মঙ্গলবার, ১৫ অক্টোবর ২০১৯ ইং

সিলেটটুডে ডেস্ক

০১ অক্টোবর, ২০১৯ ১৩:১৯

সেলিম প্রধানের বাসায় র‍্যাবের অভিযান চলছে

অনলাইন জুয়া ও ক্যাসিনো ব্যবসার মূল হোতা সেলিম প্রধানের অফিস কাম বাসায় ১২ ঘণ্টার বেশি সময় ধরে অভিযান চলছে।

রাজধানীর গুলশান-২-এর মমতাজ ভিশন নামের ভবনের পঞ্চম তলায় সেলিমের অফিস।

সোমবার রাত সাড়ে ১০টার দিকে সেলিমের অফিসে অভিযান শুরু করে র‍্যাব-১। মঙ্গলবার শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত এই অভিযান চলছিল।

র‍্যাবের গণমাধ্যম শাখার সহকারী পরিচালক মিজানুর রহমান বলেন, অভিযান এখনো চলছে। এ বিষয়ে বিস্তারিত পরে জানানো হবে।

সোমবার দুপুরে ঢাকার হজরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে থাই এয়ারওয়েজের একটি ফ্লাইট থেকে ব্যবসায়ী সেলিমকে নামিয়ে আনে র‍্যাব-১-এর একটি দল। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদের পর রাতে তাকে নিয়ে তার অফিসে অভিযানে যায় র‍্যাব।

প্রথমে সেলিমকে সঙ্গে করে ঘটনাস্থলে যায় র‍্যাবের তিনটি গাড়ি। পরে এই সংখ্যা বেড়ে দাঁড়ায় ১০টিতে।

র‍্যাবের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, সেলিমের দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে এই অভিযান চালানো হচ্ছে। তবে অভিযানে এখন পর্যন্ত কী পাওয়া গেছে, সে সম্পর্কে র‍্যাব আনুষ্ঠানিকভাবে কিছু জানায়নি।

প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে সেলিমের কাছ থেকে পাওয়া তথ্য যাচাই-বাছাই করা হচ্ছে বলে জানান র‍্যাব-১-এর অধিনায়ক সারওয়ার বিন কাশেম।

র‍্যাব সূত্র জানায়, অনলাইনে বিশ্বের সুপরিচিত ক্যাসিনোগুলোর সঙ্গে জুয়াড়িদের যুক্ত করার কাজ করতেন সেলিম। তিনি ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠান ‘প্রধান গ্রুপ’-এর কর্ণধার। তার ব্যবসাপ্রতিষ্ঠানের মধ্যে রয়েছে জাপান-বাংলাদেশ সিকিউরিটি প্রিন্টিং অ্যান্ড পেপারস লিমিটেড, পি২৪ ল ফার্ম, এইউ এন্টারটেইনমেন্ট, পি২৪ গেমিং, প্রধান হাউস ও প্রধান ম্যাগাজিন। এর মধ্যে পি২৪ গেমিংয়ের মাধ্যমে তিনি জুয়াড়িদের ক্যাসিনোয় যুক্ত করতেন।

সেলিমের কোম্পানির ওয়েবসাইটের তথ্য অনুযায়ী, পি২৪ গেমিং শুরুতে বিনোদনমূলক সফটওয়্যার তৈরি ও প্রকাশ করত। এখন এশিয়ায় দ্রুত বড় হতে থাকা ক্যাসিনো কারবারে সক্রিয় ভূমিকা রাখছে। এশিয়ার লাইভ ক্যাসিনো মার্কেটে প্রতিষ্ঠানটি যেন এক নম্বরে যেতে পারে, সেই চেষ্টা আছে তাদের। ২০১৬ সালে তারা শুধু কম্পিউটার গেমস বাজারে আনত। পরে অনলাইন জুয়া ও ক্যাসিনো কারবারে জড়িয়ে পড়ে। পি২৪-এর সঙ্গে বাংলাদেশে ১৫০টি অপারেটর এবং ক্যাসিনো যুক্ত আছে। অনলাইনে বিশ্বের সবচেয়ে প্রচলিত ক্যাসিনোর সঙ্গে যুক্ত করে দেওয়ার ক্ষমতা আছে তাদের। জুয়াড়িদের মুঠোফোনে লাইভ ক্যাসিনোতে যুক্ত করে দেওয়ার সুবিধা তারা এনেছে গত বছরের ৭ ডিসেম্বর।

জানা যায়, সেলিম প্রধানের সঙ্গে আর্থিক খাতের ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক রয়েছে। সেলিম প্রধানের জাপান-বাংলাদেশ সিকিউরিটি প্রিন্টিং অ্যান্ড পেপারসে বিভিন্ন ব্যাংকের চেক বই ছাপা হয়। পাশাপাশি বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের অফিসের নথিপত্রও ছাপানো হয়। তাঁর এই প্রতিষ্ঠান রূপালী ব্যাংকের শীর্ষ ঋণখেলাপিদের একটি। ২০১৮ সালে ঋণটি পুনঃ তফসিল করা হয়। সেলিমের কাছে ব্যাংকের পাওনা প্রায় ১০০ কোটি টাকা।

আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর বিভিন্ন সূত্র বলছে, টেন্ডারবাজি ও চাঁপাইনবাবগঞ্জ সীমান্ত দিয়ে অস্ত্র চোরাচালানের সঙ্গে সেলিম প্রধানের সম্পৃক্ততা রয়েছে।

আপনার মন্তব্য

আলোচিত