আজ শুক্রবার, ১৩ ডিসেম্বর, ২০১৯ ইং

গণজাগরণ: সিলেট প্রেক্ষিত

কবির য়াহমদ  

গণজাগরণ

রাজাকারদের বিরুদ্ধে দীর্ঘদিনের পুঞ্জিভূত ঘৃণার প্রকাশ ঘটে দুই হাজার তেরোর গণজাগরণে যখন মিরপুরের কসাই কাদের মোল্লাকে লজ্জাজনকভাবে মোটে যাবজ্জীবন কারাদণ্ডাদেশ দেওয়া হয়। জনতার অভাবিত এ বিস্ফোরণ মনে করিয়ে দেয় মানুষ জাগতে জানে এখনও; জাগাতে জানে এখনও! গণমানুষের এই শক্তি এবং প্রবল উদ্দমই প্রকৃত বাংলাদেশ। এমন অভূতপূর্ব গণজাগরণ ছিল ধারণার বাইরে কিন্তু আমাদের ইতিহাস সাক্ষ্য দেয় বাঙালি জাতি সময়ে সময়ে যখন জেগে ওঠে তখনই তার ফল ঘরে নিয়েই তবে ঘরে ফেরে। এটা অতি আবেগিকথন নয় বাস্তবতা থেকেই নেওয়া।

 

অনেককেই বলতে দেখা যায় বাঙালির জাগরণকালের সময় পার্থক্য দুদশক। দুই দশক সময়কাল পর পর তারা জেগে ওঠে তুমুল বিক্রমে। বায়ান্ন, একাত্তর, নব্বই, তেরো-এই জাগরণের বছরওয়ারি হিসাব। প্রশ্ন তবে এর বাইরে কি জেগে ওঠেনি বাঙালি জাতি? হ্যাঁ, অতি অবশ্যই জেগেছে কিন্তু ফল আসতে সময় নিয়েছে দুই দশক সময়কাল। বায়ান্নতে বাংলাকে মাতৃভাষা প্রতিষ্ঠার দাবিতে আন্দোলন, ঊনষত্তর-একাত্তরে গণঅভ্যুত্থান এবং বাংলাদেশ নামক রাষ্ট্রপ্রতিষ্ঠা, নব্বইয়ে স্বৈরাচারবিরোধী আন্দোলনের মাধ্যমে দেশে গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠার পর এবার রাজাকারমুক্ত বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠার আন্দোলন। আমাদের সমৃদ্ধ ইতিহাস সাক্ষ্য দিচ্ছে আমরা কখনওই ব্যর্থ হইনি। ইতিহাসের এ অধ্যায়ের দিকে তাকালে দেখা যায় আমাদের ব্যর্থতা নাই-তাই সফল হবোই!

 

সারা দেশ কাঁপানো প্রজন্ম আন্দোলন ২০১৩ শুরু হয়নি কোন রাজনৈতিক নেতানেত্রীর হাত ধরে। কিন্তু এর মধ্যে রয়েছে এক প্রবল রাজনৈতিক চেতনা যা দেশকে ধারণ করে। অরাজনৈতিক মানুষের দেশপ্রেম, রাজনৈতিক চিন্তা-চেতনা দিয়ে এই আন্দোলন হুট করে রাস্তায় নেমে আসেনি। এর আগ থেকে বছরের পর বছর ধরে সাইবার বিশ্বে এ নিয়ে তুমুল আন্দোলন চলছে। অনলাইন বিশেষ করে ব্লগে এ নিয়ে অনেক আগে থেকেই লেখালেখি চলছে। অনেকেই করে চলছে মুক্তিযুদ্ধ নিয়ে গবেষণা। এই লেখালেখি-গবেষণা করছে তারা যারা মুক্তিযুদ্ধ দেখেনি কিন্তু অন্তরে ধারণ করে মহান মুক্তিযুদ্ধের চেতনা। যার বীজ বপন করেছিলেন একজন জাহানারা ইমাম।

 

জাহানারা ইমাম নিজে কোন রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব ছিলেন না। তিনি ছিলেন নির্দলীয় রাজনীতি সচেতন এক ব্যক্তিত্ব। ১৯৯২ সালে যখন মুক্তিযুদ্ধের বিরোধিতাকারি দল জামায়াতে ইসলামী পাকিস্তানি নাগরিক গোলাম আযমকে তাদের আমীর নিয়োগ দেয় তখনই তিনি যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের দাবিতে এক প্রবল গণআন্দোলন গড়ে তুলেন। তাঁর এই আন্দোলনে যারা সহযাত্রী ছিলেন তাদের সবাই-ই ছিলেন স্ব স্ব ক্ষেত্রে প্রতিষ্ঠিত সমাজের প্রতিষ্ঠিত ব্যক্তি। আন্দোলনের এক পর্যায়ে তিনি গণআদালত গঠন করেন এবং এই গণআদালতের রায়ে গোলাম আযমসহ যুদ্ধাপরাধীদের ফাঁসির আদেশ দেন এবং প্রতীকী ফাঁসি দেওয়া হয় যুদ্ধাপরাধীদের। জাহানারা ইমামের এই গণআদালত এবং ফাঁসির রায় যদিও ছিল প্রতীকী এক আয়োজন তবুও এই আন্দোলন এবং রায় সাড়া পড়ে সমাজের সর্বত্র। প্রবল বিরূপ রাজনৈতিক পরিবেশ থাকায় সে আন্দোলন আর এগুতে পারেনি এবং বিচারের মুখোমুখি হয়নি যুদ্ধাপরাধীরা।

 

দুঃখের বিষয় জাহানারা ইমামের এই আন্দোলন আর বেশিদুর এগুতে পারেনি বৈরী সরকারের কারণে। সে সময় ক্ষমতায় ছিল বিএনপি সরকার। মুক্তিযুদ্ধের চেতনাধারী দলগুলো প্রথমে এগিয়ে এলেও সময়ে সময়ে তারা সরে যায় এই আন্দোলন থেকে। তাই বাইরে থেকে তাঁকে আঘাত করার লোকের অভাব ছিল না। তৎকালীন বিএনপি সরকার জাহানারা ইমামসহ গণআদালতের ২৪জন উদ্যোক্তার বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহের মামলা করে। জাহানারা ইমাম এই রাষ্ট্রদ্রোহের মামলা মাথায় নিয়েই মৃত্যুবরণ করেন। রাজনৈতিক সহযোগিতা না থাকায় মুক্তিযুদ্ধের চেতনাদীপ্ত এই আন্দোলন চূড়ান্ত সফলতার আগেই শেষ হয়ে যায়। তবু এর রেশ যে থেকে যায় সবখানে তার প্রমাণ এই প্রজন্মের ২০১৩-র আন্দোলন। যদিও যুদ্ধাপরাধীদের বিচার চলাকালীন সময়ে এবং কসাই কাদের মোল্লার বিরুদ্ধে দেওয়া লঘু দণ্ডাদেশের বিরুদ্ধে হঠাৎই ফুঁসে ওঠা এক আন্দোলন ছিল তবু বলা যায় এর বীজ প্রোথিত ছিল জাহানারা ইমামের সেই আন্দোলন থেকে। বাংলাদেশের মানুষের না পাওয়ার হতাশা আর বার বার স্বপ্নভঙ্গের যে ক্ষরণ তা প্রকাশ হয়েছে এই প্রজন্ম আন্দোলনের মাধ্যমেই।

 

প্রজন্ম ২০১৩-র এই আন্দোলনের শুরু হয় কসাই কাদেরের রায়ের পর থেকে। ৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৩ যুদ্ধাপরাধী কসাই কাদের ওরফে কাদের মোল্লার বিরুদ্ধে আনীত ছয়টি অভিযোগের মধ্যে পাঁচটি অভিযোগ সন্দেহাতীতভাবে প্রমাণিত হবার পরও তার শাস্তি দেওয়া হয় যাবজ্জীবন। এটা অবিশ্বাস্য এবং অকল্পনীয় ছিল দেশবাসীর কাছে। এই রায় হতাশার কফিনে শেষ পেরেকটি ঠুকে দেয়-কাদের মোল্লাকে যেখানে কসাই নামে চিনতো একাত্তরের মিরপুর সেখানে তার শাস্তি কিভাবে হয় মাত্র যাবজ্জীবন? তাহলে কত লোককে হত্যা করলে ফাঁসির আদেশ হতে পারে? কত মা-বোনকে অসম্মান করলে শাস্তি হতে পারে মৃত্যুদণ্ড? নতুন প্রজন্ম মনে করেছে সুবিচার হয়নি এবং হয়ত ভিন্ন কোনও উদ্দেশ্য নিয়ে এগুচ্ছে কেউ রাজনৈতিকভাবে। সে থেকে শুরু! ঢাকার শাহবাগে রাস্তায় নেমে আসে কয়েকজন অনলাইন এক্টিভিস্ট ও ব্লগার। তারা হাতে হাত ধরে রাস্তায় দাঁড়িয়ে যায় এই রায়ের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ জানাতে। আস্তে আস্তে এক সময়ে কয়েকজন মানুষের এই লাইন হয়ে যায় হাজার মানুষে। হাজার থেকে লক্ষ। ছড়িয়ে পড়ে দেশের সর্বত্র!

 

কেতাবের ভাষায় লিখা ছিল লঘু পাপে গুরু দণ্ডের কথা অথচ কি নির্লজ্জভাবে প্রত্যক্ষ করা হলো গুরু পাপের লঘু দণ্ডের নিকাশ! তবে কি জীবনের কোন মূল্য ছিল না মিরপুরবাসীর যারা কাদের মোল্লার হাতে প্রাণ হারিয়েছে, তবে কি কোন সভ্রমের কোন মূল্য ছিল না যারা অসম্মানিত হয়েছিল কাদের মোল্লার হাতে? 


কসাই কাদেরের যাবজ্জীবন কারাদণ্ডের রায় হবার পর সবাই অনুধাবন করতে পারে এ নিছক এক মস্করা হয়েছে জনমানুষের সঙ্গে, প্রতারণা করা হয়েছে মুক্তিযুদ্ধ, শহিদ মুক্তিযোদ্ধাদের সঙ্গে এবং সম্ভ্রম হারানো আমাদের আত্মজদের সঙ্গে। তাই আমরা যারা অনলাইন এক্টিভিস্ট-ব্লগার এবং যারা মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে মনে-প্রাণে ধারণ করি তারা বসে থাকতে পারিনি। চেতনার ডাকে আমরাও সাড়া দিয়েছি স্ব স্ব অবস্থান থেকে। এখানে আমাদের কোন রাজনৈতিক মতাদর্শ এবং পরিচয় নেই-খুব সরল-সহজ অর্থে মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী নতুন প্রজন্ম। সিদ্ধান্ত নিই আমাদের কিছু একটা করতেই হবে।

 

কাদের মোল্লার রায়ের দিন সিলেটের প্রগতিশীল সংস্কৃতিকর্মীদের আয়োজনে আমরা সিলেট কেন্দ্রীয় শহিদ মিনারে মিলিত হই। রাজাকারের ফাঁসিতে আনন্দ মিছিল হওয়ার কথাই ছিল যেমনটা আমরা করেছিলাম বাচ্চু রাজাকার ওরফে আবুল কালাম আযাদের রায়ের দিন। কিন্তু যখন রায় ঘোষণা করা হয় তখন বিস্ময়ে বিমূঢ় হয়ে যাই। তৎক্ষণাৎ এক প্রতিবাদ সভা হয়। বরাবরের মত কিছু বক্তা ক্ষোভ প্রকাশ করেন তাদের বক্তৃতার মাধ্যমে। কেউ কেউ আবার স্বাভাবিকভাবেই খেয়াল রাখছিলেন প্রতিবাদী কোন কর্মসূচি যেন সরকারের সঙ্গে সাংঘর্ষিক কিছু না হয়!

 

বিক্ষুব্ধ, হতবিহ্বল এই উপস্থিতির মধ্যে অনেকেই তাৎক্ষণিক মিছিলের প্রস্তাব করেন। আমরা নিজেরা নিজেদের মধ্যে আলোচনা করি। তবে এই আলোচনা অধিকাংশ ক্ষেত্রেই স্বাভাবিক স্বরে হচ্ছিল না। আমাদের নিজেদের অনলাইনি অবস্থান, পরিচিত গণ্ডি এবং বিগত কিছু ইস্যুতে রাজপথে বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করেছিলাম। নিজেদের মধ্যে আলোচনা করি বিক্ষিপ্তভাবে। উপস্থিতির অনেকেই নিজ নিজ অবস্থানে থেকে নিজ নিজ সার্কেলের সবার সঙ্গে আলোচনা করছিল। আমাদের বিক্ষুব্ধ একটা অংশ সিনিয়রদের সঙ্গে আলোচনা করতে যাই এবং প্রস্তাব করি প্রতিবাদী বিক্ষোভ মিছিলের। সঙ্গে সঙ্গে কিছু কিছু জায়গা থেকে না-না রব ওঠে। অনেকে আবার বলে ওঠেন মিছিল করে কী হবে? আমি, দেবু, বিনয়, একুশ, নাজিম, বাতিন, অসীম একমত হয়ে যাই মিছিল করতে। বিক্ষোভ সমাবেশের শেষ বক্তা যখন বক্তব্য দিচ্ছিলেন তখন দেবু অসীমকে বলে বক্তব্য শেষ হবার সঙ্গে সঙ্গেই কেউ যেন স্লোগান ধরে। আমাদের মধ্যকার কেউ শ্লোগানে পারদর্শী কেউ ছিল না। অসীম-পাপলুকে গিয়ে বলে স্লোগান ধরতে। পাপলু বিক্ষোভ সমাবেশ শেষ হবার আগেই স্লোগান ধরে। শহিদমিনারের ভেতরে থাকাদের কয়েকজন বাদে সবাই-ই নেমে আসে রাস্তায়। সিলেটের রাজপথ কাঁপিয়ে মিছিলটি শহিদমিনার থেকে শুরু করে কোর্ট পয়েন্ট হয়ে আবারও শহিদমিনারে এসে শেষ হয়। প্রাথমিক বিক্ষোভ আর প্রতিবাদ পর্বের সমাপ্তি টেনে সবাই চলে যায় স্ব স্ব ঠিকানায়!

 

শহিদমিনার থেকে ফিরে ৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৩ রাতে আমরা নিজেদের মধ্যে আলাপ-আলোচনা করি। ফেসবুক চ্যাটে একে অন্যের সঙ্গে নিজেদের ক্ষোভের কথা জানাই। ব্যক্তিগত স্ট্যাটাসে আমাদের অনেকেই তাদের প্রতিবাদী লেখনি অব্যাহত রাখে। টিভি চ্যানেল মাধ্যমে জানা যায় শাহবাগে লোক জড়ো হচ্ছে রায়ের প্রতিবাদে। আমাদের কেউ কেউ সে রাতেই সিলেট শহিদমিনারে অবস্থান নেওয়ার প্রস্তাব দেয় কিন্তু সে পথে রাতেই পা বাড়াইনা।

 

ব্যক্তিগত আলাপচারিতা শেষে অনলাইনে বিস্তর আলোচনা করি। আমি, দেবাশীষ দেবু, বিনয় ভদ্র, রাজীব রাসেল, একুশ তাপাদার, আবদুল বাতিন, অসীম দাস, দলছুট শুভ, পাপলু বাঙালি, ন. নাজিম, সৈয়দ রাসেল নিজেদের মধ্যে। আমাদের মধ্যকার গ্রুপ আলোচনা অব্যাহত ছিল বেশ কয়েকদিন ধরেই কারণ পাকিস্তানে ক্রিকেট দল পাঠাবার সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ, নারীর বিরুদ্ধে সহিংসতার বিরুদ্ধে প্রতিবাদসহ বেশ কয়েকটি কর্মসূচি আমরা নিয়েছিলাম এভাবে ফেসবুকে আলোচনার মাধ্যমেই। এই গ্রুপ আলোচনা শুধু এই কর্মসূচির জন্যে কয়েকজনকে সংযুক্ত করেছিলাম যাতে করে বিভিন্ন মহলে এই কর্মসূচিকে ছড়িয়ে দেওয়া যায়। আমাদের ক্ষুব্ধ তারুণ্যদীপ্ত মন কোনক্রমেই মেনে নিতে পারছিল না এই রায়। সিদ্ধান্ত নিই কিছু একটা করতেই হবে। সে হিসেবে সিদ্ধান্ত হলো রাস্তায় অবস্থান নেব। এমন কর্মসূচি সবাইকে জানাতে প্রাথমিক সিদ্ধান্ত ফেসবুকে ইভেন্ট। বিনয় ভদ্র সঙ্গে সঙ্গেই ফেসবুকে ইভেন্ট প্রস্তুত করে ফেলেন। শুরু হলো ইনভাইট এবং একই সঙ্গে নিজেদের ক্ষোভের প্রকাশ। মানুষদের জড়ো করতে এবং ফেসবুকের বাইরের লোকদের জানাতে বিশেষ করে সিলেটের নাট্য, সংস্কৃতিকর্মি, সাহিত্যকর্মি এবং সর্বস্তরের ছাত্র-শিক্ষক-জনতাকে এই কর্মসূচি সম্পর্কে অবগত করতে। ফোনে, মেসেজে এ বার্তাটি পৌঁছে দিই শহিদমিনারে আমরা প্রতিবাদী অবস্থান নেব। মুহুর্তেই সংবাদটি ছড়িয়ে যায়। সবাই যার যার অবস্থান থেকে স্ব স্ব উদ্যোগে একে অন্যকে জানাতে থাকে। আমি নিজেও একাধিক মেসেজ পেয়েছিলাম একাধিকজনের কাছ থেকেও।

 

রাতের সিদ্ধান্ত অনুযায়ি ৬ তারিখে আমাদের একটি টিম শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (শাবি)তে যায়। সেখানে আমরা কথা বলি অধ্যাপক মুহম্মদ জাফর ইকবাল, শাবি শিক্ষক সমিতি, চোখ ফিল্ম সোসাইটি, সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোট শাবি শাখা এবং শাবির সর্বস্তরের শিক্ষক এবং ছাত্রদের সঙ্গে। আমাদের আহ্বানে সাড়া দিয়ে শাবির ছাত্র-শিক্ষকেরা তাদের পূর্বঘোষিত কর্মসূচির পরিবর্তন করে আমাদের সঙ্গে একাত্মতা প্রকাশ করেন। আমরা যখন শাবিতে যাই তখন সেখানে দেখি জাফর স্যারের নেতৃত্বে অগুণতি শিক্ষার্থি বিশ্ববিদ্যালয়ে অবস্থান কর্মসূচি পালন করছে স্লোগান আর জাগরণের গানের মাধ্যমে। জাফর স্যারকে যখন আমাদের অবস্থান কর্মসূচির কথা জানাই তখন তিনি বলেছিলেন-তোমরা ইয়াংম্যান তোমরাই বলো কী করতে হবে। আমি তোমাদের সঙ্গে আছি এবং যেভাবে বলবে সেভাবেই কাজ করবো। শাবিতে অবস্থান নেওয়া শিক্ষক-শিক্ষার্থিদের উদ্দেশ্যে আমাদের পক্ষে বক্তব্য রাখে একুশ তাপাদার। আমরা শাবি পরিবারের সঙ্গে পরিচিত ছিলাম ভাস্কর্য নির্মাণের স্বপক্ষে কাজ করার সুবাদে এবং তারা আমাদের ওপর আস্থা রেখেছিল রাজাকারদের সর্বোচ্চ শাস্তি চাওয়া আর পূর্ববর্তি কিছু কর্মসূচির কারণেও।

 

আমাদের অন্যান্য টিমগুলো এম.সি কলেজ, কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়, সরকারি কলেজ, মদনমোহন কলেজ, নর্থ-ইস্ট মেডিকেল কলেজ, রাগিব-রাবেয়া মেডিকেল কলেজ, লিডিং ইউনিভার্সিটি, ওসমানী মেডিকেল কলেজসহ সিলেটের অন্যান্য শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে যোগাযোগ করতে থাকে। সবাই একাত্ম হয় যে কাদের মোল্লার বিরুদ্ধে দেওয়া রায় হতাশাজনক এবং মেনে নেবার মত না। তাই তারা সবাই নিজেদের মধ্যে সংঘঠিত হয়ে কর্মসূচিতে অংশগ্রহণ করার আমন্ত্রণে সাড়া দেয় এবং মিছিল সহকারে উপস্থিত হবার নিশ্চয়তাও দেয়।

 

আমরা সিলেটের সর্বস্তরের নাট্য এবং সংস্কৃতিকর্মী ও গ্রুপদের আমন্ত্রণ জানাই যুদ্ধাপরাধী কসাই কাদের ওরফে কাদের মোল্লার ফাঁসির দাবিতে রাস্তায় নামতে। তারাও প্রস্তুত ছিলো। আমন্ত্রণে সবাই নিজ উদ্যোগে নেমে পড়ে প্রচার-প্রচারণায়। ফোনে-ফেসবুকে-মেসেজের মাধ্যমে একে অন্যকে জানাতে থাকে প্রতিবাদী অবস্থানের কথা। সিদ্ধান্ত নিই আমাদের এই কর্মসূচি যেহেতু জনমানুষের কথা বলছে, মানুষের মনের দাবিকে প্রতিনিধিত্ব করছে তাই এখানে কোনও ধরণের ব্যানার যা কোনও-না কোন সংগঠনকে প্রতিনিধিত্ব করে তা থাকবে না। এই আয়োজন হবে সর্বস্তরের জনসাধারণ যেখানে আছেন ছাত্র-শিক্ষক, পেশাজীবী, সংস্কৃতি- নাট্যকর্মী এবং সাধারণ মানুষ। তাই খুব প্রথম থেকেই সচেতন থাকা যাতে করে জনসাধারণ নিজেদের প্রতিবাদটুকু জানাতে পারে অবলীলায়।

 

রায় ঘোষণার পরের দিন আমরা সিলেট কেন্দ্রীয় শহিদমিনারে প্রতিবাদী অবস্থানের আয়োজন করি। সময় নির্ধারণ করি বিকেল তিনটা। কিন্তু ঘড়িতে তিন বাজার আগেই লোকে লোকে লোকারণ্য হয়ে যায় পুরো শহিদমিনার এবং তার আশপাশকার রাস্তাগুলো। মনে হচ্ছিল যেন সিলেটের সবগুলো রাস্তা এসে শেষ হচ্ছে শহিদমিনারে। এই প্রতিবাদী অবস্থান এবং প্রতিবাদের গানের সঙ্গে চলে মুহুর্মুহু স্লোগান যা কসাই কাদের ওরফে কাদের মোল্লার যাবজ্জীবন কারাদণ্ড নয়, ফাঁসির দাবিতে। সেই সঙ্গে বাকিসব যুদ্ধাপরাধী যাদের রায় এখনও আসেনি তাদের ফাঁসির দাবিতে।

 

সিলেটের সবগুলো সামাজিক-সাংস্কৃতিক, নাট্য সংগঠন ছাত্র-শিক্ষক-জনতা নিজেরা নেমে আসে পথে। মুহুর্মুহু স্লোগান আর প্রতিবাদী সংগীত-স্লোগানে কাঁপতে থাকে সিলেটের শহিদমিনার এলাকা। প্রতিবাদী গণসংগীতে নেতৃত্ব দেয় প্রগতিশীল নাট্যসংগঠন নগরনাট। একই দিন এবং পরে অন্যান্য সাংস্কৃতিক সংগঠন অংশ নেয়।

 

সিলেটের ইতিহাসে একটানা এমন দীর্ঘদিনের আন্দোলন কখনোই হয়নি। এটা সম্ভব হয়েছে সিলেটবাসীর অকুণ্ঠ সমর্থন ও সহযোগিতার কারণে। এটা সম্ভব হয়েছে সর্বস্তরের ছাত্র-শিক্ষক, সংস্কৃতি ও নাট্যকর্মীদের কারণেই। এই আন্দোলনে কেউ নেতা হতে আসেনি। কাউকে নেতা বানানো হয়নি বলে মানুষের স্বতস্ফূর্ত অংশগ্রহণ ছিল। তাই একটানা আন্দোলনে কেউ বিরক্ত হয়নি বরং দ্বিগুণ উৎসাহে আবারো রাস্তায় নেমে স্লোগান, গণসংগীতে মাতিয়ে রেখেছে পরিবেশ।

যুদ্ধাপরাধী জামায়াতের সহকারী সেক্রেটারি জেনারেল আব্দুল কাদের মোল্লা (কসাই কাদের) আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল (আইসিটি) কর্তৃক ছয়টি জঘন্য অপরাধের মধ্যে পাঁচটি অপরাধে দোষী প্রমাণিত হয়েছে। কিন্তু এই বিচারের রায়ে দেখা গেল তার ফাঁসির আদেশ হয়নি। একেকটা অপরাধের জন্যে তাকে অন্তত একবার করে ফাঁসিতে ঝুলানো উচিত। সেই হিসেবে পাঁচবার তার ফাঁসি হওয়া উচিত। কিন্তু ফাঁসির আদেশ না হবার কারণে পুরো বাংলাদেশের জনগণ দিকে দিকে ফুসে ওঠেছে। সিলেট, ঢাকা, চট্টগ্রাম, রাজশাহী, দিনাজপুর, খুলনা, রংপুরসহ দেশের সব জায়গায় এক এবং অভিন্ন প্রতিবাদ আর দাবি-কাদের মোল্লার ফাঁসি আর জামায়াত-শিবির নিষিদ্ধকরণ।

 

কয়েকদিন আগেও খুব হতাশ ছিলাম জনমানুষ নিয়ে। মনে হচ্ছিল এই দেশে আবার ৭১’র মত কোনও কিছু হলে অনেকেই নাম লিখাতো দেশবিরোধীদের খাতায়। কসাই কাদেরের যাবজ্জীবন কারাদণ্ডের রায়ের পর ভুল ভাঙল। মনে হলো এই দেশের মানুষ ফুরিয়ে যায়নি, এখনও ইস্পাতকঠিন দৃঢ়তা দেখাতে জানে। এখনও যুদ্ধাপরাধীদের কঠিন শাস্তির দাবি করতে মানুষ রাস্তায় নেমে আসতে জানে। আমাদের পেছনে তাকাবার সুযোগ নেই। দাবি করি বাকি সব অভিযুক্ত যুদ্ধাপরাধীদের ফাঁসি। সারা দেশ আজ একাট্টা অভিন্ন দাবিতে-ফাঁসি, ফাঁসি এবং ফাঁসি আর জামায়াত-শিবির নিষিদ্ধকরণ! কেউ যদি এখানে ভিন্ন কিছু নিয়ে হাজির হয়, কেউ যদি এখানে তাদের কূটকৌশল নিয়ে হাজির হয় তবে তারা আস্তাকুড়ে নিক্ষিপ্ত হবে। এই বাংলাদেশ হবে যুদ্ধাপরাধীমুক্ত একটা নির্মল বাংলাদেশ। যারা বর্তমানে যুদ্ধাপরাধীদের বিচার নিয়ে নোংরা রাজনীতিতে জড়াতে চায় তাদের প্রতি চরম হুঁশিয়ারি-মুক্তিযুদ্ধ কারও একার সম্পত্তি না। এটা বাংলাদেশের মানুষের। ‘জয় বাংলা' স্লোগান কারও সম্পত্তি না-এটা বাংলাদেশের মানুষের।

 

সিলেটের মানুষ শুধুই কেন পুরো দেশ আগে এভাবে দেখেনি এমন গণআন্দোলন যা কি-না কোন রাজনৈতিক ব্যানার ছাড়াই জনমানুষের সমর্থনে এগিয়ে গেছে। অভূতপূর্ব এ আন্দোলন অরাজনৈতিক প্ল্যাটফ্রম থেকে শুরু হলেও আসলে একটা রাজনৈতিক উদ্দেশ্য যা কি-না সুন্দর এক বাংলাদেশ গঠনের ইঙ্গিত দেয়। আমরা খুব করে আশাবাদী এই দেশ যখন জেগেছে এবং তার সর্বোত সমর্থন দিয়েছে গণজাগরণ মঞ্চের প্রতি, তখন রাজাকারমুক্ত বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠার স্বপ্ন বাস্তবে রূপলাভ করবেই!

লাখো শহিদ ডাক পাঠালো, সব সাথীরে খবর দে
সারা বাংলা ঘেরাও করে রাজাকারের কবর দে

কবির য়াহমদ, প্রধান সম্পাদক, সিলেটটুডে টোয়েন্টিফোর ডটকম; ইমেইল: [email protected]

মুক্তমত বিভাগে প্রকাশিত লেখার বিষয়, মতামত, মন্তব্য লেখকের একান্ত নিজস্ব। sylhettoday24.com-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে যার মিল আছে এমন সিদ্ধান্তে আসার কোন যৌক্তিকতা সর্বক্ষেত্রে নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে sylhettoday24.com আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো দায় গ্রহণ করে না।

আপনার মন্তব্য

লেখক তালিকা অঞ্জন আচার্য অসীম চক্রবর্তী আজম খান ১০ আজমিনা আফরিন তোড়া ১০ আফসানা বেগম আবু এম ইউসুফ আবু সাঈদ আহমেদ আব্দুল করিম কিম ২০ আব্দুল্লাহ আল নোমান আব্দুল্লাহ হারুন জুয়েল আমিনা আইরিন আরশাদ খান আরিফ জেবতিক ১৩ আরিফ রহমান ১৪ আরিফুর রহমান আলমগীর নিষাদ আলমগীর শাহরিয়ার ৪০ আশরাফ মাহমুদ আশিক শাওন ইনাম আহমদ চৌধুরী ইমতিয়াজ মাহমুদ ৫৩ ইয়ামেন এম হক এখলাসুর রহমান ১৯ এনামুল হক এনাম ২৫ এমদাদুল হক তুহিন ১৯ এস এম নাদিম মাহমুদ ২১ ওমর ফারুক লুক্স কবির য়াহমদ ৩১ কাজল দাস ১০ কাজী মাহবুব হাসান খুরশীদ শাম্মী ১২ গোঁসাই পাহ্‌লভী ১৪ চিররঞ্জন সরকার ৩৫ জফির সেতু জহিরুল হক বাপি ২৮ জহিরুল হক মজুমদার জান্নাতুল মাওয়া জাহিদ নেওয়াজ খান জুয়েল রাজ ৭৫ ড. এ. কে. আব্দুল মোমেন ড. কাবেরী গায়েন ২২ ড. শাখাওয়াৎ নয়ন ডা. সাঈদ এনাম ডোরা প্রেন্টিস তপু সৌমেন তসলিমা নাসরিন তানবীরা তালুকদার দিব্যেন্দু দ্বীপ দেব দুলাল গুহ দেব প্রসাদ দেবু দেবজ্যোতি দেবু ২৬ নিখিল নীল পাপলু বাঙ্গালী পুলক ঘটক ফকির ইলিয়াস ২৪ ফজলুল বারী ৬২ ফড়িং ক্যামেলিয়া ফরিদ আহমেদ ৩৩ ফারজানা কবীর খান স্নিগ্ধা বদরুল আলম বন্যা আহমেদ বিজন সরকার বিপ্লব কর্মকার ব্যারিস্টার তুরিন আফরোজ ১৭ ভায়লেট হালদার মারজিয়া প্রভা মাসকাওয়াথ আহসান ১১৪ মাসুদ পারভেজ মাহমুদুল হক মুন্সী মিলন ফারাবী মুনীর উদ্দীন শামীম ১০ মুহম্মদ জাফর ইকবাল ১১৯ মো. মাহমুদুর রহমান মো. সাখাওয়াত হোসেন মোছাদ্দিক উজ্জ্বল মোনাজ হক রণেশ মৈত্র ১৩২ রতন কুমার সমাদ্দার রহিম আব্দুর রহিম ১৭ রাজেশ পাল ১৯ রুমী আহমেদ রেজা ঘটক ৩২ লীনা পারভীন শওগাত আলী সাগর শাখাওয়াত লিটন শামান সাত্ত্বিক শামীম সাঈদ শারমিন শামস্ ১৪ শাশ্বতী বিপ্লব শিতাংশু গুহ শিবলী নোমান শুভাশিস ব্যানার্জি শুভ ২৪ শেখ মো. নাজমুল হাসান ২১ শেখ হাসিনা শ্যামলী নাসরিন চৌধুরী সঙ্গীতা ইমাম সঙ্গীতা ইয়াসমিন ১৬ সহুল আহমদ সাইফুর মিশু সাকিল আহমদ অরণ্য

ফেসবুক পেইজ