শুক্রবার, ২৪ মে ২০১৯ ইং

সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি

১৪ মার্চ, ২০১৯ ১৮:১৫

শাল্লা উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তার বিরুদ্ধে বদলী বাণিজ্যের অভিযোগ

সুনামগঞ্জের শাল্লা উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা মোহাম্মদ ফেরদৌসের বিরুদ্ধে সহকারী শিক্ষকদের বদলী বাণিজ্যের অভিযোগ উঠেছে। প্রাথমিক শিক্ষার নীতিমালা উপেক্ষা করে জৈষ্ঠ্য শিক্ষকদের বদলী প্রস্তাব না করে জুনিয়র শিক্ষককে বদলী প্রস্তাব করেছেন বলে অভিযোগ উঠেছে তার উপর।

এ ঘটনায় বৃহস্পতিবার (১৪মার্চ) জেলা প্রশাসক ও জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসারের কাছে লিখিত অভিযোগ করেন শাল্লা উপজেলার রুপসা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক পিলু চৌধুরী।

অভিযোগে তিনি উল্লেখ করেন, গত ৫ জানুয়ারি রুপসা সহকারি শিক্ষক পিলু চৌধুরী নিজ বিদ্যালয় থেকে একই উপজেলার মেঘনাপাড়া বিদ্যালয়ে বদলীর জন্য উপজেলা শিক্ষা অফিসারের কাছে আবেদন করেন। কিন্তু পিলু চৌধুরীর বদলী প্রস্তাব না পাঠিয়ে একই বিদ্যালয়ের সহকারি শিক্ষক বাবুল চন্দ্র চৌধুরীর বদলী প্রস্তাব জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসে প্রেরণ করা হয়েছে। বাবুল চন্দ্র চৌধুরীর শিক্ষক জেষ্ঠ্যতার ক্রমিক নং-১৪২, অথচ পিলু চৌধুরীর জেষ্ঠ্যতার ক্রমিক নং-৫২।

অভিযোগ পত্রে তিনি উল্লেখ করেন, উপজেলা শিক্ষা অফিসার নীতিমালা লঙ্ঘন করে ৯০ নং পেছনের জুনিয়র শিক্ষকের বদলীর জন্য প্রস্তাব করেন। জেষ্ঠ্য শিক্ষকদের বদলী প্রস্তাব না করে অপেক্ষাকৃত অনেক জুনিয়র শিক্ষকদের বদলীর প্রস্তাব করছেন উপজেলা শিক্ষা অফিসার। রুপসা সহকারী শিক্ষক পিলু চৌধুরী জুনিয়র শিক্ষক বাবুল চন্দ্র চৌধুরীর পরিবর্তে তার বদলীর জন্য দাবি জানিয়েছেন।

এ ব্যাপারে শাল্লা উপজেলা উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা মোহাম্মদ ফেরদৌসের ব্যক্তিগত মোবাইল ফোন বেশ কয়েকবার কল করলেও তিনি কল রিসিভ করেননি ।

জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার মো. জিল্লুর রহমান বলেন,‘ শাল্লার একজন সহকারি শিক্ষকের লিখিত আবেদন পেয়েছি। তবে জেষ্ঠ্যতা লঙ্ঘন করে কোন জুনিয়র শিক্ষককে বদলী প্রস্তাব করলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

আপনার মন্তব্য

আলোচিত