আজ বৃহস্পতিবার, ১৯ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ইং

পহেলা বৈশাখ, মঙ্গল শোভাযাত্রা ও অন্যান্য

অঞ্জন আচার্য  

পয়লা বৈশাখ বা পহেলা বৈশাখ বাংলা সনের প্রথম দিন, তথা বাংলা নববর্ষ। দিনটি বাংলাদেশ এবং ভারতের পশ্চিমবঙ্গে বিশেষ উৎসবের সাথে পালিত হয় নববর্ষ হিসেবে। এছাড়া এ উৎসবে অংশ নেয় ত্রিপুরায় বসবাসরত বাঙালিরাও। সে হিসেবে এটি বাঙালিদের একটি সর্বজনীন উৎসব। সারা বিশ্বের বাঙালিরা এ দিনে বরণ করে নেয় নতুন বছরকে, ভুলে যাওয়ার চেষ্টা করে অতীত বছরের যাবতীয় দুঃখ-গ্লানি। সবার কামনা থাকে নতুন বছরটি যেন হয় সমৃদ্ধ ও সুখময়। অন্যদিকে নতুনভাবে ব্যবসা শুরু করার উপলক্ষ হিসেবে এ দিনটিকে বরণ করে বিভিন্ন পর্যায়ের ব্যবসায়ীরা। গ্রেগরীয় বর্ষপঞ্জি অনুসারে ১৪ এপ্রিল পালিত হয় এ পহেলা বৈশাখ। আধুনিক বা প্রাচীন যেকোনো পঞ্জিকাতেই মিল রয়েছে এই বিষয়ে। বাংলাদেশে প্রতি বছর ১৪ এপ্রিল এই উৎসব পালিত হয়। বাংলা একাডেমি নির্ধারিত আধুনিক পঞ্জিকা অনুসারে নির্দিষ্ট করা হয়েছে এই দিন।

বাংলা দিনপঞ্জির সঙ্গে হিজরি সন ও খ্রিস্টীয় সালের মৌলিক পার্থক্য হলো হিজরি সন চলে চাঁদের হিসাবে এবং খ্রিস্টীয় সাল ঘড়ির হিসাবে। এ কারণে হিজরি সনে নতুন তারিখ শুরু হয় সন্ধ্যায় নতুন চাঁদের উদয়ে, আর ইংরেজি দিন শুরু হয় মধ্যরাতে। পহেলা বৈশাখ রাত ১২ টা থেকে শুরু না সূর্যোদয় থেকে থেকে শুরু এটা নিয়ে দ্বিধাদ্বন্দ্ব আছে অনেকের। ঐতিহ্যগতভাবে সূর্যোদয় থেকে বাংলা দিন গণনার রীতি থাকলেও ১৪০২ বঙ্গাব্দের ১ বৈশাখ থেকে বাংলা একাডেমি এই নিয়ম বাতিল করে। আন্তর্জাতিক রীতির সাথে সামঞ্জস্য রাখতে প্রতিষ্ঠানটি চালু করে রাত ১২টায় দিন গণনা শুরুর নিয়ম।

অনেক আগে থেকেই বাংলা বারো মাস পালিত হতো হিন্দু সৌর পঞ্জিকা অনুসারে। গ্রেগরীয় পঞ্জিকায় এপ্রিল মাসের মাঝামাঝি সময় থেকে শুরু হতো এই সৌর পঞ্জিকার। হিন্দু সৌর বছরের প্রথম দিন আসাম, বঙ্গ, কেরলা, মনিপুর, নেপাল, উড়িষ্যা, পাঞ্জাব, তামিলনাড়ু– এবং ত্রিপুরার সংস্কৃতির অবিচ্ছেদ্য অংশ হিসেবে বহুদিন থেকেই পালিত হতো। এখন যেমন নববর্ষ নতুন বছরের সূচনার নিমিত্তে পালিত একটি সর্বজনীন উৎসবে পরিণত হয়েছে, একসময় এমনটি ছিল না। তখন নববর্ষ বা পহেলা বৈশাখ পালিত হতো আর্তব উৎসব তথা ঋতুধর্মী উৎসব হিসেবে। তখন এর মূল তাৎপর্য ছিল কৃষিকাজ। প্রযুক্তির যুগ শুরু না হওয়ায় ঋতুর ওপরই নির্ভর করতে হতো কৃষকদের।

ভারতবর্ষে মোঘল সাম্রাজ্য প্রতিষ্ঠার পর সম্রাটরা কৃষি পণ্যের খাজনা আদায় করত হিজরি পঞ্জিকা অনুসারে। কিন্তু হিজরি সন চাঁদের ওপর নির্ভরশীল হওয়ায় তা কৃষি ফলনের সাথে মিলত না। এতে অসময়ে কৃষকদেরকে বাধ্য করানো হতো খাজনা পরিশোধ করতে। তবে খাজনা আদায়ে সুষ্ঠুতা প্রণয়নের লক্ষ্যে মোঘল সম্রাট আকবর প্রবর্তন করেন বাংলা সনের। তিনি মূলত আদেশ দেন প্রাচীন বর্ষপঞ্জিতে সংস্কার আনার। সম্রাটের আদেশ মতে সৌর সন এবং আরবি হিজরি সনের ওপর ভিত্তি করে নতুন বাংলা সনের নিয়ম বিনির্মাণ করেন তৎকালীন বাংলার বিখ্যাত জ্যোতির্বিজ্ঞানী ও চিন্তাবিদ ফতেহ উল্লাহ সিরাজি।

১৫৮৪ খ্রিস্টাব্দের ১০ মার্চ বা ১১ মার্চ থেকে শুরু হয় বাংলা সন গণনা। তবে এই গণনা পদ্ধতি কার্যকর করা হয় আকবরের সিংহাসন আরোহণের সময় (৫ই নভেম্বর, ১৫৫৬) থেকে। প্রথমে এই সনের নাম ছিল ফসলি সন। পরে তা পরিচিত হয় বঙ্গাব্দ বা বাংলা বর্ষ নামে। আকবরের সময় থেকেই শুরু হয় পহেলা বৈশাখ উদযাপন। তখন প্রত্যেককে চৈত্র মাসের শেষ দিনের মধ্যে পরিশোধ করতে হতো সকল খাজনা, মাশুল ও শুল্ক। এরপর দিন অর্থাৎ পহেলা বৈশাখে ভূমির মালিকরা নিজ নিজ অঞ্চলের অধিবাসীদেরকে আপ্যায়ন করাতেন মিষ্টান্ন দিয়ে। এ উপলক্ষে আয়োজন করা হতো বিভিন্ন উৎসবের। একসময় এই উৎসবটিই পরিণত হয় একটি সামাজিক অনুষ্ঠানে, যার রূপ পরিবর্তন হয়ে বর্তমানে এই পর্যায়ে এসেছে। তখনকার সময় এই দিনের প্রধান ঘটনা ছিল একটি হালখাতা তৈরি করা। হালখাতা বলতে বোঝানো হয়েছে একটি নতুন হিসাব বই। প্রকৃতপক্ষে হালখাতা হলো বাংলা সনের প্রথম দিনে দোকানপাটের হিসাব আনুষ্ঠানিকভাবে হালনাগাদ করার প্রক্রিয়া। গ্রাম, শহর বা বাণিজ্যিক এলাকা, সকল স্থানেই পুরনো বছরের হিসাব বই বন্ধ করে খোলা হয় নতুন হিসাব বই। এই হালখাতার দিনে দোকানদাররা তাদের ক্রেতাদের আপ্যায়িত করে থাকে মিষ্টদ্রব্য দিয়ে। প্রথাটি এখনও অনেকাংশে প্রচলিত আছে, বিশেষত স্বর্ণ ও কাপড়ের দোকানে।

১৯১৭ সালে প্রথম আধুনিক নববর্ষ উদযাপনের তথ্য পাওয়া যায়। প্রথম মহাযুদ্ধে ব্রিটিশদের বিজয় কামনা করে সে বছর পহেলা বৈশাখে হোম কীর্তন ও পূজার ব্যবস্থা করা হয়। এরপর ১৯৩৮ সালেও একই ধরনের তথ্যের উল্লেখ পাওয়া যায়। পরবর্তীকালে ১৯৬৭ সালের আগে তেমন একটা জনপ্রিয় হয়নি পহেলা বৈশাখ পালনের রীতি। বাংলাদেশে পহেলা বৈশাখ উদযাপন করা হয় আড়ম্বরপূর্ণ উৎসবের মধ্য দিয়ে। নতুন বছরের এ উৎসবের সঙ্গে রয়েছে গ্রামীণ জনগোষ্ঠীর কৃষ্টি ও সংস্কৃতির নিবিড় সম্পর্ক। গ্রামগঞ্জের মানুষ ভোরে ঘুম থেকে ওঠে। নতুন জামাকাপড় পরে বেড়াতে যায় আত্মীয়স্বজন ও বন্ধু-বান্ধবের বাড়িতে। পরিষ্কার করা হয় ঘরবাড়ি-আঙিনা, সাজানো হয় মোটামুটি সুন্দর করে। সেই সঙ্গে থাকে বিশেষ খাবারের ব্যবস্থা।

কয়েকটি গ্রামের মিলিত স্থানের খোলা মাঠে আয়োজন করা হয় বৈশাখী মেলার। মেলাতে বসে নানা রকম কুটিরশিল্পজাত সামগ্রীর পসরা। থাকে নানারকম পিঠেপুলির আয়োজন। অনেক জায়গায় ব্যবস্থা থাকে ইলিশ মাছ দিয়ে পান্তা ভাত খাওয়ার আয়োজন। এই দিনের একটি পুরনো সংস্কৃতি হলো গ্রামীণ ক্রীড়া প্রতিযোগিতা। এর মধ্যে থাকেÑ নৌকাবাইচ, লাঠি খেলা ও কুস্তি উল্লেখযোগ্য। বাংলাদেশে এরকম কুস্তির সবচেয়ে বড় আসরটি বসে ১২ বৈশাখ, চট্টগ্রামের লালদিঘী ময়দানে। এটি জব্বারের বলি খেলা নামে বিশেষভাবে পরিচিত।

এদিকে ঈশা খাঁর সোনারগাঁওয়ে বসে এক ব্যতিক্রমী মেলা, যার নাম বউমেলা। জয়রামপুর গ্রামের মানুষের ধারণা, প্রায় ১০০ বছর ধরে পহেলা বৈশাখে এই মেলার আয়োজিত হয়ে আসছে। পাঁচ দিনব্যাপী এই মেলাটি বসে প্রাচীন একটি বটগাছের নিচে। যদিও হিন্দু ধর্মাবলম্বীরা সেখানে সমবেত হয় সিদ্ধেশ্বরী দেবীর পূজা উপলক্ষে। বিশেষ করে কুমারী, নববধূ, এমনকি জননীরা পর্যন্ত তাঁদের মনস্কামনা পূরণের আশায় এই মেলায় এসে পূজা-অর্চনা করে থাকেন। মিষ্টি ও ধান-দূর্বার সঙ্গে মৌসুমি ফল নিবেদন করেন ভক্তরা। এছাড়া মেলাকে ঘিরে পাঁঠাবলির রেওয়াজও বেশ পুরনো।

তবে কালের বিবর্তনে বদলে যাচ্ছে পুরনো অর্চনার পালা। এখন ভক্তরা কবুতর উড়িয়ে শান্তির বার্তা প্রার্থনা করেন দেবীর কাছে। অন্যদিকে সোনারগাঁ থানার পেরাব গ্রামের পাশে আয়োজন করা হয় আরেকটি মেলার, যার নাম ঘোড়ামেলা। লোকমুখে প্রচলিত আছে, যামিনী সাধক নামের এক ব্যক্তি ঘোড়ায় চড়ে নববর্ষের এই দিনে সবাইকে প্রসাদ দিতেন। তিনি মারা যাওয়ার পর ওই জায়গাতেই বানানো হয় তাঁর স্মৃতিস্তম্ভ। প্রতিবছর পহেলা বৈশাখে স্মৃতিস্তম্ভে হিন্দুরা একটি করে মাটির ঘোড়া রাখে এবং সেখানে আয়োজন করে মেলার। যার কারণে মেলাটির নাম ঘোড়ামেলা। এ মেলার অন্যতম আকর্ষণ হচ্ছে নৌকায় খিচুড়ি রান্না করা। এরপর সেই খিচুড়ি কলাপাতায় করে খায় আবালবৃদ্ধবনিতা সবাই। সকাল থেকেই মেলাকে ঘিরে ঘটতে থাকে নানা বয়সী মানুষের সমাগম। একদিনের এ মেলাটি জমে ওঠে মূলত দুপুরের পর থেকে।

হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের পূজা উপলক্ষে এ মেলার আয়োজন করা হলেও এতে প্রাধান্য থাকে সব ধর্মের মানুষেরই। মেলায় সবচেয়ে বেশি ভিড় লক্ষ করা যায় শিশু-কিশোরদের। মেলাতে বিনোদনের মাধ্যম হিসেবে রাখা হয় নাগরদোলা, পুতুলনাচ ও সার্কাসের। এছাড়া মেলার ক্লান্তি দূর করতে যোগ হয় কীর্তন গান। খোল-করতাল বাজিয়ে এ কীর্তন গানের আসর চলে মধ্যরাত পর্যন্ত।

এদিকে পার্বত্য চট্টগ্রাম জেলায় বসবাসরত আদিবাসীদের মধ্যে চলে বর্ষবরণের নানা আয়োজন। সে অঞ্চলের প্রধান তিনটি ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠীর রয়েছে স্বতন্ত্র বর্ষবরণ উৎসব। এ উৎসবটি ত্রিপুরাদের কাছে বৈসুক, বৈসু বা বাইসু, মারমাদের কাছে সাংগ্রাই ও চাকমা ও তঞ্চঙ্গ্যাদের বিজু নামে পরিচিত। বর্তমানে এ তিন জাতিগোষ্ঠী একত্রে উৎসবটি পালন করে থাকে। উৎসবের নামের আদ্যাক্ষর দিয়ে যার যৌথ নামকরণ করা হয়েছে ‘বৈসাবি’। এ উৎসবের রয়েছে নানা দিক। ত্রিপুরা সম্প্রদায় শিবপূজা ও শিবের কাছে ক্ষমা প্রার্থনার মধ্য দিয়ে পালন করেন ‘বৈসুক’ বা ‘বৈসু’ উৎসব। এদিকে মারমাদের ‘সাংগ্রাই’ উৎসব চলে তিন দিনব্যাপী। উৎসবে মারমাদের সবাই গৌতম বুদ্ধের ছবি নিয়ে নদীর তীরে যান এবং দুধ বা চন্দন কাঠের জল দিয়ে স্নান করান সেটিকে। এরপর আবার ওই ছবিটিকে ফিরিয়ে নিয়ে যাওয়া হয় আগের জায়গায় অর্থাৎ মন্দির বা বাসাবাড়িতে।

আদিকাল থেকে অন্যান্য সম্প্রদায় থেকে ভিন্ন আঙ্গিকে পুরনো বছরকে বিদায় এবং নতুন বছরকে স্বাগত জানাতে এ সাংগ্রাই উৎসব পালন করে আসছে মারমারা। ধারণা করা হয়, ‘সাক্রাই’ মানে সাল শব্দ থেকে ‘সাংগ্রাই’ শব্দটি এসেছে, বাংলায় যা ‘সংক্রান্তি’ নামে পরিচিত। মারমারা ‘সাংগ্রাই জ্যা’র অর্থাৎ মারমা বর্ষপঞ্জি তৈরি মধ্য দিয়ে সাংগ্রাইয়ের দিন ঠিক করে থাকে। ১৩৫৯ খ্রিস্টাব্দের আগে থেকেই এ ‘সাক্রাই’ বা সাল গণনা করা হয়, যা ‘জ্যা সাক্রই’ নামে পরিচিত। অন্যদিকে চাকমা ও তঞ্চঙ্গ্যারা উৎসবটি পালন করে চৈত্রের শেষ দুই দিন ও বৈশাখের প্রথম দিন মিলিয়ে মোট তিন দিন ধরে। এর মধ্যে চৈত্রের শেষ দিনটিতে থাকে এ উৎসবের মূল আকর্ষণ। ওই দিন প্রত্যেকের ঘরে পাঁচ প্রকারের সবজি দিয়ে বিশেষ একপ্রকার খাবার রান্না করা হয়। তাদের বিশ্বাস, এই পাঁচনের দৈব গুণাবলী আছে, যা আসছে বছরের সকল রোগবালাই ও দুঃখ-দুর্দশা দূর করে থাকে। এছাড়া এদিন বিকেলে ঐতিহ্যবাহী ঘিলা, বৌচি ইত্যাদি খেলারও আয়োজন করা হয়। কিশোরী-তরুণীরা নদীর জলে ফুল ভাসায়। তিন দিনের এ উৎসবে ওই সম্প্রদায়ের কেউ কোনো জীবিত প্রাণী হত্যা করে না।

‘বৈসাবি’ উৎসবের মূল আয়োজন হলো জলখেলা। উৎসবটি পার্বত্য অঞ্চলে কমবেশি সবার কাছেই জনপ্রিয়। উৎসবে আদিবাসীরা সবাই সবার দিকে জল ছুঁড়ে আনন্দে মাতেন। তাদের মতে, এ জলের মধ্য দিয়ে ধুয়ে যায় বিগত বছরের সকল দুঃখ, পাপ। জলখেলার আগে অনুষ্ঠিত হয় জলপূজা। মারমা যুবকরা এ উৎসবে তাদের পছন্দের মানুষটির গায়ে জল ছিটিয়ে সবার সামনে প্রকাশ করে তাদের ভালোবাসার কথা। এর মধ্য দিয়ে আন্তরিক হয় পরস্পরের সম্পর্কের বন্ধন।

বাংলাদেশে পহেলা বৈশাখের মূল আয়োজনটি হয় রাজধানী ঢাকায়। এ দিনের মূল অনুষ্ঠানের কেন্দ্রবিন্দু সাংস্কৃতিক সংগঠন ছায়ানটের গানের মাধ্যমে নতুন বছরের সূর্যকে আহ্বান। পহেলা বৈশাখ সূর্যোদয়ের সঙ্গে সঙ্গে ছায়ানটের শিল্পীরা সম্মিলিত কণ্ঠে গান গেয়ে নতুন বছরকে আহ্বান জানান। স্থানটির পরিচিতি রমনার বটমূল হলেও প্রকৃত পক্ষে যে গাছের ছায়ায় মঞ্চটি তৈরি হয় সেটি বটগাছ নয়; অশ্বত্থ গাছ। পাকিস্তানি শাসকগোষ্ঠীর নিপীড়ন ও সাংস্কৃতিক সন্ত্রাসের প্রতিবাদে ১৯৬৭ সাল থেকে ছায়ানট এই বর্ষবরণ অনুষ্ঠান করে আসছে।

বৈশাখী উৎসবের একটি আবশ্যিক অঙ্গ মঙ্গল শোভাযাত্রা। বাঙালির বর্ষবরণের আনন্দ আয়োজনে মিশে আছে এ শোভাযাত্রার নাম। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা ইন্সটিটিউটের উদ্যোগে প্রতি বছরই পহেলা বৈশাখে অর্থাৎ বাংলা পঞ্জিকার প্রথম মাস বৈশাখের ১ তারিখ তথা বাংলা নববর্ষে অনুষ্ঠিত হয় এ মঙ্গল শোভাযাত্রা। বৈশাখের সকালে এ শোভাযাত্রাটি ঢাকায় স্বতঃস্ফূর্তভাবে বের হয়ে শহরের বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে আবার শেষ হয় চারুকলা ইন্সটিটিউটে এসে। এই শোভাযাত্রায় ফুটিয়ে তোলা হয় গ্রামীণ জীবন এবং আবহমান বাংলাকেও। শোভাযাত্রায় অংশ নেয় চারুকলার শিক্ষক-শিক্ষার্থী ছাড়াও বিভিন্ন শ্রেণী-ধর্ম-বর্ণ-গোত্র-পেশার নানা বয়সের লাখো মানুষ। এই শোভাযাত্রায় বহন করা হয় বিভিন্ন ধরনের প্রতীকী শিল্পকর্ম। থাকে বাংলা সংস্কৃতির পরিচয়বাহী নানা প্রতীকী উপকরণ, রং-বেরংয়ের মুখোশ ও বিভিন্ন প্রাণীর প্রতিলিপি।

১৯৮৯ সাল থেকে শুরু হওয়া এ মঙ্গল শোভাযাত্রা নববর্ষ উদযাপনের একটি অন্যতম আকর্ষণ হয়ে স্থান করে আছে বাঙালির মন ও মননে। ঢাকায় আয়োজিত প্রথম আনন্দ শোভাযাত্রাটি দৃষ্টি আকর্ষণ করে জনমানুষের। সকালে চারুকলার শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা পহেলা বৈশাখে এ শোভাযাত্রা বের করে। শোভাযাত্রায় সেইবার স্থান পায় বিশালকায় চারুকর্ম পাপেট, হাতি ও ঘোড়াসহ বিচিত্র সাজসজ্জা। থাকে বাদ্যযন্ত্র ও নৃত্য। তারপরের বছরও চারুকলার সামনে থেকে বের হয় আনন্দ শোভাযাত্রা। তবে সংবাদপত্রের খবর অনুযায়ী জানা যায়, সে বছর নববর্ষের সকালে চারুকলা ইন্সটিটিউট থেকে বর্ণাঢ্য আনন্দ মিছিল বের করে চারুশিল্পী সংসদ। শুরুতে চারুকলার এ শোভাযাত্রাটির নাম মঙ্গল শোভাযাত্রা ছিল না। এর নাম ছিল বর্ষবরণ আনন্দ শোভাযাত্রা।

১৯৯৬ সাল থেকে চারুকলার এই আনন্দ শোভাযাত্রা পরিচিত হয় মঙ্গল শোভাযাত্রা নামে। তবে বর্ষবরণ উপলক্ষে আনন্দ শোভাযাত্রা ১৯৮৯ সালে শুরু হলেও এর ইতিহাস আরো কয়েক বছরের পুরানো। ১৯৮৬ সালে ‘চারুপীঠ’ নামের একটি প্রতিষ্ঠান যশোরে প্রথমবারের মতো নববর্ষ উপলক্ষে আনন্দ শোভাযাত্রার আয়োজন করে। যশোরের সেই শোভাযাত্রায় ছিল পাপেট, বাঘের প্রতিকৃতি, পুরানো বাদ্যসহ আরো অনেক শিল্পকর্ম। শুরুর বছরেই যশোরে সেই শোভাযাত্রা ব্যাপক আলোড়ন সৃষ্টি করে। পরবর্তী সময়ে সেই শোভাযাত্রার আদলেই ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা থেকে শুরু হয় বর্ষবরণ আনন্দ শোভাযাত্রা।

যশোরে প্রথম যে শোভাযাত্রাটি বের হয় তার উদ্যোক্তা ছিলেন চারুপীঠের প্রতিষ্ঠাতা তরুণ শিল্পী মাহবুব জামাল শামীম, হিরণ¥য় চন্দ, ছোট শামীমসহ কয়েকজন। এর আগে এই উপমহাদেশে বাংলা নববর্ষ উপলক্ষে শোভাযাত্রার তেমন একটা ইতিহাস পাওয়া যায় না। এরপর ১৯৯০ সালে বরিশাল ও ময়মনসিংহ শহরে বের হয় মঙ্গল শোভাযাত্রা। এ প্রসঙ্গে চিত্রশিল্পী রফিকুন নবীর কথা তথ্যসূত্র হিসেবে উল্লেখ করা যেতে পারে। তিনি বলেন, “১৯৮৬ সালে যশোরের চারুপীঠের শামীম ও হিরণ¥য় চন্দের উদ্যোগে প্রথম পহেলা বৈশাখ উপলক্ষে সাজগোজ করে শোভাযাত্রা বের করা হয়। চারুকলা ইন্সটিটিউট ও চারুশিল্পী সংসদের উদ্যোগে আমরা ১৯৮৯ সালে ঢাকায় মঙ্গল শোভাযাত্রা বের করি। তবে যশোরের চারুপীঠ এ ক্ষেত্রে প্রশংসার দাবিদার। তাদের চেতনা থেকেই আমরা বাংলা নববর্ষ উপলক্ষে শোভাযাত্রা শুরু করি।”

এদিকে প্রথম শোভাযাত্রার স্মৃতিচারণ করে শিল্পী শামীম বলেন, “একুশে ফেব্রুয়ারির চেতনা থেকেই আমরা ওই সময় নববর্ষ উদযাপনে মঙ্গল শোভাযাত্রা বের করি। একুশে ফেব্রুয়ারির প্রভাত ফেরিতে অংশ নিয়ে আমরা শহীদ মিনারে গিয়ে শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করি। আমার চিন্তা হয়, ভাষাতো হলো; কিন্তু আমাদের কৃষ্টি, ইতিহাস ঐতিহ্য কোথায়? বাঙালি হতে গেলে আরো কিছু করা দরকার। এই চিন্তা থেকে আমি শিল্পী হিরণ¥য় চন্দ ও ছোট শামীম মিলে সিদ্ধান্ত নিই বাংলা নববর্ষ উপলক্ষে শহরে মঙ্গল শোভাযাত্রা বের করব। এক মাস আগে থেকেই আমরা প্রস্তুতি গ্রহণ করি। ছোট শামীম প্রজাপতি, পাখি তৈরি করে। হিরণ¥য় চন্দ তৈরি করে মুকুট। চারুপীঠের ৩০০ শিক্ষার্থীকে আমরা নাচ গানের প্রশিক্ষণ দিই। কেমন পোশাক হবে তাও ঠিক করি। এরপর যশোর সাহিত্য পরিষদের কবি-সাহিত্যিকদের নিয়ে আমরা ১৯৮৬ সালে বাংলা ১৩৯২ বর্ষবরণ উপলক্ষে মঙ্গল শোভাযাত্রা বের করি। ঢাক, ঢোল, সানাই বাজনাসহ বর্ণাঢ্য সেই শোভাযাত্রা এম এম কলেজের পুরাতন ছাত্রাবাস চারুপীঠ কার্যালয় থেকে শুরু হয়। এরপর দড়াটানা, বড়বাজার, চৌরাস্তা, চুয়াডাঙ্গা বাসস্ট্যান্ড হয়ে ফের চারুপীঠে এসে ওই শোভাযাত্রাটি শেষ হয়। পরবর্তী সময়ে আমরা চারুকলার ছাত্ররা মিলে ১৯৮৯ সালে প্রথম ঢাকায় শোভাযাত্রা বের করি। বরিশাল, ময়মনসিংহ জেলায় ১৯৯০ সালে যে শোভাযাত্রা বের হয়, সেখানেও চারুকলার ছাত্রদের গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা ছিল।”

তথ্য-উপাত্তে দেখা যায়, ঢাকায় আয়োজিত প্রথম আনন্দ শোভাযাত্রায় ছিল পাপেট, ঘোড়া, হাতি। ১৯৯০-এর আনন্দ শোভাযাত্রায়ও স্থান পায় নানা ধরনের শিল্পকর্মের প্রতিকৃতি। ১৯৯১ সালে চারুকলার শোভাযাত্রা জনপ্রিয়তায় নতুন মাত্রা লাভ করে। চারুকলা ইন্সটিটিউটের শিক্ষার্থী, শিক্ষক-শিক্ষিকা ও শিল্পীদের উদ্যোগে হওয়া সেই শোভাযাত্রায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের তৎকালীন উপাধ্যক্ষ, বিশিষ্ট লেখক-শিল্পীসহ সাধারণ নাগরিকরাও অংশ নেয়। শোভাযাত্রায় স্থান পায় বিশালকায় হাতি, বাঘের প্রতিকৃতির কারুকর্ম। কৃত্রিম ঢাক আর অসংখ্য মুখোশখচিত প্ল্যাকার্ডসহ মিছিলটি নাচে গানে উৎফুল্ল পরিবেশ সৃষ্টি করে। ১৯৯২ সালের আনন্দ শোভাযাত্রার সামনে রং-বেরংয়ের পোশাক পরা ছাত্র-ছাত্রীদের কাঁধে ছিল বিরাট আকারের কুমির। বাঁশ এবং বহু বর্ণের কাপড় দিয়ে তৈরি করা হয়েছিল সেই কুমিরটি।

১৯৯৩ সালে ‘১৪০০ সাল উদযাপন কমিটি’ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা ইন্সটিটিউটের সামনে থেকে বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা বের করে। শোভাযাত্রার আকর্ষণ ছিল বাঘ, হাতি, ময়ূর, ঘোড়া, বিভিন্ন ধরনের মুখোশ। চারুকলার সামনে থেকে শোভাযাত্রাটি শুরু হয়ে শাহবাগ মোড় দিয়ে শিশু একাডেমি হয়ে আবার চারুকলায় এসে শেষ হয়।

এর এক বছর পর ১৯৯৪ সালে মঙ্গল শোভাযাত্রা বের করা হয় পশ্চিমবঙ্গের বনগাঁও শহরে ও শান্তিনিকেতনে। গত কয়েক বছর ধরে নববর্ষ উপলক্ষে দেশব্যাপী মঙ্গল শোভাযাত্রা বের করা হচ্ছে। তবে মানিকগঞ্জের সিংগাইর থানার সারাইল গ্রামের সিদ্ধাবাড়ীর প্রাচীন মেলায় এক ধরনের লোকমিছিল বের করা হতো বলে জানা যায়। অনেকের মতে, এই লোকমিছিলের বিবর্তনরূপ এ শোভাযাত্রা। তবে যাই হোক সময় পাল্টেছে অনেক। একথা আজ স্বীকার করতেই হয়, শোভাযাত্রায় প্রদর্শিত প্রতিমূর্তিগুলো নিছক কেবল পশুপাখির অবয়ব মাত্র নয়; বরং এর সাথে মিলেমিশে আছে রাজনৈতিক বাস্তবতা। চলমান রাজনীতির ব্যঙ্গ-বিদ্রূপের হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহৃত এ শোভাযাত্রা নিঃসন্দেহে অভিনব ও বিশেষ তাৎপর্যপূর্ণ।

বৈশাখের প্রথম দিনে একদিকে লাল-সাদা রঙের সংমিশ্রণে সেজে ওঠে বাঙালি, উদযাপন করে আনন্দ। তারই পাশাপাশি সমসাময়িক সমাজ-বাস্তবতার পরিপ্রেক্ষিতে সামাজিক-রাজনৈতিক-অর্থনৈতিক নানা অসংগতির প্রতিবাদের স্বরূপ হিসেবে মূর্ত হয় চিত্রকলার ভাষিক দিক। মঙ্গল শোভাযাত্রায় শোভিত প্রতিটি প্রতিমূর্তিই তারই সাক্ষ্য বহন করে। দুষ্টের দমন আর সৃষ্টের পালন করার প্রতীকী হিসেবে তৈরি করা হয় দানবের প্রতিকৃতি, আর পাশাপাশি শুভ্রতার প্রতীক হিসেবে গড়া হয় ডানামেলা বলাকা। শোভা পায় লক্ষ্মী পেঁচা, সরাচিত্র, বাহারি রঙে সজ্জিত নানা উপাত্ত। বাঙালিরা সেদিন আপন সংস্কৃতিতে নিজেদেরকে রাঙিয়ে তুলে নানা সাজে। বিশ্বের সকল প্রান্তের সকল বাঙালি এ দিনে নতুন বছরকে বরণ করে নেয়, ভুলে যাওয়ার চেষ্টা করে অতীত বছরের সকল দুঃখ-গ্লানি।

অঞ্জন আচার্য, কবি, প্রাবন্ধিক, সাংবাদিক

মুক্তমত বিভাগে প্রকাশিত লেখার বিষয়, মতামত, মন্তব্য লেখকের একান্ত নিজস্ব। sylhettoday24.com-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে যার মিল আছে এমন সিদ্ধান্তে আসার কোন যৌক্তিকতা সর্বক্ষেত্রে নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে sylhettoday24.com আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো দায় গ্রহণ করে না।

আপনার মন্তব্য

লেখক তালিকা অঞ্জন আচার্য অসীম চক্রবর্তী আজম খান ১০ আজমিনা আফরিন তোড়া আফসানা বেগম আবু এম ইউসুফ আবু সাঈদ আহমেদ আব্দুল করিম কিম ২০ আব্দুল্লাহ আল নোমান আব্দুল্লাহ হারুন জুয়েল আমিনা আইরিন আরশাদ খান আরিফ জেবতিক ১২ আরিফ রহমান ১৪ আরিফুর রহমান আলমগীর নিষাদ আলমগীর শাহরিয়ার ৩৯ আশরাফ মাহমুদ আশিক শাওন ইমতিয়াজ মাহমুদ ৫০ ইয়ামেন এম হক এখলাসুর রহমান ১৯ এনামুল হক এনাম ২৫ এমদাদুল হক তুহিন ১৯ এস এম নাদিম মাহমুদ ১৮ ওমর ফারুক লুক্স কবির য়াহমদ ৩১ কাজল দাস ১০ কাজী মাহবুব হাসান খুরশীদ শাম্মী ১১ গোঁসাই পাহ্‌লভী ১৪ চিররঞ্জন সরকার ৩৫ জফির সেতু জহিরুল হক বাপি ২৮ জহিরুল হক মজুমদার জান্নাতুল মাওয়া জাহিদ নেওয়াজ খান জুয়েল রাজ ৭৪ ড. এ. কে. আব্দুল মোমেন ড. কাবেরী গায়েন ২২ ড. শাখাওয়াৎ নয়ন ডা. সাঈদ এনাম ডোরা প্রেন্টিস তপু সৌমেন তসলিমা নাসরিন তানবীরা তালুকদার দিব্যেন্দু দ্বীপ দেব দুলাল গুহ দেব প্রসাদ দেবু দেবজ্যোতি দেবু ২৬ নিখিল নীল পাপলু বাঙ্গালী পুলক ঘটক ফকির ইলিয়াস ২৪ ফজলুল বারী ৬০ ফড়িং ক্যামেলিয়া ফরিদ আহমেদ ৩২ ফারজানা কবীর খান স্নিগ্ধা বদরুল আলম বন্যা আহমেদ বিজন সরকার বিপ্লব কর্মকার ব্যারিস্টার তুরিন আফরোজ ১৫ ভায়লেট হালদার মারজিয়া প্রভা মাসকাওয়াথ আহসান ১০২ মাসুদ পারভেজ মাহমুদুল হক মুন্সী মিলন ফারাবী মুনীর উদ্দীন শামীম ১০ মুহম্মদ জাফর ইকবাল ১১২ মো. মাহমুদুর রহমান মো. সাখাওয়াত হোসেন মোছাদ্দিক উজ্জ্বল মোনাজ হক রণেশ মৈত্র ১০৮ রতন কুমার সমাদ্দার রহিম আব্দুর রহিম ১৬ রাজেশ পাল ১৯ রুমী আহমেদ রেজা ঘটক ৩২ লীনা পারভীন শওগাত আলী সাগর শাখাওয়াত লিটন শামান সাত্ত্বিক শামীম সাঈদ শারমিন শামস্ ১৪ শাশ্বতী বিপ্লব শিতাংশু গুহ শিবলী নোমান শুভাশিস ব্যানার্জি শুভ ২৪ শেখ মো. নাজমুল হাসান ২১ শেখ হাসিনা শ্যামলী নাসরিন চৌধুরী সঙ্গীতা ইমাম সঙ্গীতা ইয়াসমিন ১৬ সহুল আহমদ সাইফুর মিশু সাকিল আহমদ অরণ্য সাব্বির খান ২৮

ফেসবুক পেইজ