শনিবার, ২৫ মে ২০১৯ ইং

সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি

২৮ এপ্রিল, ২০১৯ ১৬:১২

সুনামগঞ্জে আইনগত সহায়তা দিবস পালন

সুনামগঞ্জে নানা আয়োজনের মধ্য দিয়ে পালন করা হয়েছে আইনগত সহায়তা দিবস।

রোববার (২৮ এপ্রিল) সকালে জাতীয় আইন সহায়তা সংস্থার সুনামগঞ্জ জেলা শাখার উদ্যোগে দিবসটি উপলক্ষে এক বর্ণাঢ্য র‌্যালি বের করা হয়।

জেলা দায়রা জজ আদালত প্রাঙ্গণ থেকে বের হয়ে র‌্যালিটি শহরের বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে। র‌্যালিতে জেলা জজশিপ, চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেসি, জেলা প্রশাসন, পুলিশ বিভাগ, সিভিল সার্জন অফিস, জেলা লিগ্যাল এইড অফিস, জেলা আইনজীবী সমিতি, জেলা কারাগার, প্রাইমারি টিচার্স ট্রেনিং ইন্সটিটিউট, জেলা স্কাউট, রোভার স্কাউট, রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটিসহ সরকারি বেসরকারি প্রতিষ্ঠান ও বিভিন্ন সংস্থার প্রতিনিধি ও কর্মকর্তা-কর্মচারীরা উপস্থিত ছিলেন।

আলোচনা সভায় জেলা দায়রা জজ আদালত প্রাঙ্গণে অনুষ্ঠিত হয়।

জেলা লিগ্যাল এইড অফিসার হাবিবুল্লাহ মাহমুদের সঞ্চালনায় আলোচনা সভায় সভাপতির বক্তব্যে জেলা ও দায়রা জজ ওয়াহিদুজ্জামান শিকদার বলেন, মহান মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম লক্ষ্য ছিল শোষণ-বঞ্চনামুক্ত ন্যায়ভিত্তিক সমাজ প্রতিষ্ঠা করা। যেখানে রাষ্ট্রের সকল নাগরিক ন্যায় বিচার পাবেন। রাষ্ট্রের মৌলিক দায়িত্ব হল মানুষের জন্য ন্যায় বিচার নিশ্চিত করা। সামাজিক সুবিচার প্রতিষ্ঠায় আইনগত সহায়তা ব্যবস্থার কোন বিকল্প নাই। একটি রাষ্ট্রের বৈশিষ্ট্য হল সমাজের দরিদ্র নিপীড়িত ও সুবিধাবঞ্চিত জনগোষ্ঠীর সামাজিক ও অর্থনৈতিক অধিকারসমূহের নিশ্চয়তা বিধান করা। এ কারণে আইনগত সহায়তা ও মৌলিক অধিকার একটি অপরটির সাথে সুনিবিড়ভাবে সম্পর্কযুক্ত।
 
তিনি আরও বলেন, গরীব ও নিঃস্ব মানুষ যাতে আর্থিক দৈন্যতার কারণে আইনের আশ্রয় লাভ থেকে কোনভাবেই বঞ্চিত না হয় তার জন্যে সরকারি আইনগত সহায়তা কর্মসূচি পরিচালিত করে সরকার। আইনগত সহায়তা প্রদান আইন-২০০০ এর আওতায় আইনগত সহায়তা প্রদান সংস্থা দেশব্যাপী কাজ করে যাচ্ছে। এই সংস্থা সুনামগঞ্জ অঞ্চলের গরিব, অসহায়, দুঃস্থ ও আইনের আশ্রয় লাভের সুযোগহীন মানুষের আইনি সেবা নিশ্চিত করতে নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে। জেলাসহ উপজেলা ও ইউনিয়ন পর্যায়ে লিগ্যাল এইড কমিটি গঠন করে এই আইন সহায়তা কার্যক্রম বাস্তবায়িত হচ্ছে। তাই সবল ও দুর্বলের আইনি লড়াইয়ে ক্ষেত্রে দুর্বলের পিছু হটার কোনো কারণ নেই বলে জানান তিনি।
 
আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন, জেলা জজ (নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল) মো. জাকির হোসেন, চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রট এজিএম আল মাসুদ, পুলিশ সুপার বরকতুল্লাহ খান, স্থানীয় সরকার বিভাগের উপ-পরিচালক এমরান হোসেন, ডেপুটি সিভিল সার্জন ডা. মোহাম্মদ আশরাফ হক, বিজিবির ক্যাপ্টেন ডা. মোহাম্মদ মোস্তাহিদ, পাবলিক প্রসিকিউটর মো. খায়রুল কবির, জিপি মো. মর্তুজ আলী, জেলা আইনজীবী সমিতির সভাপতি অ্যাডভোকেট চান মিয়া, সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট সাহারুল ইসলাম, অ্যাড. স্বপন কুমার রায় প্রমুখ।

প্যানেল আইনজীবীগনের মধ্যে বছরের সেরা আইনজীবী মোছা. নাজনীন বেগম ও জালাল উদ্দিনকে সম্মাননা প্রধান করেন অতিথিবৃন্দ। এছাড়াও দিবসটি উপলক্ষে আদালত প্রাঙ্গণে লিগ্যাল এইড মেলা অনুষ্ঠিত হয়। মেলায় গ্রাহকদের বিভিন্ন আইনি সহায়তা প্রদান করা হয়।

উল্লেখ্য, জেলা লিগ্যাল এইড কমিটির দেয়া তথ্য অনুযায়ী ২০১৫ সালে থেকে ২০১৮ সাল পর্যন্ত সুনামগঞ্জের ১১৪৩ জন অসহায় মানুষকে আইনি সহায়তা প্রদান করা হয়েছে। গত ৪ বছরে লিগ্যাল এইড প্রার্থীদের পক্ষে ১১৪১টি মামলায় প্যানেল আইনজীবী নিযুক্ত করা হয়েছে। এর মধ্যে ৭৯৩ টি মামলা নিষ্পত্তি করা হয়েছে।

আপনার মন্তব্য

আলোচিত