শুক্রবার, ২২ নভেম্বর ২০১৯ ইং

আরিফ জেবতিক

৩১ আগস্ট, ২০১৯ ২২:২৮

চোরের খনি পাইনি, ডাকাতের খনির মাঝে ঢুকে পড়েছি

চোর চুপিচুপি চুরি করে, কেউ ধরে ফেলে কী না সেটা নিয়ে চিন্তিত থাকে। ডাকাতরা এমন না, তারা একদম গুণ্ডামি করে। আগের আমলে হাওর অঞ্চলে ডাকাতরা একেবারে চিঠি দিয়ে আগাম ঘোষণা দিয়ে আসত। বাড়ির মালিক খাসি জবেহ করে রাখতেন। ডাকাতরা এসে খাসির মাংস দিয়ে খাওয়া দাওয়া করে তারপর ধীরে সুস্থে ডাকাতি করে শান্তিমতো নৌকা নিয়ে চলে যেত।

বঙ্গবন্ধুর উদ্ধৃতি দিয়ে একটি জনশ্রুতি আছে। তিনি নাকি বলেছিলেন, 'সবাই পায় হীরার খনি, আমি পেয়েছি চোরের খনি।' এই কথাটির সত্যমিথ্যা জানি না। স্বাধীনতাত্তোর একটি ভঙ্গুর অর্থনীতিতে চোররা হয়তো চুরিধারি জোরেশোরেই চালিয়েছে।

কিন্তু সেগুলো ছিল স্রেফ চুরি।
এখন যেগুলো হচ্ছে, সেগুলো চুরি নয়। রীতিমতো ডাকাতি-রাহাজানি। কোনও লাজলজ্জা নেই, আকার বিকার নেই।

গত ২ দিনে দুটো খবর পড়লাম। প্রথমটি হচ্ছে 'পুকুর খনন শিখতে ১ কোটি ২৮ লাখ টাকা খরচ করে বিদেশে শিক্ষা সফরে গেছে ১৬ জন সরকারি কর্মকর্তা! খবর এখানে যেমন গুরুত্বপূর্ণ, তার চাইতে গুরুত্বপূর্ণ হচ্ছে যে এই যাওয়া নিয়ে এদের কোনও লাজলজ্জা নেই। সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে এরা ঠিকঠাক একটা না একটা অজুহাত দিয়ে যাচ্ছে।

দ্বিতীয় খবরটি পড়লাম একটু আগে। সাড়ে ৫ হাজার টাকা দামের একটি বই স্বাস্থ্য অধিদফতর কিনেছে ৮৫,৫০০ টাকায়! বাজারে যে বই যে কেউ কিনতে পারে, সে বইয়ের দাম দেখানোতেও কোনও আকার বিকার নেই।

এটিকে ঠিক চুরি বলব না ডাকাতি বলব না কী বলব আমার ভাষাজ্ঞানে কুলাচ্ছে না। সাড়ে ৫ হাজার টাকার বই সাড়ে ৭ হাজার টাকায় কিনলে চুরি বলতাম, সাড়ে ৯ হাজারে কিনলে হয়তো ডাকাতি বলতাম, ৮৫ হাজারে কেনার পরে কী বলব সেই শব্দ বাংলা অভিধানে এখনও যুক্ত হয়নি।

অনলাইন যুগের প্রথম দিকে বাজারে অনেক বিলিয়নিয়ার হয়েছে দ্রুত, সেই সময়টাকে বলা হয় ডটকম বুম! একেকটা ওয়েবসাইট হিট করেছে তো গ্যারেজে বসা লোক ৪ মাস পরেই বিলিয়নিয়ার হয়ে গেছে। এখন আমাদের যে অবস্থা শুরু হয়েছে, সেটাও সেই ডটকম বুমের মতো ডটডট বুম। মানে আমাদের জনগণের ডট ডট মেরে বুম করে ফেলছে এরা। এবং এটা নিয়ে বিন্দুমাত্র আকার বিকার নেই।

অথচ এই চোরদের বেতন-ভাতা সবই গত কয়েকবছরে কয়েকবার বাড়ানো হয়েছে। এদের বেতন ভাতা যোগাতে গিয়ে সাধারণ জনগণের মুখে রক্ত উঠে যাচ্ছে। সামান্য পাড়ার মুদির দোকানের ট্রেড লাইসেন্স কি সাইনবোর্ড ট্যাক্স বেড়ে হয়েছে কয়েকগুণ, ভ্যাটের বোঝায় প্রতিটি পণ্যের দাম বেড়েছে রকেট গতিতে।

এই জোঁকের দল আমাদের রক্ত-ঘামে মেশানো ট্যাক্সের টাকা দেশের কাজে না লাগিয়ে বালিশ কিনছে ৬ হাজার টাকায়, পুকুর খনন শিখতে ৪ হালি লোক বিদেশ যাচ্ছে, ১৫ গুন বেশি দামে সরকারের বই কিনছে!

আমরা চোরের খনি পাইনি, একদম ডাকাতের খনির মাঝে ঢুকে পড়েছি। এই ডাকাতের খনি ডিনামাইট দিয়ে উড়িয়ে দেয়া দরকার।

(ফেসবুক থেকে সংগৃহিত)
আরিফ জেবতিক: লেখক, সাংবাদিক।

আপনার মন্তব্য

আলোচিত