শুক্রবার, , ১৬ নভেম্বর ২০১৮ ইং

সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি

০৮ নভেম্বর, ২০১৮ ১৮:০২

মেডিকেল কলেজ অনুমোদন হওয়ায় সুনামগঞ্জে আনন্দ শোভাযাত্রা

সুনামগঞ্জ জেলায় ‘বঙ্গবন্ধু সুনামগঞ্জ মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতাল’ প্রতিষ্ঠার উদ্যোগ নেওয়ায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এম এ মান্নানকে অভিনন্দন জানিয়ে বৃহস্পতিবার সুনামগঞ্জ পৌর শহরে আনন্দ শোভাযাত্রা হয়েছে।

সুনামগঞ্জবাসীর ব্যানারে এই শোভাযাত্রার আয়োজন করা হয়। দুপুর ১২টায় জেলা প্রশাসকের কার্যালয় প্রাঙ্গণ থেকে বর্ণাঢ্য আনন্দ শোভাযাত্রা বের হয়।

শোভাযাত্রার সুনামগঞ্জের রাজনৈতিক, সামাজিক, সাংস্কৃতি ও পেশাজীবী সংগঠন, মুক্তিযোদ্ধাসহ বিভিন্ন শ্রেণি ও পেশার লোকজন অংশ নেন। শোভাযাত্রাটি শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার প্রাঙ্গণে গিয়ে সমাবেশে মিলিত হয়।

সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্য দেন অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এম এ মান্নান। জেলা উদীচী শিল্পী গোষ্ঠীর সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলমের সঞ্চালনায় সমাবেশে আরও বক্তব্য দেন জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ আবদুল আহামদ, পুলিশ সুপার মো. বরকতুল্লাহ খান, পৌর মেয়র নাদের বখত, সুনামগঞ্জ সরকারি কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ পরিমল কান্তি দে, জেলা আওয়াম লীগের সহ সভাপতি পিপি ড. খায়রুল কবির রুমেন, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক হায়দার চৌধুরী, সাংগঠনিক সম্পাদক সিরাজুর রহমান, জেলা শিল্পকলা একাডেমির সাধারণ সম্পাদক অ্যাড. শামছুল আবেদীন, জেলা আইনজীবী সমিতির সাবেক সাধারণ সম্পাদক অ্যাড. নজরুল ইসলাম, সুনামগঞ্জ সরকারি কলেজের সাবেক ভিডি অ্যাড. বোরহান উদ্দিন ও মনীষ কান্দি দে, জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক আশিকুর রহমান, জেলা জাতীয় পার্টির যুগ্ম আহবায়ক রশিদ আহমদ, ছাত্রলীগ নেতা আব্দুল আজিজ পাঠান প্রমুখ।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এম এ মান্নান বলেন, ‘সুনামগঞ্জের ইতিহাসে এর আগে এত বড় প্রকল্প কখনো হয়নি। এই প্রকল্পটি অনুমোদন হওয়ায় আমরা সুনামগঞ্জবাসী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে কৃতজ্ঞ। এতে হাওরবাসীর স্বপ্ন পূরণ হলো। প্রধানমন্ত্রী হাওরবাসীর প্রতি সবসময়ই আন্তরিক। আগামী সরকার গঠনের পর সুনামগঞ্জে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, কৃষি ইনষ্টিটিউট ও ভেটেনারি ইনস্টিটিউট স্থাপনের উদ্যোগ নেয়া হবে।’   
 
তিনি আরও বলেন,‘বাংলাদেশের এখন শ্রেষ্ঠ সময় যাচ্ছে। শেখ হাসিনা গত ১০বছরে দেশকে বদলে দিয়েছেন। ঘরে ঘরে বিদ্যুৎ, গ্রামের স্কুল, রাস্তাঘাট এটা শেখ হাসিনার কারণেই সম্ভব হয়ছে। তাই শেখ হাসিনার কোনো বিকল্প নেই। উন্নয়নের ধারাবাহিকতা রক্ষায় আগামি নির্বাচনেও নৌকায় ভোট দিয়ে আওয়ামী লীগকে আবার ক্ষমতায় আনতে হবে। না হলে এসব উন্নয়ন বাধাগ্রস্ত হবে।’

প্রকল্প সূত্রে জানা গেছে, গত ৪ নভেম্বর অর্থনৈতিক পরিষদের জাতীয় নির্বাহী কমিটির (একনেক) সভায় এই প্রকল্প অনুমোদন হয়েছে। এতে ব্যয় হবে এক হাজার ১০৭ কোটি ৮৮ লাখ ৯৮ হাজার টাকা। অবকাঠামো নির্মাণের পর ২০১৯-২০২০ শিক্ষাবর্ষে এই প্রতিষ্ঠানে শিক্ষার্থী ভর্তির কার্যক্রম শুরু হবে। সুনামগঞ্জ সদর উপজেলার সুনামগঞ্জ-সিলেট সড়কের মদনপুর এলাকায় ৩৫ একর জমির ওপর এই প্রতিষ্ঠান হবে। ইতিমধ্যে জমি অধিগ্রহণ প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে।

আপনার মন্তব্য

আলোচিত