বুধবার, ১৭ জুলাই ২০১৯ ইং

বেনাপোল প্রতিনিধি

০২ মে, ২০১৯ ১৫:৩০

পঞ্চম শ্রেণির ছাত্রীকে যৌন হয়রানি, মাদরাসা সুপারসহ গ্রেপ্তার ৪

যশোরের শার্শা উপজেলার বাগআঁচড়া সাতমাইল মহিলা আলিম মাদরাসার পঞ্চম শ্রেণীর ছাত্রীকে যৌন হয়রানি ও এ কাজে সহযোগিতার অভিযোগে মাদ্রাসা সুপার, তিন শিক্ষক ও একজন অভিভাবকসহ চারজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

বুধবার (১ মে) রাতে তাদের গ্রেপ্তার করা হয়।

রোববার পঞ্চম শ্রেণিতে পাঠদানের সময় এক ছাত্রীকে কাছে ডেকে তার স্পর্শকাতর স্থানে হাত দেয় শিক্ষক শরিফুল। পরে মেয়েটি এ ঘটনা মাদ্রাসার শিক্ষিকা শাহনাজ পারভিন ও বাড়ির স্বজনদের জানায়। এ সময় তার বাবা জিয়াউর রহমান জিয়া মাদ্রাসা সুপার মহসীন কবীরকে বিষয়টি অবহিত করেন।

মাদ্রাসা সুপার বিচারের আশ্বাস দিয়েও বিচার না করায় মঙ্গলবারে জিয়া সাংবাদিকদের এ ঘটনা জানালে বিষয়টি প্রশাসনের নজরে আসে। বুধবার রাতেই পুলিশ ওই ছাত্রী ও তার বাবার জবানবন্দী নিয়ে অভিযুক্ত শিক্ষক শরিফুল ইসলাম ও এ কাজে সহায়তা প্রদানের জন্য মাদ্রাসা সুপার মহসীন কবীর এবং সহকারী শিক্ষক জামাল হোসেন, অভিভাবক সদস্য নুরুল ইসলামসহ ৪ জনকে আটক করে।

জানা যায়, শিক্ষক শরিফুল প্রতিদিনই ওই ছাত্রীকে উত্যক্ত করতো। লোক লজ্জার ভয়ে সে কাউকে কিছু বলতো না। কিন্তু ওই দিন সে সাহস করেই ঘটনাটি সবাইকে বলে দেয়।

এদিকে মাদ্রাসার সুনাম ক্ষুন্ন হবার অজুহাতে মাদ্রাসার কতিপয় শিক্ষক ও কমিটির লোকজন শরিফুলের পক্ষ নিয়ে ঘটনা ধামাচাপা দেয়ার চেষ্টা করেন।

এ ব্যাপারে মাদরাসা ছাত্রী বাদী হয়ে ৪ জনকে আসামি করে শার্শা থানায় মামলা করে। মামলা নং- ৩, তাং-০১-০৫-০১৯।

পুলিশ জানায়, আটককৃতদের বৃহস্পতিবার দুপুরে জেলহাজতে পাঠানো হয়েছে।

আপনার মন্তব্য

আলোচিত