মঙ্গলবার, ২৩ জুলাই ২০১৯ ইং

সোশ্যাল মিডিয়া ডেস্ক

২৪ জুন, ২০১৯ ২২:২৭

আমাদের দরকার আরেকটু কম ভিআইপি জনপ্রতিনিধি

ট্রেন দুর্ঘটনার পর ফেসবুকে ক্ষোভ-সমালোচনা

রোববার রাতে মৌলভীবাজারের কুলাউড়ায় সেতু ভেঙ্গে খাদে পড়ে যায় সিলেট থেকে ঢাকাগামী ট্রেন। এতে নিহত হন অন্তত ৪ জন। আহত হন শতাধিক। এতে রোববার রাত থেকে প্রায় ২০ ঘন্টা বন্ধ ছিলো সিলেটের সাথে দেশের ট্রেন যোগাযোগ। এদিকে ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় একটি সেতু ভেঙ্গে ১৯ জুন থেকে বন্ধ ছিলো সিলেটের সাথে দেশের সড়ক যোগাযোগ।

সিলেটের সড়ক পথ ও রেল পথের এই বেহাল দশায় ফেসবুকে চলছে ব্যাপক সমালোচনা। প্রতিটি সরকারেই সিলেটের একাধিক মন্ত্রী থাকলেও কাঙ্খিত উন্নয়ন না হওয়ায় ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন সিলেটের অনেকেই।

ট্রেন দুর্ঘটনার পর সিলেটর নাগরিক আন্দোলনের সংগঠক আব্দুল করিম কিম ফেসবুকে লিখেন-

ইউএনও সাহেবদের ৯০ লাখ টাকা দামের গাড়ি দেয়ার পরিকল্পনা হয় কিন্তু ঢাকা-সিলেট হাইওয়েতে ব্রিজ না ভাঙ্গলে সংস্কার কাজ শুরু হয় না। শায়েস্তাগঞ্জের ব্রিজের কথা মনে আছে তো? চন্দ্রিমা উদ্যানে জিয়ার কবরের ব্রীজ দিয়ে কাজ চালানো হয়েছিল।

দশ বছর অর্থমন্ত্রী ও পরিকল্পনামন্ত্রী পেয়ে শুধু বগল বাজালাম কিন্তু সিলেট বিভাগে রেলপথের কি উন্নয়ন দেখলাম?

কারো জানা থাকলে জানান প্লিজ...

লেখক হাসান মোরশেদ ফেসবুকে লিখেন-

ট্রেন যাত্রা সবচেয়ে সাশ্রয়ী, আরামদায়ক ও তুলনামুলকভাবে নিরাপদ। অথচ সিলেট বেড়াতে আসা সকলকে আমি নিষেধ করি, অনুরোধ করি সিলেটের ট্রেন এড়াতে।

এমন না যে বাংলাদেশের অন্য রুটের ট্রেন একেবারে আদর্শ, সবদিকেই ঝামেলা আছে। কিন্তু সিলেট রুটের মতো এতো জঘন্য, এতো বাজে অবস্থা আর কোথাও নাই এটা নিশ্চিত।

আমি আঞ্চলিকতা এড়িয়ে চলি কেয়ারফুলি কিন্তু কিছু বিষয় এতো স্পষ্ট যে কথা না বলাটা নিজের বিবেকের কাছে অন্যায়। সিলেটীদেরকে সবসময় একটা প্রাউড ফিল এর মধ্যে রাখা হয়- সিলেট পশ, সিলেট অর্থনৈতিক ভাবে সমৃদ্ধ, সিলেট পবিত্র নগরী, সিলেট থেকে সব রাজনৈতিক দলের নির্বাচনী প্রচারনা শুরু করতে হয়, সিলেট থেকে বারবার অর্থমন্ত্রী- পররাষ্ট্রমন্ত্রী- পরিকল্পনা মন্ত্রী!

তো এইসবে সিলেট আর সিলেটীদের কী হয়? সিলেট থেকে গ্যাস যায় সারা দেশে- যে উপজেলায় হরিপুর গ্যাসফিল্ড সেই জৈন্তাপুরে গ্যাস নাই। সিলেটের পাথর যায় সারাদেশে- সিলেটের রাস্তাঘাটের অবস্থা সবচেয়ে জঘন্য। সিলেটের রেল লাইনে পাথর নাই!

এক সপ্তাহে ধরে ঢাকা সিলেট সড়কপথ বন্ধ হয়ে আছে। চিন্তা করা যায়? ট্রেন না বাড়িয়ে এক বগিতে তুলে দেয়া হয়েছে ৫ গুন মানুষ।

এতো এতো ভিভিআইপি মন্ত্রী-এমপি দিয়ে বাংলাদেশের লাভ হতে পারে কিন্তু সিলেটের কী লাভ হয় সেটা হিসাবের দরকার আছে। বরং আমাদের দরকার আরেকটু কম ভিআইপি জনপ্রতিনিধি যারা আন্তর্জাতিক সমস্যার চেয়ে স্থানীয় সমস্যা নিয়ে আরেকটু মনোযোগ দেবেন। সিলেটের রাস্তাঘাট, যোগাযোগ ব্যবস্থা, নিরাপত্তা নিয়ে সোচ্চার হবেন।


দুর্ঘটনাকবলিত ট্রেন উদ্ধার করে সোমবার সন্ধ্যা ৭টায় স্বাভাবিক হয় ট্রেন যোগাযোগ। আর পাঁচদিন পর সোমবার খোলে দেওয়া হয় ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সরাইলের ভেঙ্গে পড়া ব্রিজ। এতে ঢাকা-সিলেট মহাসড়ে যান চলাচল শুরু হয়।

আপনার মন্তব্য

আলোচিত