শুক্রবার, ১৯ জুলাই ২০১৯ ইং

হৃদয় দাশ শুভ, শ্রীমঙ্গল

০৮ জুলাই, ২০১৯ ০০:১২

বন্যপ্রাণী বাঁচাতে লাউয়াছড়া থেকে সরছে সড়ক

অবশেষে লাউড়ায়ছড়া জাতীয় উদ্যানের ভেতর থেকে সড়ক সরানোর উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জের এই উদ্যানের বন্যপ্রাণীদের রক্ষায় সরানো হচ্ছে সড়ক। বিকল্প সড়ক নির্মাণের লক্ষ্যে সম্প্রতি যৌথ জরিপ সম্পন্ন করেছে বন বিভাগ এবং সড়ক ও জনপথ বিভাগ।

প্রাণীবৈচিত্রের আঁধার লাউয়াছড়ার বণ্যপ্রাণীদের রক্ষায় বনের ভেতর থেকে সড়ক ও রেলপথ সরানোর দাবি দীর্ঘদিন থেকেই জানিয়ে আসছিলেন পরিবেশবাদীরা। তবে নানা কারণেই উপেক্ষিত থাকছিলো সে দাবি। কুলাউড়ায় ট্রেন দুর্ঘটনায় আহতদের দেখতে এসে গত ২৪ জুন বন ও পরিবেশ মন্ত্রী শাহাব উদ্দিন আশ্বাস দিয়েছিলেন, বন্যপ্রাণীদের রক্ষায় বনের ভেতর থেকে সড়ক সরিয়ে নেওয়া হবে।

মন্ত্রীর এই ঘোষণার পরই শুরু হয় জরিপ কাজ। জরিপে বিকল্প সড়ক নির্মানে ঐক্যমতে পৌচেছে বন বিভাগ এবং সড়ক ও জনপথ বিভাগ।

১২৫০ হেক্টর বনভূমি নিয়ে কমলগঞ্জের লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যান৷ ১৯৯৬ সালে ১ হাজার ২৫০ হেক্টরের চিরহরিৎ ও মিশ্র চিরহরিৎ লাউয়াছড়া বনটিকে জাতীয় উদ্যান হিসেবে ঘোষণা করে সরকার। এই বনে উল্লুক, বানর, বিভিন্ন প্রজাতির সাপ, বনমোরগ, বনরুই, মায়া হরিণ, মেছো বাঘ, বন্য শূকর, অজগরসহ অনেক প্রজাতির বিরল, বিপন্ন ও বিপন্নপ্রায় প্রাণী আছে। এখানে ১৬৭ প্রজাতির উদ্ভিদ, ৪ প্রকারের উভচর প্রাণী, ৬ প্রজাতির সরীসৃপ, ২৪৬ প্রজাতির পাখি এবং ২০ প্রজাতির স্তন্যপায়ী প্রাণী রয়েছে৷ লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যানের ভেতর দিয়ে একটি রেললাইন ও একটি সড়ক চলে গেছে। ফলে প্রায়ই সড়ক ও রেললাইনে  গাড়ির নিচে পড়ে বিরল ও বিপন্ন প্রজাতির বিভিন্ন প্রাণী মারা পড়ছে।

লাউয়াছড়ায় সাপ নিয়ে গবেষণা করতে আসা সরীসৃপ গবেষক শাহরিয়ার সিজার জানান, তিনি লাউয়াছড়ায় ১৪ প্রজাতির সাপ গাড়ি চাপায় মৃতাবস্থায় শনাক্ত করতে সক্ষম হয়েছেন। তাঁর শনাক্তকৃত বাংলাদেশে প্রথম পাওয়া বেন্ডেড টিংকেট ও ইরিডিসেন্ট সাপ দু’টিও মৃতাবস্থায় পাওয়া যায়।

শাহরিয়ার সিজারের তথ্যমতে, ২০১৩ সালে এক বছরে লাউয়াছড়ায় গাড়িচাপায় ৭শ সাপ মারা গেছে। এর অধিকাংশই বনের জানকিছড়া এলাকায়। ২০১৬ সালের সেপ্টেম্বর মাসে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র আরাফাত লাউয়াছড়ায় সার্ভে করে এক মাসের মধ্যে ব্যাঙ ও সাপের ৫৬টি মৃতদেহ পান।

উদ্ভিদ ও প্রাণীবৈচিত্র্যে ভরপুর এ রকম একটি বনের ভেতর দিয়ে চলে গেছে গুরুত্বপূর্ণ ঢাকা-সিলেট রেলপথ এবং শ্রীমঙ্গল-ভানুগাছ সড়ক। রেল ও সড়কপথের দুপাশেই উদ্যান। বন্য প্রাণীরা সড়কের এ-পাশ থেকে ও-পাশে নিয়মিত আসা-যাওয়া করে। রাতের বেলাতেই বন্য প্রাণীর বিচরণ বেশি। রাস্তা পারাপারের সময় হঠাৎ করে সামনে চলে আসা দ্রুতগামী যানবাহনের আলোতে প্রাণীরা হতভম্ব হয়ে দাঁড়িয়ে পড়ে। তখন দ্রুতগামী গাড়ির আঘাতে অনেক বন্য প্রাণী মারা পড়ছে। প্রায়ই পথচারীরা সড়কের ওপর, সড়কের পাশে বন্য প্রাণীর মৃতদেহ পড়ে থাকতে দেখছেন।

সংশ্লিষ্টরা জানান, এই রাস্তা যখন তৈরি হয়, সে সময় যানবাহন কম ছিল। এখন প্রতিদিন এই সড়কে ২০০ থেকে ৩০০ যানবাহন চলাচল করে। প্রতি মাসেই কোনো না কোনো বিরল প্রাণীর মৃত্যু হচ্ছে সড়কে।

স্থানীয় লোকজন জানান, ঢাকা-সিলেট রেললাইন এবং শ্রীমঙ্গল-ভানুগাছ সড়কে প্রতিবছর অন্তত ৪০ থেকে ৫০টি বিভিন্ন বিরল প্রজাতির বন্য প্রাণী মারা পড়ছে।

এ অবস্থায় বন্য প্রাণী বাঁচাতে উদ্যানের ভেতরের শ্রীমঙ্গল-ভানুগাছ সড়ক বন্ধ করে বিকল্প সড়ক চালুর চিন্তাভাবনা চলছে অনেক দিন ধরে। কিন্তু নানা কারণে বিলম্বিত হচ্ছিলো এর বাস্তবায়ন।

সম্প্রতি বন্য প্রাণী ব্যবস্থাপনা ও প্রকৃতি সংরক্ষণ বিভাগ এবং সড়ক ও জনপথ (সওজ) বিভাগ বিকল্প সড়ক চালুর বিষয়ে একটি যৌথ জরিপ পরিচালনা করেছে। এতে শ্রীমঙ্গল-ভানুগাছ সড়কের শ্রীমঙ্গলের রাধানগর এলাকা থেকে কমলগঞ্জের বটতলা পর্যন্ত একটি বিকল্প সড়ক নির্মাণ করা সম্ভব বলে জরিপে নির্ধারণ করা হয়েছে। আঁকাবাঁকা বিকল্প সড়কটির বিভিন্ন স্থান সোজা করে দিলে সময়ের খুব একটা হেরফের হবে না।

জানা যায়, ২০১৭ সালের ২ জুলাই ‘লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যান, রেমা-কালেঙ্গা বন্য প্রাণী অভয়ারণ্য এবং রাতারগুল জলজ বন’ সুরক্ষায় করণীয় বিষয়ে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে এক পর্যালোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যানের প্রাণী রক্ষায় উদ্যানের ভেতর দিয়ে চলে যাওয়া রাস্তা সরিয়ে বিকল্প সড়ক নির্মাণের সিদ্ধান্ত হয়েছিল। সিদ্ধান্তে ছিল লাউয়াছড়ায় রাতে গাড়ি চাপায় পিষ্ট হয়ে বন্য প্রাণীর মৃত্যু প্রতিরোধে জাতীয় উদ্যানের বাইরে দিয়ে বিকল্প সড়ক নির্মাণ বা উন্নয়ন করা। বিকল্প সড়ক নির্মাণ বা উন্নয়নের জন্য সংশ্লিষ্ট স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর (এলজিইডি), সড়ক ও জনপথ (সওজ) বিভাগ, চা-বাগান কর্তৃপক্ষ, বন বিভাগ, স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের সঙ্গে সমন্বয়ে তা বাস্তবায়নের কার্যক্রম শুরু করা। শ্রীমঙ্গল-ভানুগাছ সড়কের ৬ দশমিক ৫ কিলোমিটার পড়েছে লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যান এলাকায়। কিন্তু এত দিনেও এই সিদ্ধান্ত বাস্তবায়ন হয়নি। ফলে বন্য প্রাণীর মৃত্যুর মিছিলও থামছে না।

বন বিভাগ ও সওজ সূত্রে জানা গেছে, গত ২৮ জুন বন্য প্রাণী ব্যবস্থাপনা ও প্রকৃতি সংরক্ষণ বিভাগ এবং সওজ শ্রীমঙ্গল-ভানুগাছ সড়কের বিকল্প হিসেবে লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যানের বাইরে দিয়ে যে সব সড়ক গেছে, সেই সড়কগুলোর ওপর প্রাথমিক জরিপ চালিয়েছে। এই জরিপ দলটি শ্রীমঙ্গল-ভানুগাছ সড়কের শ্রীমঙ্গল উপজেলার গ্র্যান্ড সুলতান টি রিসোর্ট অ্যান্ড গলফের সামনে থেকে রাধানগর হয়ে যে রাস্তা গেছে, সেই রাস্তাটিকে শ্রীমঙ্গল-ভানুগাছ সড়কের কমলগঞ্জ উপজেলার বটতলা নামক স্থানের সঙ্গে মিলিয়ে দেওয়ার বিষয়ে প্রাথমিকভাবে ঠিক করেছে। এতে রাস্তার দূরত্ব ৮ থেকে ১০ কিলোমিটারের মতো হতে পারে। বিকল্প হিসেবে এই রাস্তা করা হলে লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যান পুরোপুরি সড়কপথ থেকে আলাদা হয়ে যাবে। তখন উদ্যানের ভেতরের সড়কটি বন্ধ করে দেওয়া হবে। এ ছাড়া উদ্যান এলাকা থেকে নূরজাহান চা-বাগান হয়ে যে সড়কটি গেছে, সেটিও বন্ধ করা হবে। যানবাহনে বন্য প্রাণী মৃত্যুর আশঙ্কা থাকবে না।

বন্য প্রাণী ব্যবস্থাপনা ও প্রকৃতি সংরক্ষণ বিভাগের সহকারী বন সংরক্ষক (এসিএফ) মো. আনিসুর রহমান বলেন, ‘সওজ ও আমরা যৌথ সার্ভে করেছি। অনেক রাস্তা ঘুরে দেখেছি। প্রাথমিকভাবে ঠিক করা হয়েছে, রাধানগর হয়ে যে রাস্তাটি গেছে, সেটি গিয়ে কমলগঞ্জের বটতলায় উঠবে। এতে লাউয়াছড়া পুরোপুরি আলাদা হয়ে যাবে। বন্য প্রাণী পারাপারে আর সমস্যা হবে না।’

এসিএফ বলেন, ‘লাউয়াছড়া বন্য প্রাণীতে ভরপুর। এত প্রাণী আর কোথাও নেই। বিকল্প রাস্তা হওয়াটা দরকার। চিতা বিড়ালসহ বিপন্ন অনেক ধরনের প্রাণী মারা যাচ্ছে। প্রতি মাসেই কোনো না কোনো প্রাণী মারা যাওয়ার খোঁজ মিলছে। সব সময় তার হিসাব রাখা যাচ্ছে না। সড়কপথ বন্ধ হয়ে গেলে ঢাকা-সিলেট রেল লাইন না সরানো পর্যন্ত রেল লাইনের দুপাশে বেড়া দেওয়া হবে, যাতে বন্য প্রাণী রেললাইনে উঠতে না পারে। তাদের নিরাপদ চলার ব্যবস্থা করা হবে।’

সওজ মৌলভীবাজারের উপবিভাগীয় প্রকৌশলী মো. রাশেদুল হক বলেন, ‘প্রাথমিকভাবে ঠিক করা হয়েছে রাধানগর হয়ে বটতলা পর্যন্ত বিকল্প সড়ক নির্মাণ করার। এতে হয়তো একটু ঘুরে যাবে। এতে বর্তমান সড়কের চেয়ে পাঁচ মিনিটের বেশি সময় লাগতে পারে। বিকল্প রাস্তার বর্তমান অবস্থা আঁকাবাঁকা। অ্যালাইনমেন্ট ঠিক করা হবে। এদিক দিয়ে বিকল্প রাস্তা করা সম্ভব। এখন বন বিভাগ থেকে সওজের ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে লিখিতভাবে জানালে কর্তৃপক্ষ আমাদের জানাবে। তার পরই রাস্তা নির্মাণের কাজ বাস্তবায়ন হবে।’

লাউয়াছড়া বন ও জীববৈচিত্র্য রক্ষা আন্দোলন নামে একটি সংগঠন দীর্ঘদিন থেকে লাউয়াছড়া থেকে রেল ও সড়কপথ স্থানান্তরের দাবী জানিয়ে আসছিলো৷ সেই সংগঠনের আহ্বায়ক জলি পাল বলেন, লাউয়াছড়ার প্রাণীদের রক্ষায় আমরা দ্রুত বনের ভেতর থেকে সড়ক সরানোর দাবি জানাচ্ছি।

আপনার মন্তব্য

আলোচিত