আজ মঙ্গলবার, ২০ আগস্ট, ২০১৯ ইং

যুদ্ধাপরাধীদের বিরুদ্ধে তথ্য সংগ্রহ করতে সাংবাদিকতায় এসেছি

ফজলুল বারী  

সাংবাদিকতার বয়সতো কম হলো না! ভালোমন্দ নানান অভিজ্ঞতা। তবে ভালো অভিজ্ঞতা, বিপুল সংখ্যক মানুষের নিখাদ ভালোবাসাই বেশি পেয়েছি-পাই। মন্দ অভিজ্ঞতাগুলোর কয়েকটা হলো রিপোর্ট-কলাম পছন্দ না হলে হলুদ সাংবাদিকতা, দলকানা ইত্যাদি অভিযোগ প্রায় শুনতে হয়! কারা এসব অভিযোগ করেন তাদের অনেককে ব্যক্তিগতভাবে চিনি জানি। আজকাল ফেসবুকের কারণে অন্যদের ওয়াল ঘুরে আসলেই বুঝতে পারি তার কাছে নিরপেক্ষতার সংজ্ঞা। মাঝে মাঝে একটি অভিযোগ পাই টাকার!
 
এ নিয়ে মজার একটি অভিজ্ঞতা বলি। দেশে আমার রিপোর্টিংয়ের রাজনৈতিক বিট ছিল জাতীয় পার্টির। যুদ্ধাপরাধীদের দল জামায়াত-শিবির আর স্বৈরশাসক এরশাদের বিরুদ্ধে লিখতে লিখতে সাংবাদিকতায় হাত পাকিয়েছি। একবার এরশাদ দলের মিটিং'এ বললেন আমি যে তার বিরুদ্ধে লিখি এসব নাজিউর রহমান মনজুর টাকা দিয়ে আমাকে দিয়ে লেখায়! নাজিউরের সঙ্গে তখন তার সাপেনেউলে সম্পর্ক। এরশাদ তার দুর্নীতির অনেক সম্পদ নাজিউরের নামে করেছিলেন। কিন্তু খালেদা জিয়ার সঙ্গে এরশাদের রাজনৈতিক সম্পর্ক ভেঙে গেলে খালেদার পরামর্শে নাজিউর যখন বিজেপি নামের নতুন একটি রাজনৈতিক দোকান খোলেন, ওই সুযোগে তার কাছে তার নামে থাকা এরশাদের সব সম্পদ নিয়েও ভেগে যান! চুরির সম্পদ তো তাই এরশাদ মুখ ফোটে এসব তার কাছে দাবিও করতে পারেননি। সেই মিটিং'এ জাপার এক নেতা এরশাদের মুখের ওপর একটা কথা বললে এরশাদ চুপ মেরে যান! ওই নেতা তাকে বলেন নাজিউর যদি ফজলুল বারীকে টাকা দিয়ে আপনার বিরুদ্ধে লেখাতে পারে, আপনি পারেননা কেনো? আপনার টাকা কী নাজিউরের চেয়ে কম?

যুদ্ধাপরাধীদের বিরুদ্ধে তথ্য সংগ্রহ করতে করতে আমি সাংবাদিকতায় এসেছি। আমি যখন পায়ে হেঁটে বাংলাদেশ ভ্রমণ করছিলাম মাঠ পর্যায়ের মুক্তিযোদ্ধাদের কাছ থেকে এ তথ্যগুলোই সংগ্রহ করতাম। এরজন্যে আমার ছোটখাটো একটি গৌরবের দাবি আছে তাহলো আমি সম্ভবত বাংলাদেশের প্রথম পর্যটক-পরিব্রাজক-সাংবাদিক। আগে পর্যটক নিজের মতো করে সারা দেশটা দেখা জানা এবং পরে সাংবাদিক। মুক্তিযুদ্ধের স্থানীয় ইতিহাস সংগ্রহের বিষয়টি আমাকে আমার মাতৃভূমি সম্পর্কে সমৃদ্ধ-আত্মবিশ্বাসী করেছে। আজকের বাংলাদেশের প্রতিষ্ঠিত কত মানুষের সঙ্গে যে আমার প্রথম দেখা হয়েছিল তার এলাকায়। হয়তো তখন তারা ছাত্র অথবা স্থানীয় নেতা। আরেকটা কথা মজা করে বলি। জিজ্ঞেস করি আপনি প্রথম ঢাকা এসেছিলেন কিসে চড়ে? ট্রেনে বাসে লঞ্চে না বিমানে? আমি কিন্তু পায়ে হেঁটে ঢাকা এসেছি। আমার সংগ্রামটা ছিল অনেক বড়।

এই সময়ের অন্যতম আলোচিত ব্লগার, লেখক, গণজাগরণ মঞ্চের উদ্যোক্তাদের অন্যতম, বর্তমানে প্রাণ বাঁচাতে দেশান্তরী ও জার্মান প্রবাসী মাহমুদুল হক মুন্সি তথা আমার প্রিয় প্রজন্ম বাঁধনকে একদিন আমি মজার একটি গল্প বলেছিলাম। চুয়াডাঙ্গায় যখন আমি পর্যটকের বেশে মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস সংগ্রহ করতে যাই তখন চুয়াডাঙ্গার অনেকের সঙ্গে সেখানকার কলেজের তৎকালীন অধ্যক্ষ হামিদুল হক মুন্সি আমাকে তার লেখা সহ নানা তথ্য দিয়ে সহযোগিতা করেন। এই হামিদুল হক মুন্সির ছেলে যে আমার বাঁধন তা সে না বললে আমার কী জানা হতো? এভাবে তার মাধ্যমে আমি তার বাবাকে আবার ফিরে পেয়েছি। এমন ঘটনা অনেক। আমি আরেক কারণে ভাগ্যবান যে জীবনে যখন যে কাগজে কাজ করেছি সবগুলোই ছিল মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের কাগজ। চিন্তার সঙ্গে ঐক্যের কারণে এসব কাগজের কাজকে আমি সব সময় উপভোগ করেছি। নিয়মিত বেতন পাইনি, কিন্তু অফার থাকা সত্ত্বেও মনের বিরুদ্ধে কোথাও কাজ করতে যাইনি। মনের বিরুদ্ধে যার কাজ করতে হয়, আমার কাছে সে ভাগ্যহীন।

মুক্তিযুদ্ধের পক্ষে আমার কাজগুলো খুব স্বাভাবিক বরাবর এনজয় করে, করেছে আওয়ামী লীগ। কিন্তু কখনো তারা আমাকে ওউন করেনি। এ নিয়ে আমার কোন আক্ষেপ নেই। গালমন্দ শোনাতে আমাকে একবার বত্রিশ নাম্বারের বাড়িতে ডেকে নিয়ে যাওয়া হয়। সেই প্রথম আমার সেই বাড়িতে যাওয়া। আমাকে যিনি গালমন্দ করতে ডেকে নিয়েছিলেন তার সঙ্গে এখন আমার অনেক ভালো সম্পর্ক। আমার সিডনির বাসায়ও তিনি এসেছিলেন।

শেখ হাসিনা-খালেদা জিয়ার সঙ্গে সারাদেশে অনেক ট্যুর করেছি আমি। কিন্তু কখনো তাদের সঙ্গে বিদেশ সফরে যাইনি। তাদের সঙ্গে বিদেশ সফরে যেতে যে যোগ্যতা লাগে তা আমার ছিলোনা। সবার সব যোগ্যতা থাকেনা। থাকতে হয়না। রিপোর্ট করতে আমার যাওয়া হয়েছে কুড়িটি দেশে। আমি কোথাও কোনদিন বেড়াতে যাইনি। কাজের জন্য গেছি। বাংলাদেশের সাংবাদিকদের সবচেয়ে বড় মর্যাদাকর প্রতিষ্ঠান প্রেসক্লাবও আমাকে সদস্যপদ দেয়নি। একবার আবেদন করেছিলাম। কিন্তু আওয়ামী লীগ বিএনপি কোন প্যানেল সুপারিশ না করাতে তারা আমাকে সদস্যপদ দেয়নি। এরপর আর কোনদিন আবেদন করিনি। আবদুর রহমান নামের প্রেসক্লাবের তৎকালীন এক নেতা ক্লাবের সদর দরজায় দাঁড়িয়ে পাহারা দিতেন আমার মতো অ-সদস্য সাংবাদিক কেউ যাতে ক্লাবে ঢুকতে না পারে! পেশাগত কাজে কতোদিন তাকে লুকিয়ে চোরের মতো প্রেসক্লাবে ঢুকতে হয়েছে!

মুক্তিযুদ্ধের পক্ষে অবিরাম লেখালেখির কারণে এক পর্যায়ে আমার বদনাম হয় ভারতীয় গোয়েন্দা সংস্থা র'এর ,এসব আমাকে টাকা দিয়ে লেখায়! বিএনপির পত্রিকা দিনকালে এ নিয়ে একবার এক তালিকাও ছাপা হয়! সে তালিকায় বলা হয় র' প্রতিমাসে আমাকে পাঁচ হাজার টাকা করে দেয়! কিন্তু আমি যার অধীনে কাজ করি সেই তোয়াব খানকে মাসে দেয় তিন হাজার টাকা! রিপোর্টটি যিনি লিখেছিলেন তিনি অংকে কাঁচা হওয়াতে সেই রিপোর্টটি বিশ্বাসযোগ্যতা পায়নি। আমার টাকা পাঁচ হাজার হলে তোয়াব খানের টাকা তিন হাজার হয় কী করে? উল্টো ভুয়া রিপোর্টের কারণে সেই রিপোর্টারের চাকরি চলে যায়! সেই রিপোর্টার পরে গোপনে ইসরাইল যাবার চেষ্টা করতে গিয়ে ঢাকা বিমান বন্দরে গ্রেফতার হন।

দুই হাজার সাত সাল থেকে আমি অস্ট্রেলিয়ায়। আমি এদেশের নাগরিক হিসাবে সরকার থেকে নানান সুযোগ সুবিধা পাই। এদেশে আমার চিকিৎসা সহ নানা কিছু ফ্রি। এখানে আমি প্রচুর কাজ করি। এসব কাজের আয়ের বেশিরভাগ নানাভাবে বাংলাদেশে যায়। বাংলাদেশে লেখালেখির মাধ্যমে যা আয় করি সে টাকাগুলোও আমি কোনদিন অস্ট্রেলিয়া আনিনি। ডলারে কনভার্ট করে তা পোষাবেওনা। দেশে আমার ওপর নির্ভরশীল অনেক অভাবগ্রস্ত মানুষ। লেখার টাকাগুলো তাদের কাজে লাগাতে পারলে ভালো লাগে আমার।

এই আমার বিরুদ্ধে এখনো অভিযোগ আসে কারো পক্ষে বা বিপক্ষে লেখার বিনিময়ে টাকা কামাইয়ের। আমিতো এখানে ডলারে কামাই, আমাকে একজন কত টাকা দিতে পারবে বা তার কী সে সামর্থ্য আছে? চট্টগ্রামের ছাত্রলীগ নেতা নুরুল আজিম রনির কারা মুক্তি নিয়ে লেখালেখির কারণে ইদানীং এই অভিযোগটি পাচ্ছি; অথচ এই ছেলেটির সঙ্গে আজ পর্যন্ত আমার কথাও হয়নি। সে জামায়াত শিবিরের বিরুদ্ধে সোচ্চার, একজনের আক্রোশে পড়েছিল, এসব কারণেই তার পক্ষে দাঁড়িয়েছিলাম। আর আমিতো তার পক্ষ নেই অনেকের অনেক পরে। বাংলাদেশের জন্মশত্রু জামায়াত-শিবিরের বিরুদ্ধে তাদের প্রতি প্রত্যক্ষ পরোক্ষভাবে দুর্বল যে কারো বিরুদ্ধে আমি সোচ্চার ছিলাম। আগামীতেও থাকবো।

টাকার জন্যে যারা কাজ করেন এ নিয়ে টাকার জন্য বদনাম ছড়ান না কেন, এক্ষেত্রে আমাকে থামাতে পারবেন না। এ কাজটি আমি আমার দায় মনে করি। এ দায় আমার জন্মভূমির প্রতি। মানুষের জীবনে টাকা অনেক দরকার। কিন্তু সবকিছু টাকাতে হয়না। সবকিছু সঙ্গে টাকাটা মেলালে সে আর মানুষ থাকেনা। মনুষ্যত্ব হারানো কেউ দেশের জন্যে কাজ করতে পারেনা। আমাকে সে সুযোগ থেকে বঞ্চিত করতে চান? পারবেননা।

ফজলুল বারী, প্রবাসী সাংবাদিক

মুক্তমত বিভাগে প্রকাশিত লেখার বিষয়, মতামত, মন্তব্য লেখকের একান্ত নিজস্ব। sylhettoday24.com-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে যার মিল আছে এমন সিদ্ধান্তে আসার কোন যৌক্তিকতা সর্বক্ষেত্রে নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে sylhettoday24.com আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো দায় গ্রহণ করে না।

আপনার মন্তব্য

লেখক তালিকা অঞ্জন আচার্য অসীম চক্রবর্তী আজম খান ১০ আজমিনা আফরিন তোড়া আফসানা বেগম আবু এম ইউসুফ আবু সাঈদ আহমেদ আব্দুল করিম কিম ২০ আব্দুল্লাহ আল নোমান আব্দুল্লাহ হারুন জুয়েল আমিনা আইরিন আরশাদ খান আরিফ জেবতিক ১২ আরিফ রহমান ১৪ আরিফুর রহমান আলমগীর নিষাদ আলমগীর শাহরিয়ার ৩৯ আশরাফ মাহমুদ আশিক শাওন ইমতিয়াজ মাহমুদ ৪৯ ইয়ামেন এম হক এখলাসুর রহমান ১৯ এনামুল হক এনাম ২৫ এমদাদুল হক তুহিন ১৯ এস এম নাদিম মাহমুদ ১৫ ওমর ফারুক লুক্স কবির য়াহমদ ৩১ কাজল দাস ১০ কাজী মাহবুব হাসান খুরশীদ শাম্মী ১১ গোঁসাই পাহ্‌লভী ১৪ চিররঞ্জন সরকার ৩৫ জফির সেতু জহিরুল হক বাপি ২৮ জহিরুল হক মজুমদার জান্নাতুল মাওয়া জাহিদ নেওয়াজ খান জুয়েল রাজ ৭০ ড. এ. কে. আব্দুল মোমেন ড. কাবেরী গায়েন ২২ ড. শাখাওয়াৎ নয়ন ডা. সাঈদ এনাম ডোরা প্রেন্টিস তপু সৌমেন তসলিমা নাসরিন তানবীরা তালুকদার দিব্যেন্দু দ্বীপ দেব দুলাল গুহ দেব প্রসাদ দেবু দেবজ্যোতি দেবু ২৪ নিখিল নীল পাপলু বাঙ্গালী পুলক ঘটক ফকির ইলিয়াস ২৪ ফজলুল বারী ৫১ ফড়িং ক্যামেলিয়া ফরিদ আহমেদ ৩২ ফারজানা কবীর খান স্নিগ্ধা বদরুল আলম বন্যা আহমেদ বিজন সরকার বিপ্লব কর্মকার ব্যারিস্টার তুরিন আফরোজ ১৫ ভায়লেট হালদার মারজিয়া প্রভা মাসকাওয়াথ আহসান ১০১ মাসুদ পারভেজ মাহমুদুল হক মুন্সী মিলন ফারাবী মুনীর উদ্দীন শামীম ১০ মুহম্মদ জাফর ইকবাল ১১০ মো. মাহমুদুর রহমান মো. সাখাওয়াত হোসেন মোছাদ্দিক উজ্জ্বল মোনাজ হক রণেশ মৈত্র ৯৬ রতন কুমার সমাদ্দার রহিম আব্দুর রহিম ১৫ রাজেশ পাল ১৯ রুমী আহমেদ রেজা ঘটক ৩২ লীনা পারভীন শওগাত আলী সাগর শাখাওয়াত লিটন শামান সাত্ত্বিক শামীম সাঈদ শারমিন শামস্ ১৪ শাশ্বতী বিপ্লব শিতাংশু গুহ শিবলী নোমান শুভাশিস ব্যানার্জি শুভ ২৪ শেখ মো. নাজমুল হাসান ২১ শেখ হাসিনা শ্যামলী নাসরিন চৌধুরী সঙ্গীতা ইমাম সঙ্গীতা ইয়াসমিন ১৬ সহুল আহমদ সাইফুর মিশু সাকিল আহমদ অরণ্য সাব্বির খান ২৮

ফেসবুক পেইজ