শুক্রবার, , ২৬ এপ্রিল ২০১৯ ইং

সোশ্যাল মিডিয়া ডেস্ক

২৫ মার্চ, ২০১৯ ০২:১১

সংবর্ধনায় আদিবাসী নারীকে জড়িয়ে ধরে সমালোচিত উপজেলা চেয়ারম্যান

বান্দরবান জেলার আলীকদম উপজেলা পরিষদের নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান মো. আবুল কালামের সঙ্গে এক ম্রো আদিবাসী নারীর কয়েকটি ছবি ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়েছে। ছবিটি নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বইছে সমালোচনার ঝড়।

জানা যায়, নির্বাচনে জয়ী হওয়ায় রবিবার সকালে মো. আবুল কালাম ম্রো আদিবাসীদের পাড়ায় সংবর্ধনা নিতে যান। ওই সংবর্ধনা অনুষ্ঠানের কয়েকটি ছবি ইন্টারনেটে ছড়িয়ে পরে। ছবিতে দেখা যায়, মো. আবুল কালাম গলায় মালা নিয়ে এক ম্রো নারীকে জড়িয়ে ধরছেন। এ সময় ওই ম্রো নারীকে বিরক্তি প্রকাশ করতে দেখা যায়।

আবুল কালাম তারপরও তাকে জোর করে জড়িয়ে ধরে ছবিও তোলেন।

ছবিগুলো শেয়ার করে ফেসবুকে আরিফ জেবতিক লিখেন- 'পাহাড়ে শান্তির মা তো আর গাছ থেকে পড়বে না| এই বদমাইশটারে চেয়ারম্যান গিরি থেকে বহিস্কার করে আইন মোতাবেক বিচার করা হোক|'

মুনমুন শারমিন শামস লিখেন- আচ্ছা, ছবিগুলার দিকে তাকান তো!
আচ্ছা আপনাদের কি গা গুলায় উঠতেসে না? মেয়েটার চোখ মুখ বডি ল্যাঙ্গুয়েজ দেখে কষ্ট হচ্ছে না? লজ্জা আর অপমানিত লাগতেসে না?

আমার আসলে জানার ইচ্ছা, এই বাস্টার্ড আসলে কোন ক্ষমতার বলে বলীয়ান?
পাহাড়িদের এলাকায় সে বাঙালি বলে? নির্বাচিত চেয়ারম্যান বলে? নাকি প্রুষ বলে?
আমি জানতে চাই এই লোকটির বিরুদ্ধে কেন ব্যবস্থা নেয়া হবে না? কেন আমরা চুপ করে থাকব?

মো: আবুল কালাম, বান্দরবন জেলার আলীকদম উপজেলায় সম্প্রতি চেয়ারম্যান পদে নির্বাচিত হইসে। নির্বাচিত হওয়ার পর সে ম্রো আদিবাসীদের পাড়ায় গেসে সংবর্ধনা নেওয়ার জন্য। গিয়া এই সরল সিদা পাহাড়ি মেয়েটার গায়ের উপ্রে এম্নে হামলায় পড়সে, ছবি তুলসে।

একটা জনপ্রতিনিধি কি সংবর্ধনা নেয়ার নামে এইভাবে কোন মেয়েকে জড়ায়ে ধরতে পারে? সে কি এইগুলা করতে পারে? কে জবাব দেবে? এইটা কি কোন সভ্য দেশ?

ফড়িং ক্যামেলিয়া লিখেছেন- এই লোক হল বান্দরবনের আলীকদম উপজেলার নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান৷ উনি খুশির ঠ্যালায় আদিবাসী নারী সামনে পেয়ে জড়িয়ে ধরেছেন।ভেবেছেন আদিবাসী মেয়ে তো, এর গায়ে হাত দিলে কোন সমস্যা নাই।

মেয়েটার চোখমুখ দেখে বোঝাই যাচ্ছে এই মেয়েটি কতটা অপমানিত হয়েছে। এই মেয়ের যায়গায় আমি হলে স্রেফ খুন করে ফেলতাম। আচ্ছা এবার বলেন এই বরাহের বিচার দাবি করলে , গালি দিলে কি অন্যায় হবে?

তবে বিরোধীপক্ষ অসৎ উদ্দেশ্য নিয়েএই ছবি ছড়িয়ে কুৎসা রটনা করছে বলে দাবি করেছেন বিএনপির বহিষ্কৃত নেতা ও নবনির্বাচিত উপজেলা চেয়ারম্যান মো. আবুল কালাম।

এ বিষয়ে মো. আবুল কালাম বলেন, ‘আদিবাসীদের গ্রামে আমাকে সংবর্ধনা দেওয়া হয়েছে। সেখানে পুরুষদের সঙ্গেও এভাবে জড়িয়ে ধরে ছবি তুলেছি, এই মেয়েটি আমার নিজের মেয়ের বয়সী একটি মেয়ে। তার সঙ্গে এই ধরনের ছবি তোলায় আপত্তির কিছু দেখি না। বিরোধীপক্ষ অসৎ উদ্দেশ্য নিয়ে এই ছবিটি ছড়িয়ে কুৎসা রটনা করছে’।

উল্লেখ্য, দলীয় সিদ্ধান্ত অমান্য করে উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে প্রার্থী হওয়ায় তাকে বিএনপি থেকে বহিষ্কার করা হয়।

আপনার মন্তব্য

আলোচিত