বুধবার, , ১৭ অক্টোবর ২০১৮ ইং

গোলাপগঞ্জ প্রতিনিধি

২৫ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ২২:৩৯

গোলাপগঞ্জে চার লাখ টাকা নিয়ে জনতা ব্যাংকের গ্রাহক লাপাত্তা

গোলাপগঞ্জে জনতা ব্যাংকে চেক জালিয়াতির মাধ্যমে চার লাখ টাকা নিয়ে মোহাম্মদ সালাম নামে এক গ্রাহক লাপাত্তা রয়েছে। মঙ্গলবার (২৫ সেপ্টেম্বর) সকাল ১১টার দিকে গোলাপগঞ্জ বাজারের ওয়াহাব প্লাজা নামক মার্কেটের ২য় তলায় ব্যাংকের শাখা অফিসে এ ঘটনা ঘটে।

জানা গেছে, ব্যাংক কর্মকর্তাদের বোকা বানিয়ে ২টি চেক জালিয়াতি করে ক্যাশ কাউন্টারে জমা দিয়ে ৪লাখ টাকা হাতিয়ে নেয় সালাম নামের ঐ গ্রাহক। প্রতারণার বিষয়টি নজরে আসার পর কিছু সময় ব্যাংকটির লেনদেন বন্ধ রাখা হয়।

শাখা ব্যবস্থাপক আব্দুর রহমান ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, প্রতারণার বিষয়টি নজরে আসার সাথে সাথে প্রতারককে শনাক্ত করতে আমি বর্তমানে গ্রাহকের একাউন্টে দেওয়া ঠিকানায় যাওয়ার উদ্দেশ্যে রওয়ানা হয়েছি।

ব্যাংকের ক্যাশিয়ার বিশ্বজিৎ কুমার জানান, প্রতারক সালাম ব্যবস্থাপকের স্বাক্ষর জাল করে এবং চেক পাল্টে ক্যাশে আসে। চেক পাল্টানোর বিষয়টি ধরতেই পারেনি। শেষ চেকে আমার সন্দেহ হওয়ায় জালিয়াতির বিষয়টি ধরা পড়ে।

তিনি আরো জানান একাউন্টে দেওয়া তথ্য ফরমে নমিনি কথিত আব্দুস সালামই ক্যাশ কাউন্টারে আসে বলে ছবি দেখে চিনতে পারেন।

অনুসন্ধানে দেখা গেছে, গ্রাহকের তথ্য ফরমে গ্রাহক আব্দুল করিম ও নমিনি মোহাম্মদ সালাম দুই ভাই তাদের বাবার নাম আনোয়ার মিয়া মায়ের নাম জমিলা খাতুন এবং ঠিকানা সদর ইউনিয়নের রাণাপিং ফাজিলপুর গ্রাম উল্লেখ রয়েছে। শনাক্তকারী হিসেবে ব্যাক কর্মচারী বাবুল আহমদ তাদের শনাক্ত করেন।

এদিকে সকালের দিকে এ ঘটনা ঘটলেও রাতে এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত গোলাপগঞ্জ মডেল থানাকে প্রতারণার বিষয়টি ব্যাংক কর্তৃপক্ষ অবহিত করেননি।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে গোলাপগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ (অপারেশন) দেলোয়ার হোসেন জানান, এ বিষয়ে ব্যাংক কর্তৃপক্ষ আমাদের কিছুই জানাননি। তিনি আরো জানান ব্যাংক কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করা হবে। তারা অভিযোগ জানালে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

আপনার মন্তব্য

আলোচিত