সোমবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯ ইং

কুলাউড়া প্রতিনিধি

২৪ আগস্ট, ২০১৯ ০০:২৪

গাছ কাটার মামলার জামিন নিলেন কুলাউড়ার ইউপি চেয়ারম্যান

গাছ কাটার মামলায় জামিন পেয়েছেন মৌলভীবাজারের কুলাউড়ায় বরমচাল ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি আব্দুল আহবাব চৌধুরী শাহজান।

স্থানীয় রফিনগর মাসুক মিয়া ইবতেদায়ী মাদরাসার গাছ কাটার মামলায় গত ১৮ আগস্ট তাঁর বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করেছিল আদালত। বৃহস্পতিবার তিনি আদালতে হাজির জামিন নেন। এনিয়ে বরমচালসহ উপজেলায় ব্যাপক আলোচনা সমালোচনা চলছে।

গাছ কাটার অভিযোগ এনে গত বছরের ৯ ডিসেম্বর মৌলভীবাজার সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজেস্ট্রেট ৫ নং আমলী আদালতে সি-আর ২০৭/১৯ নং মামলা দায়ের করেন মাদরাসার সুপার বদর উদ্দিন আহমদ তালুকদার।

কুলাউড়া থানার অফিসার ইনচার্জ মো. ইয়ারদৌস হাসান জানান, ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল আহবাব চৌধুরী শাহাজাহানের বিরুদ্ধে থানায় গ্রেপ্তারি পরোয়ানা এসেছিলো। তবে তিনি বৃহস্পতিবার আদালত থেকে জামিন নিয়েছেন।

বাদি পক্ষের আইনজীবি অ্যাডভোকেট আব্দুল মান্নান বারী জানান, আহবাব চৌধুরী শাহজাহানের ওপর গাছ কাটার মামলায় গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারী হয়েছিলো। পরে তিনি আদালতে উপস্থিত হয়ে আগামী ২৯ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত জামিন নেন। ওইদিন এই মামলার পরবর্তী শুনানী হবে।

মামলা সূত্রে জানা যায়, রফিনগর মাসুক মিয়া ইবতেদায়ি মাদরাসা বরমচাল ইউনিয়নের ৫নং ওয়ার্ডে অবস্থিত। মাদরাসার সুপার মাদরাসার উন্নয়ন ও সৌন্দর্য্য বর্ধনের জন্য মাদরাসার চারপাশের সীমানায় আকাশি, বেলজিয়ামসহ বিভিন্ন প্রজাতির ৮০টি গাছ লাগান। প্রতিটি গাছ ১৫-২৫ ফুট পর্যন্ত লম্বা হয়। প্রতিটি গাছের মূল্য ১০০০ হাজার টাকা। গত বছরের ৪ নভেম্বর সকালে ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল আহবাব চৌধুরী শাহজানসহ তার ভাড়াটে ১০-১২ জন লোক নিয়ে মাদরাসায় লাগানো গাছগুলো দা, কুড়াল দিয়ে কেটে দেন। যার বাজার মূল্য ৮০ হাজার টাকা।

চেয়ারম্যানের উপস্থিতি ও নির্দেশনায় লোকেরা গাছ কর্তন করতে আসলে মাদরাসার সুপার এতে বাঁধা প্রদান করলে চেয়ারম্যান উত্তেজিত হয়ে সুপারকে ভয়ভীতি ও হুমকি প্রদান করেন। পরে মাদরাসা সুপার বিষয়টি স্থানীয় এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিদের অবগত করে প্রথমে ৬ নভেম্বর উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবরে একটি লিখিত আবেদন করেন। যার অনুলিপি তৎকালীন এমপি ও জেলা প্রশাসকসহ বিভিন্ন দপ্তরে দেওয়া হয়।

এ ব্যাপারে মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করলে বরমচাল ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আবদুল আহবাব চৌধুরী শাহজাহান বিষয়টি নিয়ে কোন কথা বলতে অপারগতা প্রকাশ করেন।

আপনার মন্তব্য

আলোচিত