শুক্রবার, , ১৬ নভেম্বর ২০১৮ ইং

সিলেটটুডে ডেস্ক

২০ অক্টোবর, ২০১৮ ২০:৪৩

সিলেট-৩ আসনের উন্নয়ন যারা অস্বীকার করে তারা দলের শত্রু

দক্ষিণ সুরমায় মতবিনিময় সভায় মাহমুদ উস সামাদ চৌধুরী

সিলেট-৩ আসনের সংসদ সদস্য মাহমুদ উস সামাদ চৌধুরী বলেছেন, বর্তমান সরকারের প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার আমলে সিলেট-৩ নির্বাচনী এলাকায় ৭ হাজার কোটি টাকার উন্নয়ন হয়েছে। যারা উন্নয়ন দেখেও না দেখার ভান করেন তারা আওয়ামী লীগের শত্রু।

শনিবার (২০ অক্টোবর) সিলেটের দক্ষিণ সুরমার বাইপাস রোডস্থ একটি কমিউনিটি সেন্টারে উপজেলা আওয়ামী লীগ তৃণমূল নেতৃবৃন্দের উদ্যোগে মাহমুদ উস সামাদ চৌধুরী এমপির সমর্থনে আয়োজিত মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে উপরোক্ত কথাগুলো বলেন তিনি।

এসময় তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ভিশন ২০২১ বাস্তবায়নের লক্ষে দেশের মানুষের কল্যাণে ১৮ ঘণ্টা কাজ করেন। প্রধানমন্ত্রীর প্রচেষ্টায় দেশের যে উন্নয়ন হয়েছে তা আজ বহির্বিশ্বে প্রশংসিত হয়েছে। বিশে^র অন্যান্য রাষ্ট্র প্রধানের মত সৌদি সরকার প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনাকে আবারো ক্ষমতায় দেখতে চেয়েছে। বঙ্গবন্ধু কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনা মহাকাশে বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট স্থাপন ও দেশের জন্য সাবমেরিন ক্রয় করে দেশের ভাবমূর্তি বহির্বিশ্বে উজ্জ্বল করেছেন।

মাহমুদ উস সামাদ চৌধুরী আরো বলেন, আমি এই এলাকার জনপ্রতিনিধি হিসেবে জনগণের জন্য কাজ করে যেতে চাই। আগামী সংসদ নির্বাচন একটি গুরুত্বপূর্ণ প্রতিযোগিতামূলক নির্বাচন। এ নির্বাচনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নৌকার বিজয় নিশ্চিত করে তাঁকে আবারো ক্ষমতায় পাঠাতে হবে। যারা প্রধানমন্ত্রীর উন্নয়ন অস্বীকার করছেন তারা বিএনপির এজেন্ডা বাস্তবায়নে মাঠে নেমেছেন। তাদের বিষয়ে দলীয় নেতাকর্মীদের সজাগ থাকার আহবান জানান তিনি।

উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা সাইফুল আলমের সভাপতিত্বে উপজেলা আওয়ামী লীগ নেতা ফজলুল করিম হেলাল ও শাহ ছমির উদ্দিনের যৌথ পরিচালনায় মতবিনিময় সভায় বক্তব্য রাখেন- জেলা আওয়ামী লীগ নেতা শহিদুর রহমান শাহীন, উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি চুনু মিয়া, উপজেলা আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা মণ্ডলীর সদস্য ইঞ্জিনিয়ার জামাল উদ্দিন, উপজেলা আওয়ামী লীগের বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক কামাল উদ্দিন রাসেল, আব্দুস সালাম মর্তু, খিজির খান, পংকী মিয়া, আমির আলী, জেলা কৃষক লীগের সহ সভাপতি খলকু মিয়া, দুদু মিয়া, দাউদপুর ইউপির সাবেক চেয়ারম্যান নুরুল ইসলাম আলম, সিরাজুল ইসলাম, মুজিবুর রহমান, সিদ্দিকুর রহমান, জয়নাল মিয়া, আওয়ামী লীগ নেতা আতিকুর রহমান, উপজেলা শ্রমিক লীগের সভাপতি আনোয়ার হোসেন মাষ্টার, সাধারণ সম্পাদক আব্বাস আলী, উপজেলা কৃষক লীগের সাধারণ সম্পাদক মুক্তিযোদ্ধা আবু সাঈদ, জেলা শ্রমিক লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক রফিক মিয়া, ইঞ্জিনিয়ার আব্দুল মালিক, মহানগর ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক এমরুল হাসান, কৃষকলীগ নেতা শামীম কবির, বরইকান্দি ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি গৌছ মিয়া, সাধারণ সম্পাদক তাহসিন আহমদ দীপু, মোল্লারগাঁও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি ইসমাইল হোসেন বাচ্চু, সাধারণ সম্পাদক জবরুল ইসলাম জগলু।

বক্তব্য রাখেন- কুচাই ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি আব্দুর রহমান আনা, সাধারণ সম্পাদক আখতার হোসেন, কামালবাজার ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি আনোয়ার আলী, সাধারণ সম্পাদক আবুল হোসেন, লালাবাজার ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি সাধারণ সম্পাদক মুহিত হোসেন, জালালপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওয়েছ আহমদ, সিলাম ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক নেছার আলী, তেতলী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল বাছিত রানা, দাউদপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি আহমদ হোসেন খোকন, মোগলাবাজার ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক সেলিম আহমদ মেম্বার, মুক্তিযোদ্ধা মকবুল হোসেন, উপজেলা যুবলীগের আহবায়ক নূরুল ইসলাম, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আশিক আলী, যুবলীগ নেতা সুহেল আহমদ কর্নেল, নন্দন পাল, মনছুর আহমদ, উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক সারওয়ার আলম মিথুন, ছাত্রলীগ নেতা শামীম আহমদ, মহিলা নেত্রী রহিমা বেগম, উপজেলা শেখ রাসেল শিশু কিশোর পরিষদের সাধারণ সম্পাদক জয়ন্ত গোস্বামী ছাড়াও উপজেলার ১০টি ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের ওয়ার্ড কমিটির সভাপতি, সাধারণ সম্পাদক ও সহযোগী সংগঠনের নেতৃবৃন্দ বক্তব্য রাখেন।

আপনার মন্তব্য

আলোচিত