বৃহস্পতিবার, ২১ নভেম্বর ২০১৯ ইং

নিজস্ব প্রতিবেদক

১১ জুলাই, ২০১৯ ১৬:২৮

নগরীর উন্নয়নে পোর্টসমাউথ সিটির সাথে ‘টুইন সিটি’ চুক্তি স্বাক্ষরের প্রস্তাব

সিলেট চেম্বারের সাথে ওয়েলস-বাংলাদেশ চেম্বারের প্রতিনিধি দলের মতবিনিময়

দি সিলেট চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রির প্রশাসক ও প্রাক্তন নেতৃবৃন্দের সাথে যুক্তরাজ্য থেকে আগত ওয়েলস-বাংলাদেশ চেম্বার অব কমার্স (ডব্লিউবিসিসি) এর প্রতিনিধিদলের এক মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। সভায় সিলেট শহরের উন্নয়নে যুক্তরাজ্যের পোর্টসমাউথ সিটির সাথে 'টুইন সিটি' চুক্তি স্বাক্ষরের প্রস্তাব করা হয়।

বৃহস্পতিবার (১১ জুলাই) দুপুর ২টায় চেম্বার কার্যালয়ে এ সভার আয়োজন করা হয়।

সিলেট চেম্বারের প্রশাসক আসাদ উদ্দিন আহমদের সভাপতিত্বে সভায় ওয়েলস-বাংলাদেশ চেম্বার অব কমার্সের সেক্রেটারি জেনারেল মাহবুব নুর ম্যাবস বলেন, সিলেট চেম্বার অব কমার্সের সাথে ওয়েলস বাংলাদেশ চেম্বার অব কমার্সের গভীর সম্পর্ক রয়েছে। ইতোপূর্বে দুইটি চেম্বারের মধ্যে দ্বি-পাক্ষিক ব্যবসা-বাণিজ্যের উন্নয়নে অনেকগুলো মতবিনিময় ও প্রতিনিধি বিনিময় হয়েছে।

তিনি বলেন, আমাদের এবারের সিলেট সফরের উদ্দেশ্য হচ্ছে যুক্তরাজ্যের পোর্টসমাউথ শহরের সাথে সিলেট শহরের একটি ‘টুইন সিটি’ চুক্তি স্বাক্ষর। এ চুক্তির মাধ্যমে সিলেট শহরের অভূতপূর্ব উন্নয়ন সাধিত হবে বলে আমাদের বিশ্বাস।

তিনি উল্লেখ করেন, এ চুক্তির আওতায় সিলেট শহরের বর্জ্য ব্যবস্থাপনা, যোগাযোগব্যবস্থা, শিক্ষা, ব্যবসা-বাণিজ্য, ভিসা প্রাপ্তিসহ বিভিন্ন বিষয়ে সহযোগিতা প্রদান করবে যুক্তরাজ্যের পোর্টসমাউথ সিটি কর্তৃপক্ষ।

তিনি জানান, এ ব্যাপারে সরকারের বিভিন্ন মন্ত্রী ও সিলেট সিটি করপোরেশনের মেয়রের সাথে তাদের ফলপ্রসূ আলোচনা হয়েছে এবং এর প্রেক্ষিতে আগামী নভেম্বর মাসে পোর্টসমাউথ সিটি কাউন্সিলের একটি প্রতিনিধিদল সিলেট সফর করবে। তিনি এই চুক্তি স্বাক্ষরে সিলেট চেম্বারের সার্বিক সহযোগিতা কামনা করেন।

সিলেট চেম্বারের প্রশাসক আসাদ উদ্দিন আহমদ ওয়েলস বাংলাদেশ চেম্বার অব কমার্সের প্রতিনিধিদলকে স্বাগত জানিয়ে বলেন, সিলেটের সামাজিক উন্নয়নে সিলেট চেম্বার অব কমার্সের সহযোগিতা সর্বদা অব্যাহত থাকবে। তিনি এ মহৎ উদ্যোগ গ্রহণের জন্য ওয়েলস বাংলাদেশ চেম্বারকে আন্তরিক ধন্যবাদ জানান।

তিনি বলেন, বর্তমান সরকার দেশে বিনিয়োগবান্ধব পরিবেশ সৃষ্টিতে সফল হয়েছেন। বাংলাদেশ বর্তমানে বিশ্বে উন্নয়নের রোল মডেল। নতুন প্রজন্মের প্রবাসী ও বিদেশী বিনিয়োগকারীদের সর্বোচ্চ সহযোগিতা দিতে বর্তমান সরকার বদ্ধ পরিকর।

তিনি ওয়েলসে বসবাসরত বাঙালিদের সিলেটে নির্মাণাধীন অর্থনৈতিক অঞ্চল, সিলেট হাই-টেক পার্ক এবং সিলেটের পর্যটন, শিক্ষা ও আইটি খাতে বিনিয়োগের আহবান জানান।
 
সভায় অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন ও উপস্থিত ছিলেন এফবিসিসিআই এর পরিচালক ও সিলেট চেম্বারের প্রাক্তন সভাপতি খন্দকার সিপার আহমদ, প্রাক্তন সিনিয়র সহসভাপতি জিয়াউল হক, মো. লায়েছ উদ্দিন, প্রাক্তন সহসভাপতি মো. এমদাদ হোসেন, প্রাক্তন পরিচালক পিন্টু চক্রবর্তী, এহতেশামুল হক চৌধুরী, চন্দন সাহা, মো. আব্দুর রহমান (জামিল), মো. বশিরুল হক, হুমায়ুন আহমেদ, প্রতিনিধিদলের সদস্য মো. বাবুল সিদ্দিকী, এমরান মফিজ, এস এম সালাহ উদ্দিন প্রমুখ।

আপনার মন্তব্য

আলোচিত