রোববার, ২৬ জানুয়ারি ২০২০ ইং

সিলেটটুডে ডেস্ক

১০ ডিসেম্বর, ২০১৯ ১৭:৪৯

দেশে আইনের শাসন বলে কিছু নেই

মানবাধিকার দিবসে সিলেট জেলা বিএনপি নেতারা

সিলেট জেলা বিএনপি নেতৃবৃন্দ বলেছেন, সরকার নিজেদের ফ্যাসিবাদী শাসন কুক্ষিগত করে রাখতে রাষ্ট্রযন্ত্রকে ব্যবহার করে মানবাধিকার হরণের মহোৎসবে মেতে উঠেছে। দেশে আইনের শাসন বলে কিছু নেই। একদিকে সরকারদলীয় সন্ত্রাসীরা খুন-হত্যা, ধর্ষণের উৎসব চালাচ্ছে। অপরদিকে সরকারের কর্তাব্যক্তিরা দুর্নীতি আর লুটপাটের মাধ্যমে দেশের অর্থনীতিকে ধ্বংস করে দিচ্ছে।

মঙ্গলবার (১০ ডিসেম্বর) দুপুরে আন্তর্জাতিক মানবাধিকার দিবস উপলক্ষে বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে সিলেট জেলা বিএনপি আয়োজিত র‌্যালিতে বক্তারা উপরোক্ত কথা বলেন।

বিএনপি নেতারা আরো বলেন, সরকার সম্পূর্ণ রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত হয়ে ষড়যন্ত্রমূলক মামলার  রায়ে তিন বারের সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে অন্যায়ভাবে আটকে রেখেছে। প্রতিদিনই সাজাপ্রাপ্ত শীর্ষ সন্ত্রাসী এমনকি ফাঁসির আসামীরা পর্যন্ত জামিনে বের হলেও দেশনেত্রীর জামিন নিয়ে টালবাহানা করা হচ্ছে। বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকগণ গুরুতর অসুস্থ দেশনেত্রীর সুচিকিৎসা নিশ্চিত না হলে বড় ধরনের দুর্ঘটনার আশংকা জানানো সত্ত্বেও সরকার তাতে কোন পাত্তা দিচ্ছে না।

বক্তারা বলেন, আওয়ামী ফ্যাসিস্ট সরকার ক্ষমতায় থাকলে মানবাধিকার প্রতিষ্ঠা সম্ভব হবে না। তাই ফ্যাসিবাদী সরকারের হাত থেকে দেশকে রক্ষা ও মানবাধিকার প্রতিষ্ঠা করতে হলে এই সরকারকে বিদায় করতে হবে। এজন্য দেশপ্রেমিক জনতাকে ঐক্যবদ্ধভাবে দুর্বার আন্দোলন গড়ে তুলতে হবে।

মঙ্গলবার বেলা সাড়ে ১২টার দিকে নগরীর ঐতিহাসিক রেজিস্টারি মাঠ থেকে র‍্যালি বের করতে চাইলে পুলিশ বাঁধা দেয়। পরে নেতাকর্মীরা পুলিশী বাঁধা উপেক্ষা করে র‍্যালি বের করে। র‍্যালিটি রেজিস্টারি মাঠ থেকে শুরু হয়ে গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্ট প্রদক্ষিণ করে কোর্ট পয়েন্টে গিয়ে সংক্ষিপ্ত বিক্ষোভ সমাবেশের মধ্য দিয়ে সমাপ্ত হয়।

র‍্যালিতে জেলা বিএনপি অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের বিভিন্ন পর্যায়ের বিপুল সংখ্যক নেতাকর্মী উপস্থিত ছিলেন। র‍্যালি পরবর্তী সংক্ষিপ্ত বিক্ষোভ সমাবেশে বক্তব্য রাখেন, জেলা বিএনপির আহবায়ক কামরুল হুদা জায়গীরদার, বিএনপির কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য ও জেলা আহবায়ক কমিটির ১নং সদস্য আবুল কাহের চৌধুরী শামীম।

এতে উপস্থিত ছিলেন, সিলেট জেলা বিএনপির আহবায়ক কামরুল হুদা জায়গীরদার, বিএনপির কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য ও জেলা আহ্বায়ক কমিটির ১নং সদস্য আবুল কাহের চৌধুরী শামীম, আহ্বায়ক কমিটির সদস্য আলী আহমদ, জেলা বিএনপির সাবেক সহসভাপতি ও জেলা মৎস্যজীবী দলের আহ্বায়ক একেএম তারেক কালাম, বিএনপি নেতা আজির উদ্দিন আহমদ, জেলা শ্রমিক দলের সভাপতি সুরমান আলী, জেলা মহিলা দলের সভাপতি সালেহা কবির শেপি, মহানগর শ্রমিক দলের সভাপতি ইউনুস মিয়া, জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের যুগ্ম আহ্বায়ক আরিফ ইকবাল নিহাল, বিএনপি নেতা বজলুর রহমান ফয়েজ, স্বেচ্ছাসেবক দল নেতা আব্দুল ওয়াহিদ সুহেল, বিএনপি নেতা দিলোয়ার হোসেন জয়, জেলা মহিলা দলের সাধারণ সম্পাদিকা আমেনা বেগম রুমি, জেলা শ্রমিক দলের সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রহমান, মহানগর শ্রমিক দলের সাধারণ সম্পাদক লিটন আহমদ চৌধুরী, জেলা মৎস্যজীবী দলের যুগ্ম আহ্বায়ক আব্দুল মালেক ও ইসলাম উদ্দিন, যুবদল নেতা আখতার আহমদ, জেলা ছাত্রদলের সভাপতি আলতাফ হোসেন সুমন, যুবদল নেতা মিজানুর রহমান নেছার, জেলা মহিলা দলের সাংগঠনিক সম্পাদিকা ফাহিমা আহমদ কুমকুম, বিএনপি নেতা আব্দুল আহাদ নুরুল ইসলাম, মহিলা দল নেত্রী মিলি বেগম, হকার্স দল নেতা খোকন ইসলাম, জেলা ছাত্রদলের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক দেলোয়ার হোসেন নাদিম, ছাত্রদল নেতা আব্দুস সালাম টিপু প্রমুখ।

আপনার মন্তব্য

আলোচিত