আজ রবিবার, ২০ অক্টোবর, ২০১৯ ইং

রায়: অনুবাদে নানা রঙের অনুভূতি

মাসকাওয়াথ আহসান  

“কোন জাতি-দেশ একজন ব্যক্তির মাধ্যমে গড়ে ওঠেনি। আমরা যদি সত্যিই আমাদের জাতির জনকের প্রস্তাবিত সোনার বাংলার স্বপ্ন বাস্তবায়িত করতে চাই, আমাদের নিজেদেরকে অবশ্যই আমিত্বের আত্মঘাতি উচ্চাভিলাষ ও নেশা থেকে মুক্ত থাকতে হবে। একজন ব্যক্তি বা একজন মানুষই সব করেছেন এরকম চিন্তা থেকে বেরিয়ে আসতে হবে।”

সংবিধানের ষোড়শ সংশোধনী নিয়ে প্রধান বিচারপতির রায়ের এক পর্যবেক্ষণে ওপরের বক্তব্যটি ইংরেজিতে প্রকাশিত হয়। (No nation - no country is made of or by one person. If we want to truly live up to the dream of Sonar Bangla as advocated by our father of the nation, we must keep ourselves free from this suicidal ambition and addiction of ‘I’ness. That only one person or one man did all this and etc) তা পড়ে বিজ্ঞ রাজনীতিকরা যেভাবে এই পর্যবেক্ষণ অনুবাদ করেছেন।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ‘বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের অবদানের কথা যে স্বীকার করে না সে বাংলাদেশের স্বাধীনতায় বিশ্বাস করে কিনা তা নিয়ে আমার সন্দেহ আছে।’

আওয়ামী লীগের প্রবীণ নেতা, শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমু বলেন, আমরা যারা আজকে পার্লামেন্টের সদস্য, এদেশ স্বাধীন না হলেও আওয়ামী লীগ এই দেশে মাথা তুলে থাকত, আমরা পার্লামেন্টের সদস্য থাকতাম।

“কিন্তু তোমার মতো ছিঁচকে উকিল এই দেশের চিফ জাস্টিস হতে পারত না। এটা স্মরণ রাখতে হবে। বঙ্গবন্ধুর অবদানের কারণে আজকে তোমার মতো ছিঁচকে উকিল এই দেশের চিফ জাস্টিসের মর্যাদা পেয়েছে।”

আওয়ামী লীগের প্রবীণ নেতা, বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ বলেন, ‘সুপ্রিমকোর্টের একটি রায়ে প্রধান বিচারপতি বলেছেন, কারও একক নেতৃত্বে এ দেশ স্বাধীন হয়নি। আমি প্রশ্ন করতে চাই, এ দেশের স্বাধীনতার নেতৃত্বে বঙ্গবন্ধু ছাড়া অন্য আর কে ছিলেন?’ ক্ষোভ প্রকাশ করে তিনি বলেন, ‘আজ যারা বিচারকের আসনে আছেন, তারা এক সময় আমাদের সঙ্গে কর্মী হিসেবে কাজ করেছেন। আজ তারা সবাই ম্যাচিউড আর আমরা হলাম ইমম্যাচিউরড! পৃথিবীর কোন আইনে এসব আছে?

যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী বীরেন শিকদার বলেন, ‘জননেত্রী, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা না হলে, এস কে সিনহাও প্রধান বিচারপতি হতেন না। বাংলাদেশের সনাতনি সমাজ তার (এস কে সিনহা) তার সঙ্গে নেই।’

নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের সংসদ সদস্য এ কে এম শামীম ওসমান বলেন, ‘‘আমার পার্টির সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন, ‘ষড়যন্ত্র শুরু হয়েছে।’ আমি এক বছর আগে থেকে বলেছিলাম, ষড়যন্ত্র শুরু হয়েছে। বিচার বিভাগ থেকে ষড়যন্ত্র হচ্ছে। জনগণ আবার নতুন করে গান ধরছে, বিচারপতি তোমার বিচার করবে যারা, আজ জেগেছে সেই জনতা।’’

শামীম ওসমান বলেন, ‘যারা ভাবছেন বাংলাদেশের মানুষ পাকিস্তানের নাগরিক। যারা ভাবেন বাংলাদেশের সেনাবাহিনী, বাংলাদেশের পুলিশ, আইনশৃঙ্খলা বাহিনী ও পাকিস্তানের বাহিনী একই, তারা বোকার রাজ্যে বাস করছেন। তাদের মনে রাখতে হবে, বাংলাদেশ পাকিস্তান নয়, শেখ হাসিনাও নওয়াজ শরীফ নন।’

খাদ্যমন্ত্রী কামরুল ইসলাম বলেন, জাতির জনককে যখন কেউ খাটো করার চেষ্টা করে, মুক্তিযুদ্ধকে অপমান করে, আমাদের আদেশের বিরুদ্ধে যদি কেউ কথা বলে, দেশের অস্তিত্বের বিরুদ্ধে যদি কথা বলে, গণতন্ত্র হত্যার পরোক্ষভাবে যদি কেউ ষড়যন্ত্র করে তার বিরুদ্ধে একজন সাধারণ নাগরিক হিসেবে কথা বলার অধিকার আমার অবশ্যই আছে।

নৈতিকতা থাকলে তিনি স্বেচ্ছায় চলে যাবেন। অন্যথায় সেপ্টেম্বর থেকে আইনজীবীরা তার বিরুদ্ধে আন্দোলন গড়ে তুলবেন। প্রধান বিচারপতির উদ্দেশে তিনি বলেন, বিএনপির সঙ্গে বন্ধুত্ব করে, বিএনপির সুরে কথা বলে, মুক্তিযুদ্ধবিরোধীদের সঙ্গে আঁতাত করে বেশি দিন এই মসনদে থাকতে পারবেন না।

এলজিআরডি মন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার খন্দকার মোশাররফ হোসেন বলেন, ‘সংবিধানের ষোড়শ সংশোধনী নিয়ে প্রধান বিচারপতি যে রায় দিয়েছেন, তাতে সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে কটাক্ষ করার ধৃষ্টতা দেখিয়েছেন।’

আওয়ামী লীগের সহযোগী সংগঠন যুব মহিলা সাধারণ সম্পাদক অপু উকিল বলেন, সুরেন্দ্র কুমার সিনহা হিন্দু নন। আমরা জানতে পারছি স্বাধীনতার সময় তিনি শান্তি কমিটিতে ছিলেন। এ শান্তি কমিটির প্রধান লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য ছিল হিন্দু নিধন। তাই একজন হিন্দু কিভাবে শান্তি কমিটিতে যোগ দেন? তিনি ষড়যন্ত্র করছেন। বিএনপি সুরে কথা বলছেন। আমরা তার অপসারণ চাই।

পেছন ফিরে তাকালে দেখা যায়, এরআগে ইউনেস্কোর ইংরেজির উলটো অর্থ বুঝে রামপালে ইউনেস্কোর আপত্তি নেই বলে দেয়া; অধুনা প্রধান বিচারপতির ইংরেজির উলটো অর্থ করে তাঁর বিরুদ্ধে বঙ্গবন্ধুকে কটাক্ষের জিগির তোলার পর; নিজ স্বার্থে আওয়ামী লীগের শীর্ষ পর্যায়ের নেতাদের জন্য ইংরেজি শিক্ষা কার্যক্রম চালু জাতীয় স্বার্থে অতীব জরুরি হয়ে পড়েছে!

বিবিসির মতামত জরিপে জনসাধারণের ভোটে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান যখন হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি নির্বাচিত হয়েছিলেন; তখন ক্ষমতায় বিএনপি-জামায়াত জোট। অর্থাৎ কোন প্রতিকূল পরিস্থিতিই বঙ্গবন্ধুকে তাঁর যোগ্য সম্মান থেকে বঞ্চিত করতে পারেনি।

বঙ্গবন্ধু আশংকা করেছিলেন, আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীদের হাতেই তাঁর আদর্শের মৃত্যু হলে; তা হবে তাঁর দ্বিতীয় মৃত্যু।

বঙ্গবন্ধুর প্রথম মৃত্যুর ষড়যন্ত্র আওয়ামী লীগের খন্দকার মুশতাকরাই করেছিলো। মাত্র কয়েকজন বাদে বঙ্গবন্ধুর মন্ত্রীসভার প্রায় সবাই মুশতাকের মন্ত্রীসভায় যোগ দেয়।

আজ লুণ্ঠক দলদাস আর জামায়াত-হেফাজত সমন্বয়ে যে হিংস্র ও আদিম আওয়ামী লীগ চোখে পড়ে; তাতে ভয় হয় ; বঙ্গবন্ধুর নিজের দলের লোকের হাতেই তাঁর আদর্শের মৃত্যুর যে আশংকা তিনি করেছিলেন; তা সত্যি হলে তা হবে ইতিহাসের সবচেয়ে দুঃখজনক অধ্যায়।

মাসকাওয়াথ আহসান, সাংবাদিক, সাংবাদিকতা শিক্ষক

মুক্তমত বিভাগে প্রকাশিত লেখার বিষয়, মতামত, মন্তব্য লেখকের একান্ত নিজস্ব। sylhettoday24.com-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে যার মিল আছে এমন সিদ্ধান্তে আসার কোন যৌক্তিকতা সর্বক্ষেত্রে নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে sylhettoday24.com আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো দায় গ্রহণ করে না।

আপনার মন্তব্য

লেখক তালিকা অঞ্জন আচার্য অসীম চক্রবর্তী আজম খান ১০ আজমিনা আফরিন তোড়া আফসানা বেগম আবু এম ইউসুফ আবু সাঈদ আহমেদ আব্দুল করিম কিম ২০ আব্দুল্লাহ আল নোমান আব্দুল্লাহ হারুন জুয়েল আমিনা আইরিন আরশাদ খান আরিফ জেবতিক ১৩ আরিফ রহমান ১৪ আরিফুর রহমান আলমগীর নিষাদ আলমগীর শাহরিয়ার ৪০ আশরাফ মাহমুদ আশিক শাওন ইমতিয়াজ মাহমুদ ৫১ ইয়ামেন এম হক এখলাসুর রহমান ১৯ এনামুল হক এনাম ২৫ এমদাদুল হক তুহিন ১৯ এস এম নাদিম মাহমুদ ১৯ ওমর ফারুক লুক্স কবির য়াহমদ ৩১ কাজল দাস ১০ কাজী মাহবুব হাসান খুরশীদ শাম্মী ১২ গোঁসাই পাহ্‌লভী ১৪ চিররঞ্জন সরকার ৩৫ জফির সেতু জহিরুল হক বাপি ২৮ জহিরুল হক মজুমদার জান্নাতুল মাওয়া জাহিদ নেওয়াজ খান জুয়েল রাজ ৭৫ ড. এ. কে. আব্দুল মোমেন ড. কাবেরী গায়েন ২২ ড. শাখাওয়াৎ নয়ন ডা. সাঈদ এনাম ডোরা প্রেন্টিস তপু সৌমেন তসলিমা নাসরিন তানবীরা তালুকদার দিব্যেন্দু দ্বীপ দেব দুলাল গুহ দেব প্রসাদ দেবু দেবজ্যোতি দেবু ২৬ নিখিল নীল পাপলু বাঙ্গালী পুলক ঘটক ফকির ইলিয়াস ২৪ ফজলুল বারী ৬২ ফড়িং ক্যামেলিয়া ফরিদ আহমেদ ৩৩ ফারজানা কবীর খান স্নিগ্ধা বদরুল আলম বন্যা আহমেদ বিজন সরকার বিপ্লব কর্মকার ব্যারিস্টার তুরিন আফরোজ ১৫ ভায়লেট হালদার মারজিয়া প্রভা মাসকাওয়াথ আহসান ১০২ মাসুদ পারভেজ মাহমুদুল হক মুন্সী মিলন ফারাবী মুনীর উদ্দীন শামীম ১০ মুহম্মদ জাফর ইকবাল ১১৫ মো. মাহমুদুর রহমান মো. সাখাওয়াত হোসেন মোছাদ্দিক উজ্জ্বল মোনাজ হক রণেশ মৈত্র ১১৭ রতন কুমার সমাদ্দার রহিম আব্দুর রহিম ১৭ রাজেশ পাল ১৯ রুমী আহমেদ রেজা ঘটক ৩২ লীনা পারভীন শওগাত আলী সাগর শাখাওয়াত লিটন শামান সাত্ত্বিক শামীম সাঈদ শারমিন শামস্ ১৪ শাশ্বতী বিপ্লব শিতাংশু গুহ শিবলী নোমান শুভাশিস ব্যানার্জি শুভ ২৪ শেখ মো. নাজমুল হাসান ২১ শেখ হাসিনা শ্যামলী নাসরিন চৌধুরী সঙ্গীতা ইমাম সঙ্গীতা ইয়াসমিন ১৬ সহুল আহমদ সাইফুর মিশু সাকিল আহমদ অরণ্য সাব্বির খান ২৮

ফেসবুক পেইজ