মঙ্গলবার, ১৭ সেপ্টেম্বর ২০১৯ ইং

বড়লেখা প্রতিনিধি

০৯ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ২০:৪৩

‘হয় মাদক ছাড়ো, না হয় মৌলভীবাজার ছাড়ো’

আইনশৃঙ্খলা বিষয়ক সুধী সমাবেশে মৌলভীবাজারের পুলিশ সুপার

‘হয় মাদক ছাড়ো, না হয় মৌলভীবাজার ছাড়ো।’ মাদকসেবী ও ব্যবসায়ীদের উদ্দেশ্যে এই বার্তা দিয়েছেন মৌলভীবাজারের পুলিশ সুপার ফারুক আহমদ। তিনি বলেছেন, মাদকের বিরুদ্ধে আমাদের অভিযান অব্যাহত থাকবে। মাদকের ব্যাপারে কোনো ছাড় নেই।

সোমবার (৯ সেপ্টেম্বর) দুপুরে পুলিশ সুপার মৌলভীবাজারের বড়লেখায় মাদক, সন্ত্রাস, জঙ্গিবাদ ও ইভটিজিংয়ের বিরুদ্ধে আইনশৃঙ্খলা বিষয়ক সুধী সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে উপরোক্ত কথাগুলো বলেন।

স্থানীয় কমিউনিটি সেন্টারে বড়লেখা থানা পুলিশ এ সমাবেশের আয়োজন করে। উপজেলার জনপ্রতিনিধি ও গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ এতে অংশগ্রহণ করেন।

জনতার উদ্দেশ্যে পুলিশ সুপার বলেন, ‘কোথাও মাদক সেবন, বিক্রির তথ্য থাকলে ওসিকে জানাবেন। ওসি যদি কোনো ব্যবস্থা না নেন আর ওই এলাকায় মাদক বিস্তারের খবর আমার কাছে পৌঁছে, তাহলে সংশ্লিষ্ট থানার ওসিকে জবাবদিহি করতে হবে। অবহেলা সহ্য হবে না।’

পুলিশ সুপার আরো বলেন, ‘নিজের আত্মপ্রচারের জন্য বলছি না। ষোল বছরের চাকুরী জীবনে ষোল পয়সাও দুর্নীতি করি নাই। সরকারি বেতনের টাকায় চলি। সুতরাং আমার নাম দিয়ে কেউ পয়সা জনগণের কাছ থেকে নিতে পারবে না। এ ম্যাসেজ সবার কাছে পৌঁছাবেন। কিভাবে কাজ করতেছি। আমার পুলিশ দিয়ে কোনো মানুষ অন্যায়ভাবে যেন ক্ষতিগ্রস্ত না হয়। এটা হচ্ছে আমার প্রথম কথা। পুলিশদ্বারা যদি জনগণের কোনো ক্ষতির খবর পাই তবে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে। সকল মানুষ দূরের জেলা সদরে আমার কাছে অনেক সময় যেতে পারবে না। তাই থানা হবে জনগণের আশ্রয়স্থল, জনগণের সেবা কেন্দ্র।’

অপরাধীদের আইনের আওতায় নিয়ে আসার কাজ চলছে জানিয়ে পুলিশ সুপার ফারুক আহমদ আরো বলেন, ‘সকল অপরাধীদের তালিকা করা হচ্ছে। জনগণের কাছে অপরাধীদের তালিকা দেওয়া হবে। যাতে জনগণের সহায়তায় দ্রুত সময়ে অপরাধীদের সনাক্ত করা যায়। আইনের আওতায় নেওয়া সম্ভব হয়। এক্ষেত্রে জনগণের সহযোগিতা প্রয়োজন।’

সুধী সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. ইয়াছিনুল হক। পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) মো. জসীম ও উপ-পরিদর্শক (এসআই) প্রভাকর রায়ের যৌথ সঞ্চালনায় অন্যদের মাঝে বক্তব্য দেন জেলা বিশেষ শাখার পুলিশ সুপার (পদোন্নতিপ্রাপ্ত) সারোয়ার আলম, বড়লেখা উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান সোয়েব আহমদ, বড়লেখা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. শামীম আল ইমরান, কমিউনিটি পুলিশিং কমিটির সভাপতি আনোয়ার উদ্দিন, সাবেক উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান রফিকুল ইসলাম সুন্দর, সাবেক উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার সিরাজ উদ্দিন, উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান তাজ উদ্দিন, নারী ভাইস চেয়ারম্যান রাহেনা বেগম হাছনা, জেলা পরিষদের নারী সদস্য জোবায়েদা ইকবাল, বড়লেখা জ্যেষ্ঠ বিচারিক হাকিম আদালতের সহকারী আইন কর্মকর্তা গোপাল দত্ত, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুল লতফি, পৌরসভার প্যানেল মেয়র আলী আহমদ চৌধুরী জাহেদ, নারী শিক্ষা একাডেমি অনার্স কলেজের উপাধ্যক্ষ একেএম হেলাল, বড়লেখা সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ অরুন কুমার চক্রবর্ত্তী, কমিউনিটি পুলিশিং কমিটির সাধারণ সম্পাদক আব্দুল আহাদ, ইউপি চেয়ারম্যান আজির উদ্দিন, নছিব আলী, এনাম উদ্দিন, বিদ্যুৎ কান্তি দাস, শাহাব উদ্দিন, ময়নুল হক, বড়লেখা প্রেসক্লাবের সভাপতি অসিত রঞ্জন দাস, সমাজসেবক সুনাম উদ্দিন, ইউপি সদস্য কবির আহমদ প্রমুখ।

আপনার মন্তব্য

আলোচিত