বাতিল করব এবং নিউজিল্যান্ড সিরিজে জেরোমে জয়ারত্নেকে অন্তর্বর্তীকালীন কোচের দায়িত্ব দেওয়া হবে।’

হাথুরুসিংহের সঙ্গে শ্রীলঙ্কান ক্রিকেট বোর্ডের সবশেষ পরিস্থিতি ছিল এমন— শ্রীলঙ্কার ক্রীড়া মন্ত্রী হারিন ফার্নান্দো এক শর্তে তাঁকে কোচের পদে রাখতে রাজি। আগের তুলনায় এ কোচকে নিতে হবে অর্ধেক বেতন। শ্রীলঙ্কা দলের কোচ হিসেবে হাথুরুসিংহের মাসিক বেতন ৪০ হাজার ডলার (প্রায় ৩৩ লাখ ৭৮ হাজার টাকা)। এর চেয়ে কম টাকায় অনেক আন্তর্জাতিক মানের কোচ নাকি তাদের সঙ্গে যোগযোগ করছেন। এ বিষয়ে শ্রীলঙ্কা ক্রিকেট (এসএলসি) প্রধানকে যথাযথ পদক্ষেপ নেওয়ার নির্দেশও দিয়েছিলেন।

এসএলসি এ নিয়ে ধীরে চলো নীতিতে এগোচ্ছে দেখে ক্রীড়া মন্ত্রী চিঠি পাঠিয়ে জানতে চেয়েছিলেন, হাথুরুসিংহের ব্যাপারে কী করা হলো। সেই চিঠিতে দেশটির আইন বলে প্রাপ্ত ক্ষমতা ব্যবহারের প্রচ্ছন্ন হুমকিও দিয়েছেন মন্ত্রী। ২৪ ঘণ্টার মধ্যে তিনি একটা ফলাফল চেয়েছিলেন তিনি। মানেটা পরিষ্কার, পরের সিরিজের আগেই হাথুরুসিংহের ব্যাপারে ফয়সালা করতে হবে।

বোর্ডকে পাঠানো এক চিঠিতে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে সিরিজে হাথুরুসিংহেকে কোচ পদে না রাখার নির্দেশও দিয়েছিলেন দেশটির ক্রীড়া মন্ত্রী।

শ্রীলঙ্কান সংবাদমাধ্যম জানিয়েছে, হাথুরুসিংহের সঙ্গে এ নিয়ে বোর্ডের আলোচনা শেষ পর্যন্ত আলোর মুখ দেখেনি। বোর্ড চেয়েছিল কোচকে সম্মানের সঙ্গে বিদায় দিতে। কিন্তু হাথুরুসিংহের অনমনীয় মনোভাবের কারণে তা হয়নি বলেই মনে করা হচ্ছে। ‘এমনকি আলোচনার জন্যও সে নমনীয় না হওয়ায় আমরা তাঁর চুক্তি বাতিলের সিদ্ধান্ত নেই’—বলেন এসএলসি সেক্রেটারি ডি সিলভা। বাংলাদেশের কোচ পদ ছেড়ে ২০১৭ সালের ডিসেম্বরে নিজ দেশ শ্রীলঙ্কার দায়িত্ব নেন হাথুরুসিংহে। তাঁকে দেশের ক্রিকেট ইতিহাসে সর্বোচ্চ বেতনভুক্ত কোচের মর্যাদা দেওয়ার পাশাপাশি জাতীয় নির্বাচক কমিটিতেও রেখেছিল বোর্ড। এ নিয়ে অবশ্য বিতর্কও হয়েছে হাথুরুসিংহেকে ঘিরে।

কিছু নির্দিষ্ট খেলোয়াড় নিয়ে পক্ষপাতিত্বের অভিযোগ আছে তাঁর বিপক্ষে। আর বিশ্বকাপেও শ্রীলঙ্কা দল বাজে পারফর্ম করায় আর চুপ করে থাকতে পারেননি দেশটির ক্রীড়া মন্ত্রী।

কিছুদিন আগে বাংলাদেশকে ওয়ানডে সিরিজে হোয়াইটওয়াশ করেও তাই শেষ রক্ষা হলো না হাথুরুসিংহের। এর আগেও অন্তবর্তীকালীন কোচের দায়িত্ব পালন করেছেন জয়ারত্নে। ২০১৫ সালে ঘরের মাঠে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে এ দায়িত্ব সফলতার সঙ্গে পালন করেছিলেন জয়ারত্নে।

সাবেক অধিনায়ক অ্যাঞ্জেলো ম্যাথুস এরই মধ্যে তাঁর প্রশংসা করেছেন, ‘সে (জয়ারত্নে) খোলামনের মানুষ কিন্তু খেলোয়াড়দের ব্যাপারে খুব মনোযোগী। দলের ব্যাটিং নিয়ে কাজ করাটা তার বিশেষত্বের জায়গা। সব মিলিয়ে সে খুব ভালো কোচ এবং মানুষ, আমরা তাকে পেয়ে খুশি।’

মেয়াদপূর্তির আগেই চুক্তি বাতিল করায় হাথুরুসিংহে আদালত পর্যন্ত যেতে পারেন, এমনটাই জানিয়েছে দেশটির সংবাদমাধ্যম ‘দ্য আইল্যান্ড’। আট বছর আগে জিওফ মার্শও দায়িত্ব পাওয়ার চার মাস পরই ছাঁটাই হওয়ায় আদালতে মামলা করে সফল হয়েছিলেন। জাতীয় দলের বাজে পারফরম্যান্সকেই হাথুরুসিংহের চুক্তি বাতিলের যুক্তি হিসেবে দাঁড় করাবে বোর্ড।

এ ছাড়া গত বছর ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরে বল টেম্পারিং বিতর্কে হাথুরুসিংহের আচরণ ভালোভাবে নেয়নি বোর্ড, এমন কথাও জানিয়েছে সংবাদমাধ্যমটি।

আপনার মন্তব্য

আলোচিত