আজ সোমবার, , ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮ ইং

কমলগঞ্জ প্রতিনিধি

১৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ২৩:০৯

কমলগঞ্জে অনগ্রসর শব্দকরদের জীবনমান উন্নয়নের দাবি

মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জে অনগ্রসর শব্দকর সম্প্রদায়ের জীবনমান উন্নয়নের জন্য অগ্রাধিকার ভিত্তিতে সরকারি বরাদ্ধ প্রদান, অপরাপর ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর মতো শব্দকর জনগোষ্ঠীকে আলাদাভাবে চিহ্নিত করে শুমারিতে অন্তর্ভুক্ত করাসহ পাঁচ দফা দাবি সম্বলিত স্মারকলিপি প্রদান করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার ( ১৩ সেপ্টেম্বর) কমলগঞ্জ উপজেলার শব্দকর সমাজ উন্নয়ন পরিষদের উদ্যোগে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে স্মারকলিপি প্রদান করা হয়।

শতাধিক লোকের উপস্থিতিতে স্মারকলিপি প্রদানকালে শব্দকর সম্প্রদায়ের নেতৃবৃন্দরা বলেন, মৌলভীবাজার জেলায় ২৫ হাজারেরও বেশি শব্দকর সম্প্রদায়ের বসবাস। তারমধ্যে কমলগঞ্জ উপজেলার ৩৭টি গ্রামে শব্দকর সম্প্রদায়ের লোকজনের বসবাস রয়েছে। তাদের বেশিরভাগই হতদরিদ্র, হাজার খানেক লোকের ভিটা আছে জমি নেই। ভিটামাটি বিহীন দেড়শ’ জনেরও বেশী। এসব গ্রাম সমূহে বিশুদ্ধ পানীয় জলের সুব্যবস্থা, স্বাস্থ্য সম্মত ল্যাট্রিন, বিধবা ভাতা, বয়স্ক ভাতা, স্বামী পরিত্যক্তা ভাতা, প্রতিবন্ধী ভাতা, শব্দকর সম্প্রদায়ের ছাত্রছাত্রীদের লেখাপড়ার সহায়তায় ছাত্রবৃত্তি প্রদানসহ পাঁচ দফা দাবী সম্বলিত এই স্মারকলিপি প্রদান করছি।

শব্দকর সমাজ উন্নয়ন পরিষদের সভাপতি প্রতাপ শব্দকর বলেন, আমরা সমাজের পিছিয়ে পড়া অনগ্রসর জনগোষ্ঠীর জীবন মান উন্নয়নের জন্য অগ্রাধিকারের ভিত্তিতে বরাদ্ধ প্রদানের জন্য সরকারের নিকট দাবি জানিয়েছি। দীর্ঘদিন ধরে আমরা দরিদ্র জনগোষ্ঠী হিসাবে বিবেচিত। শব্দকর জনগোষ্ঠীরা সনাতন হিন্দু ধর্মের অনুসারী হলেও সংস্কৃতি ও জীবনাচরণের ক্ষেত্রে বিশেষ বৈশিষ্ট্যের অধিকারী। এই জনগোষ্ঠীর জীবনমান পরিবর্তনে সরকার বিশেষ কর্মসূচীর আওতায় আমাদেরকে নিয়ে আসলে আমরা ঠিকে থাকতে পারবো।
 
স্মারকলিপি প্রদানকালে শব্দকর সমাজ উন্নয়ন পরিষদের সাধারণ সম্পাদক উপেন্দ্র শব্দকর, উপদেষ্টা লেখক-গবেষক আহমদ সিরাজ, সাইফুর রহমানসহ অন্যান্য নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

কমলগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ মাহমুদুল হক বলেন, পিছিয়ে পড়া এই জনগোষ্ঠীর উন্নয়নে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে বার্তা প্রদান করা হবে। উপজেলা প্রশাসন ও সংশ্লিষ্ট ইউনিয়ন পরিষদ থেকে সার্বিকভাবে সম্ভাব্য সবধরনের সহযোগিতা প্রদানের উদ্যোগ নেওয়া হবে বলে তিনি জানান।  

আপনার মন্তব্য

আলোচিত