আজ মঙ্গলবার, , ২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮ ইং

মারূফ অমিত

১৫ জুন, ২০১৮ ১৭:৫০

অপরূপ হাকালুকিতে হতে পারে ঈদ ভ্রমণ

ছুটি পেলেই এখন ঘুরতে বেরোচ্ছে মানুষ। ঈদের দীর্ঘ ছুটিতে তো কথাই নেই। এবার ঈদেও তার ব্যতিক্রম হবে না। ইতোমধ্যে ঘুরাঘুরির পরিকল্পনা করে ফেলেছেন ভ্রমণপিয়াসীরা।

এবার ঈদ বর্ষা মৌসুমে। বর্ষায় পর্যটকদের অন্যতম আকর্ষণ হতে পারে সিলেটের হাওরগুলো। দেশের বৃহত্তম হাওর হাকালুকি হতে পারে এই ছুটিতে পর্যটকদের পছন্দের স্থান। বর্ষায় ভরা যৌবনা হাকালুকি তার রূপ নিয়ে অপেক্ষায় আছে পর্যটকদের।

হাকালুকি হাওর, সিলেট ও মৌলভীবাজার জেলায় অবস্থিত। হাওরটি ৫টি উপজেলা ও ১১টি ইউনিয়ন নিয়ে বিস্তৃত। হাওরের ৪০% বড়লেখা, ৩০% কুলাউড়া, ১৫% ফেঞ্চুগঞ্জ, ১০% গোলাপগঞ্জ এবং ৫% বিয়ানীবাজার উপজেলার অন্তর্গত। এই হাওরের আয়তন ২০,৪০০ হেক্টর। ২৩৬টি বিল নিয়ে এই হাকালুকি হাওর। বিলগুলোতে রয়েছে বিভিন্ন প্রজাতির মাছ। বর্ষাকালে এই হাওর এক অনন্য রূপ ধারণ করে। চারদিকে শুধু পানি আর পানির খেলা। সে এক অপরুপ দৃশ্য।

হাওরের বিলগুলোতে র‌য়েছে বিভিন্ন প্রজাতির মাছ। তার মধ্যে রয়েছে, আইড়, চিতল, বাউশ, পাবদা, মাগুর, শিং, কৈসহ আরও নানা প্রজাতির।

হাকালুকি হাওরের নামকরণ নিয়ে নানা জনশ্রুতি রয়েছে। কথিত আছে, বহু বছর পূর্বে ত্রিপুরার মহারাজা অমর মানিক্যের সেনাবাহিনীর ভয়ে বড়লেখার কুকি দলপতি হাঙ্গর সিং জঙ্গলপূর্ণ ও কর্দমাক্ত এক বিস্তীর্ণ এলাকায় ‘লুকি দেয়’ অর্থাৎ লুকিয়ে থাকে। এই ঘটনার প্রেক্ষিতে কালক্রমে ওই এলাকার নাম হয় ‘হাঙ্গর লুকি বা হাকালুকি। এও বলা হয় যে, প্রায় দুই হাজার বছর আগে প্রচন্ড এক ভূমিকম্পে ‘আকা’ নামে এক নৃপতি ও তাঁর রাজত্ব মাটির নিচে তলিয়ে যায়। কালক্রমে এই তলিয়ে যাওয়া নিম্নভূমির নাম হয় ‘আকালুকি বা হাকালুকি’। আরও শোনা যায় যে,এক সময় বড়লেখা উপজেলার পশ্চিমাংশে হেংকেল নামে একটি উপজাতি বাস করত। হেংকেলদের বসবাস এলাকার নাম ছিল ‘হেংকেলুকি’। পরবর্তীতে এই হেংকেলুকিই ‘হাকালুকি’ নাম ধারন করে। অন্য একটি জনশ্রুতি মতে, এক সময় হাকালুকি হাওরের কাছাকাছি বসবাসরত কুকি ও নাগা উপজাতি তাদের ভাষায় এই হাওরের নামকরণ করে ‘হাকালুকি’। হাকালুকি অর্থ লুকানো সম্পদ।

সিলেটে পর্যটন সম্ভাবনার স্থান ফেঞ্চুগঞ্জ উপজেলার তীরবর্তী ঘিলাছড়া জিরো পয়েন্ট। এখান থেকেই বিস্তৃত জলরাশির হাকালুকি হাওর দেখা যায়।  

এদিকে ঈদ উল ফিতর উপলক্ষ্যে পর্যটকদের আনন্দ দিতে প্রস্তুত করা হয়েছে এ পর্যটন এলাকা।।

হাকালুকি হাওরের অন্যতম পর্যটন উদ্যোক্তা মুজিবুর রব চৌধুরী জানান, ঈদে যাতে পর্যটকরা হাওর বিলাস করতে পারে সেজন্য সকল প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে। প্রমোদতরী হাওর বিলাসসহ বিলাসী সকল নৌযানকে নতুন করে সাজানো হয়েছে।

তিনি জানান , নিরাপত্তার জন্য সকল নৌযানের নিরাপত্তা চেকিং শেষ করে বাড়ানো হয়েছে উদ্ধারকারী জনবল,লাইফ জ্যাকেট, সাপোর্ট বোট। যেকোন দুর্ঘটনা মোকাবিলায় প্রস্তুত আছে উদ্ধারকারী জাহাজ ও প্রশিক্ষিত সাতারু। যদিও এখানে কখনোই অপ্রীতিকর কিছু শুনা যায় নি তার পরও এদিকে স্থানীয়দের উদ্যোগে বিশাল হাকালুকি হাওরে ভ্রমন পিপাসুরা যাতে নির্বিঘ্নে নির্মল আনন্দ করতে পারেন সেজন্য আছেন স্থানীয় সেচ্ছাসেবক ছাত্র ও যুব সমাজ।

এদিকে পর্যটকদের সার্বিক নিরাপত্তার ব্যাপারে ফেঞ্চুগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার মাসুদ রানা সিলেটটুডে টুয়েন্টিফোরকে জানান, এ ব্যাপারে সকল ব্যবস্থা নিতে ফেঞ্চুগঞ্জ থানা অফিসার ইনচার্জ কে চিঠি দেওয়া হয়েছে। তিনি ব্যবস্থা গ্রহন করবেন।

কিভাবে যাবেন-

রাজধানী ঢাকার কমলাপুর ও ক্যান্টনমেন্ট রেলস্টেশন থেকে প্রতিদিন ৩টা ট্রেন ছাড়ে সিলেটের উদ্দেশে। ট্রেনের ভাড়াপ্রকারভেদে ১২০ থেকে ৭০০ টাকা পর্যন্ত। আর সময় লাগবে ৭-৮ ঘণ্টা। ট্রেনে গেলে রাত ৯.৫০টার উপবন এক্সপ্রেসে যাওয়াটাই সব চেয়ে ভালো। এছাড়া বাসেও যাওয়া যাবে। বাসে যেতে চাইলে অনেক বাস আছে। এর মধ্যে শ্যামলি, হানিফ, সোহাগ, ইউনিক, উল্লেখযোগ্য। ভোর থেকে শুরু করে রাত ১২.৩০টা পর্যন্ত এসব বাস পাবেন। বাসে যেতে সময় লাগবে ৪ থেকে ৪ ঘন্টা ৩০ মিনিট। ননএসি ৩০০/৩৫০ টাকা। এসি ৯০০ টাকা পর্যন্ত।

সিলেট শহর থেকে প্রায় ৩০ কি.মি ফেঞ্চুগঞ্জ উপজেলা অবস্থিত। সিলেট হুমায়ুন রশীদ চত্বর থেকে বাস, সিএনজি অথবা লেগুনা করে মাইজগাঁও বাজারে যেতে হবে। সেখান থেকে পুনরায় সিএনজি যোগে ঘিলাছড়া জিরো পয়েন্টে গেলেই হাকালুকি হাওর ভ্রমণ করা যাবে। ভাড়া জনপ্রতি ১০০ টাকার মত খরচ হবে।

আপনার মন্তব্য

আলোচিত