সোমবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯ ইং

নিজস্ব প্রতিবেদক

১৫ আগস্ট, ২০১৯ ২২:৪৭

হাসিমুখে শোকপালন

ছবি: ফেসবুক থেকে সংগৃহীত

১৫ আগস্ট জাতীয় শোক দিবসে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতি হাসিমুখে শ্রদ্ধার্ঘ্য নিবেদনের ঘটনায় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সমালোচনা চলছে। সুনামগঞ্জে শ্রদ্ধার্য নিবেদনের সময় এবং মৌলভীবাজারের বড়লেখা শোক র‍্যালিতে আওয়ামী লীগ নেতাদের এমন ভূমিকায় ফেসবুকে অনেকেই ক্ষোভ প্রকাশ করেন।

উভয় কর্মসূচিতে সরকারের দুই মন্ত্রী, প্রশাসনের কর্মকর্তা-কর্মচারী, আওয়ামী লীগসহ বিভিন্ন অঙ্গ-সংগঠনের নেতাকর্মীসহ বিপুল সংখ্যক সাধারণ মানুষ উপস্থিত ছিলেন।

জেলা প্রশাসকের কার্যালয় সুনামগঞ্জের নামে পরিচালিত এক ফেসবুক পেজ থেকে প্রকাশিত ছবির সূত্র ধরে এই সমালোচনার শুরু হয়। বৃহস্পতিবার (১৫ আগস্ট) সকাল ১১:৩১ মিনিটে "জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে জাতির পিতার প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ" শিরোনামে ওই ফেসবুক পোস্টে একাধিক ছবি প্রকাশ করে কর্মসূচির তথ্য দেওয়া হয়।

ছবি: জেলা প্রশাসকের কার্যালয় সুনামগঞ্জ নামে ফেসবুক পেজ থেকে সংগৃহীত

মিডিয়া সেল সূত্রে ওই ফেসবুক পোস্টে বলা হয়, "অদ্য ১৫/০৮/২০১৯ তারিখ সকাল ০৯:৩০ টায় সুনামগঞ্জ কালেক্টরেট চত্বরে শহীদ মুক্তিযোদ্ধা স্মৃতি ফলকে অস্থায়ীভাবে স্থাপিত জাতির পিতার প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় পরিকল্পনা মন্ত্রী জনাব এম.এ. মান্নান এমপি, বাংলাদেশ পাবলিক সার্ভিস কমিশনের চেয়ারম্যান ড. মোহাম্মদ সাদিক, জেলা প্রশাসক সুনামগঞ্জ জনাব মোহাম্মদ আব্দুল আহাদ, পুলিশ সুপার, সুনামগঞ্জ জনাব মো. মিজানুর রহমান, বিপিএম, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক, ব্যারিস্টার এম. এনামুল কবির ইমন, উপপরিচালক, স্থানীয় সরকার, সুনামগঞ্জ জনাব মোহাম্মদ এমরান হোসেন, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (শিক্ষা ও আইসিটি) জনাব মো. হারুন অর রশীদ, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) জনাব মোহাম্মদ শরীফুল ইসলাম, জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের কর্মকর্তা-কর্মচারীবৃন্দ, জেলা পর্যায়ের বিভিন্ন দপ্তরের কর্মকর্তা-কর্মচারী, রাজনৈতিক ব্যক্তিবর্গ এবং বিভিন্ন সামাজিক সাংস্কৃতিক সংগঠনের সদস্যবৃন্দ। উল্লেখ্য এ সময়ে জেলা প্রশাসক বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা সংসদ জেলা ইউনিট কমান্ড, সুনামগঞ্জ এর পক্ষ থেকে ও পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন।"

জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের ওই পোস্টে জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ব্যারিস্টার এম. এনামুল কবির ইমন, পুলিশ প্রশাসনের একজন কর্মকর্তাসহ একাধিক নেতাকে হাসিমুখে দেখা যায়।

ছবি ফেসবুকে শেয়ার দিয়ে প্রবাসী সাংবাদিক ও লেখক ফজলুল বারী এর প্রতিক্রিয়ায় লিখেন, কাণ্ডজ্ঞানহীন!

চৌধুরী সাগ্নিক নামের একজন ফেসবুকে লিখেন, শোক দিবসের শ্রদ্ধাঞ্জলিতে সুনামগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ব্যারিস্টার এনামুল কবির ইমন এর এমন হাস্যজ্জল ছবি জানান দেয় তিনি বঙ্গবন্ধুকে কতটা ধারণ করেন!

হাসিমুখে শোক-পুষ্প নিবেদনের কারণ জানতে ব্যারিস্টার এম. এনামুল কবির ইমনের সঙ্গে মোবাইলে বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে ৮টার দিকে একাধিকবার যোগাযোগের চেষ্টা করা হলে তার মোবাইল বন্ধ পাওয়া যায়। পরবর্তীতে আবার রাত সাড়ে ১০টার দিকে তাকে ফোন করে মোবাইল ফোনটি খোলা পেলেও তিনি কলটি রিসিভ করেন নি।

ছবি: ফেসবুক থেকে সংগৃহীত

এদিকে, মৌলভীবাজারের বড়লেখা উপজেলা আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগ, তাঁতীলীগ ও সহযোগী সংগঠনের উদ্যোগে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৪তম শাহাদাত বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে বৃহস্পতিবার দুপুরে বড়লেখা পৌর শহরে শোক র‌্যালি বের করা হয়। র‍্যালিতে পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রী মো. শাহাব উদ্দিন উপস্থিত ছিলেন।

উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও পৌরসভার মেয়র আবুল ইমাম কামরান চৌধুরী, পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি আব্দুল আহাদ, সদর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ নেতা ইয়াছিন আলীসহ একাধিক নেতাকে মন্ত্রীর সঙ্গে হাসিমুখে শোকর‍্যালিতে অংশ নিতে দেখা যায়।

শোকর‍্যালিতে হাসিমুখে অংশ নেওয়ার কারণ জানতে বড়লেখা পৌরসভার মেয়র আবুল ইমাম কামরান চৌধুরীর সঙ্গে মোবাইলে যোগাযোগ করা হলে সিলেটটুডে টোয়েন্টিফোর ডটকমকে তিনি বলেন, এটা একটা অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা। র‍্যালিটি বের করার পর পেছন থকে দুই-একজন নেতাকর্মী সামনে আসতে চাইলে হঠাৎ করে মাটিতে পড়ে যায়। আর ঘটনাটি দেখে র‍্যালিতে অংশ নেয়া কয়েকজন হেসে উঠেন।

তাহলে সামনের সারিতে কেনো হাসাহাসি হচ্ছে? এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, এটা একটা বিচ্ছিন্ন ঘটনা। ঠিক সামনের সারির পিছনেই ঘটনাটি ঘটায় এমন হয়েছে। তিনি আরও বলেন, আজ জাতির এমন শোকের কারোই মুখে হাসি থাকার কথা নয়। কিন্তু অনাকাঙ্ক্ষিত একটি পরিস্থিতি তৈরি হওয়াতে এমনটা ঘটেছে।

আপনার মন্তব্য

আলোচিত