আজ বৃহস্পতিবার, ১৯ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ইং

গণহত্যা অস্বীকার গণহত্যারই অংশ

সহুল আহমদ  

১৯৭১ সালের ২৫ মার্চ ‘অপারেশন সার্চলাইট’ এর মাধ্যমে পাকিস্তানিরা যে হত্যাযজ্ঞ শুরু করেছিল তাতে পরবর্তী নয় মাসে ৩০ লক্ষ বাঙালি প্রাণ হারান এবং চার –ছয় লক্ষ নারী ধর্ষিত হন। এই রক্তাক্ত অধ্যায় আমাদেরকে দমিয়ে রাখতে পারেনি বরং এর মাধ্যমেই তরান্বিত হয়েছিল আমাদের স্বপ্নের স্বাধীনতার বাস্তবায়ন। গবেষকদের কাছে ম্যাসাকার, গণহত্যা, পলিটিসাইড শব্দগুলো মূলত ভিন্ন ভিন্ন অর্থ বহন করে। একাত্তরে পাকিস্তানী সেনাবাহিনী কর্তৃক এই হত্যাযজ্ঞকে কি তাহলে ‘গণহত্যা’ বা Genocide বলা যায়?   

“পাকিস্তানীদের আক্রমণে প্রচুর সংখ্যক বাঙালি প্রাণ হারিয়েছে বটে তবে সেটা ‘গণহত্যা’ নয়! তখন যুদ্ধ চলছিল দেশব্যাপী, যুদ্ধের সময় এমন প্রাণহানি হবেই” – গণহত্যা অস্বীকারকারীদের যুক্তিগুলো অনেকটা এ ধরণের। এই যুক্তিকে ঘিরেই মূল আলোচনা। বিশেষজ্ঞরা গণহত্যার বিভিন্ন ধাপ নিয়ে প্রচুর একাডেমিক আলোচনা করেছেন। ১৯৯৬ সালে প্রখ্যাত গবেষক Dr. Gregory H. Stanton একটা আর্টিকেল লিখেন “8 stages of genocide” নামে; যেখানে তিনি একটি গণহত্যা সংগঠনের বিভিন্ন ধাপ নিয়ে বিশদ আলোচনা ও বিশ্লেষণ করেছিলেন। তাঁর কাজের ওপর ভিত্তি করে আমাদের উপর সংগঠিত গণহত্যাটিকে আমি তুলনামূলক ভাবে বিশ্লেষণ করার চেষ্টা করা হয়েছে।

প্রথমত, গণহত্যা বা Genocide বলতে আমরা কি বুঝি?

Genocide  এর উৎপত্তি গ্রীক শব্দ geno এবং ল্যাটিন শব্দ caedere থেকে।  geno এর অর্থ জাতি বা গোষ্ঠী এবং caedere এর অর্থ হত্যা করা;  অর্থাৎ সংক্ষেপে দাঁড়ায়, "Genocide is the systematic elimination of all or a significant part of a racial, ethnic, religious, culture or national group"। আন্তর্জাতিক কনভেনশন অনুযায়ী, গণহত্যা হচ্ছে নির্দিষ্ট কোন একটা গোষ্ঠীকে (National, ethnical, racial or religious)  পুরোপুরি কিংবা আংশিক ধ্বংসের উদ্দেশ্যে নিম্নের অপরাধসমূহ -
১) গোষ্ঠীর সদস্যদের হত্যা করা
২) গোষ্ঠীর সদস্যদেরকে মারাত্মকভাবে শারীরিক  ও মানসিক ক্ষতি সাধন করা
৩) ইচ্ছাকৃত ভাবে হানা দিয়ে গোষ্ঠীর প্রকৃত অবস্থা পুরোপুরি কিংবা আংশিক ধ্বংস করা
৪) আইন প্রণয়ন করে গোষ্ঠীর ভেতর জন্মরহিত করণ চালু করা
৫) জোরপূর্বকভাবে গোষ্ঠীর শিশুদেরকে অন্য গোষ্ঠীতে ঢুকিয়ে দেয়া।

উপরের সংজ্ঞাগুলোতেই স্পষ্ট বুঝা যাচ্ছে যে, নির্দিষ্ট পরিকল্পনা অনুযায়ী যে কোন গোষ্ঠীর মানুষদের হত্যা করলেই যে শুধু গণহত্যা তা নয়, বরং এর পাশাপাশি সদস্যদের যে কোন মানসিক ও শারীরিক ক্ষতিসাধনও এর অন্তর্ভুক্ত। এমনকি নির্দিষ্ট কোন গ্রুপকে ধ্বংসের উদ্দেশ্যে এর শিশুদেরকে অন্য গোষ্ঠীতে ঢুকিয়ে দেয়া কিংবা সেখানে জোর করে জন্মদানে বাধা দেওয়াও গণহত্যার সামিল। প্রধান আলোচনায় যাওয়ার আগে জেনে নেয়া যাক কারা কিংবা কোন অপরাধগুলো গণহত্যার সাথে সম্পর্কিত এবং শাস্তিযোগ্য অপরাধ-  
১) গণহত্যায় সরাসরি অংশগ্রহণ করা
২) গণহত্যার ষড়যন্ত্রে অংশগ্রহণ করা
৩) প্রত্যক্ষ কিংবা পরোক্ষভাবে উস্কানি দেয়া যা গণহত্যার পথ সুগম করে
৪) গণহত্যার চেষ্টা করা
৫) গণহত্যায় সহায়তা করা।

Gregory H. Stanton তার আর্টিকেলে গণহত্যা সংগঠনের প্রক্রিয়াকে ৮ টা ধাপে কিংবা পর্যায়ে ভাগ করেছেন। ধাপগুলো নিম্নরূপ:
1. Classification,  2. Symbolization,  3. Dehumanization,  4. Organisation, 5. Polarization,  6. Preparation, 7. Extermination,  8. Denial.    

প্রথম দুটি পর্যায় প্রতিটা সমাজেই প্রতীয়মান; Classification কিংবা শ্রেণীকরণ ধর্মের ভিন্নতা, ধর্মের ভেতরে মতাদর্শের ভিন্নতা, মুখের ভাষার ভিন্নতা এবং  সাংস্কৃতিক বৈচিত্রতা সহ আরো অনেক কারণেই হয়ে থাকে। আবার প্রতিটা শ্রেণীকে চিহ্নিত করা হয় ভিন্ন ভিন্ন বৈশিষ্ট্য দ্বারা, যাকে লেখক বলেছেন Symbolization। দাড়ি টুপি যেমন মুসলিমদের পরিচয় বহন করে তেমনি ধুতি সিঁদুর বহন করে হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের পরিচয়। সেই চিহ্নিতকরণ কখনো কখনো করা হয় গাত্রবর্ণের দ্বারা, কখনো শারীরিক গঠন দ্বারা; যেমন, উপজাতি। সামনেই আমরা দেখতে পাব এই Symbolization কিভাবে গণহত্যায় সহায়তা করে।   

লেখকের মতে, প্রথম দুটি পর্যায় প্রতিটা সমাজেরই অংশ এবং তা সর্বত্র বিদ্যমান থাকাটাই স্বাভাবিক। কিন্তু এই দুটোর সাথে যখন একত্র হয়  Dehumanization, তখনই প্রথম দুটো পর্যায় “গণহত্যার” সাথে সম্পর্কিত হয়ে উঠে। এটা অনস্বীকার্য, অন্যের মনুষ্যত্বকে অস্বীকারই উদ্দীপনা যোগায় একের পর এক দায়হীন হত্যার। প্রতিটি গণহত্যাতেই দেখা যায় ভিকটিমদেরকে শুরুতেই বিভিন্ন জন্তু জানোয়ারের সাথে তুলনা করা হয় যার মাধ্যমে প্রকাশ পায় এই Dehumanization এর প্রথম পর্যায়। কখনো কখনো ভিকটিমদেরকে “Disease”, “Virus” কিংবা “Cancer” হিসেবেও চিহ্নিত করা হয়। নাৎসিরা ইহুদিদেরকে প্রকাশ্যেই “Rat”  অথবা “Vermin” বলে সম্বোধন করত। রুয়ান্ডায় হুতুরা তুতসীদেরকে “Cockroach” বলে ডাকত। মনুষ্যত্বের প্রতি তাদের সর্বোচ্চ অবজ্ঞা কিংবা ঘৃণার প্রকাশ পাওয়া যায় গণহত্যার সময় আক্রান্তদেরকে হত্যার পর তাদের অঙ্গহানি করা, কেটে টুকরো টুকরো করে ফেলা কিংবা সীমাহীন নির্যাতনের মাধ্যমে হত্যা করার মধ্য দিয়ে।  

এবার এই ধাপটাকে আমরা মিলিয়ে দেখি ১৯৭১ এর ঘটনাপ্রবাহের সাথে।  ব্রিগেডিয়ার সিদ্দিক সালিক ‘A Witness to Surrender” বইতে লিখেছিলেন, আওয়ামীলীগ বাঙালি জাতীয়তাবোধের “Virus” ছড়াচ্ছিল যা বাঙালি সাধারণ মানুষ ও সেনাদের “Infect” করছিল।  খেয়াল করে দেখুন শব্দ দুটো,  virus  এবং infect! আওয়ামীলীগ কর্মীরা ছিলেন তাদের কাছে “গুণ্ডা”। কারো কারো কাছে তো পুরো বাঙালি সমাজটাই ছিল “বাস্টার্ড” এবং “জারজ”। বাঙালিদেরকে উদ্দেশ্য করে কসাই টিক্কা খান বলেছিলেন, “Reduce the number of Bengali bastards”। ১৯৭০ সালের ডিসেম্বরের দিকে এক নৈশভোজের জেনারেল ইয়াহিয়া বলেছিলেন, “Don’t worry .. We will not allow these black bastards to rule over us”

মার্চে যখন মুজিবের সাথে ইয়াহিয়ার আলাপ আলোচনা চলছে তখনকার ঘটনা; প্রথমদিন আলোচনার পরই ইয়াহিয়া একটু বিমর্ষ হয়ে গিয়েছিলেন দেখে সিদ্দিক সালিকের মন্তব্যটা শুনুন, “Amazingly, he had (apparently) failed to see the snake in the grass”। এ বিষয়ে গবেষক মুনতাসীর মামুন লিখেন, “রূপক অর্থে হয়তো এটি ব্যবহৃত কিন্তু ‘সাপ’ বলতে তো বাঙালিকেই বোঝাচ্ছে”।  

এরপরই  আসে পরবর্তী পর্যায়, Organization| পৃথিবীর সবগুলো গণহত্যাই চালানো হয়েছে দলবদ্ধভাবে সংঘটিত হয়ে, অবশ্য বেশিরভাগই হয়েছে সরকারী ভাবে কিংবা মিলিটারি দ্বারা। হত্যা করার জন্যে নির্দিষ্ট কোন পরিকল্পনার দরকার পড়ে না কিংবা প্রতিপক্ষকে মারার জন্যে কোন জটিল প্রক্রিয়ার মধ্যে যাওয়ার দরকার পড়ে না, যেমন – রুয়ান্ডায় তুতসীরা মারা গিয়েছিল ছোরা ঘাতে, কম্বোডিয়ায় গণহত্যা চালানো হয়েছিল নিড়ানির মত একধরনের ছুরি দিয়ে। কম্বোডিয়ার গণহত্যাকারীদের নীতি ছিল “Bullets must not be wasted” – যা কিনা  ভিকটিমদের প্রতি ছিল সর্বোচ্চ Dehumanization। কখনো কখনো ফায়ারিং স্কোয়াড কিংবা ক্যাম্প স্থাপন করেও ম্যাসাকার চালানো হয়। এই Organization এ ভিন্নতা দেখা দেয় সমাজ থেকে সমাজে, দেশ থেকে দেশে; তবে এটা সর্বদা সুসংগঠিত অবস্থায়ই হয়ে থাকে। ৭১ এ পাকিস্তানি সরকার এবং মিলিটারির পাশাপাশি সংগঠনে অংশ নিয়েছিল দেশীয় রাজাকার, আলবদর, আলশামস, শান্তিসেনা নামের দলগুলো। এসব দেশিয় দলগুলোতে ঢুকতে হলেও ফরম পূরণ করা আবশ্যক ছিল।  

এরপরই আসে Polarization এবং Preparation পর্যায়। প্রতিটা গণহত্যার শুরুতেই উগ্রপন্থীরা মঞ্চ থেকে সরিয়ে ফেলার চেষ্টা করে সকল “মডারেট”দের যারা গণহত্যার গতি কমিয়ে দিতে পারে, যাকে লেখক বলেছেন Polarization। উগ্রপন্থীরা তাই টার্গেট করে সকল মডারেট নেতাদের এবং তাদের পরিবারকে। আমরা জানি যে, ফেব্রুয়ারির থেকে দশ মার্চ এর মধ্যে তিনবার পূর্ব পাকিস্তানের গভর্নর বদলি করা হয়। কারণ, এরা ইয়াহিয়ার উদ্দেশ্য বাস্তবায়নে অপারগ ছিলেন। এর মধ্যে জেনারেল ইয়াকুব বিবেকের তাড়নায় নাকি পদত্যাগ করেছিলেন; পাকিস্তানি ভাইদের উপর তিনি গুলি চালাতে পারবেন না। পাকিস্তানের অনেক  বিবেকবান মানুষই তখন পাশে দাঁড়িয়েছিলেন বাঙালিদের; প্রতিবাদ করতে গিয়ে জেল খেটেছেন, নিগৃহীত হয়েছেন ইয়াহিয়ার আমলে। (শাহরিয়ার কবিরের “যুদ্ধাপরাধ – ৭১” নামক ডকুমেন্টারিটা দেখতে পারেন)   

Preparation কিংবা প্রস্তুতিরই একটা অংশ হচ্ছে ‘Identification’। ‘ লেখকের মতে, “Identification greatly speeds the slaughter”। ভিকটিমদের তালিকা তৈরি করা হয়, বাড়ি ঘর চিহ্নিত করা হয়, ম্যাপ তৈরি করা হয়। রুয়ান্ডায় সবার পরিচয় পত্রের ব্যবস্থা করে হয়েছিল যেন সহজেই তুতসীদের চেনা যায়। এই আইডি কার্ড ছুড়ে ফেলে দিলেও কাজ হত না, ‘হুতু’ হিসবে নিজের পরিচয় প্রমাণ করতে না পারলে ‘তুতসী’ বলেই ধরে নেয়া হত। এই পরিচয়ের ক্ষেত্রে Symbolization এর ভূমিকা ব্যাপক। পাকিস্তানিরা ছিল হিন্দু বিদ্বেষী, হিন্দুদের উপর তাই প্রকোপও পড়েছিল বেশী। তাই হিন্দু নারীরা  তখন মাথার সিঁদুর মুছে ফেলত, পুরুষরা মাথায় টুপি পরত, ধুতির বদলে লুঙ্গি পরতো। পাকিরা “চার কলেমা”র মাধ্যমে হিন্দু মুসলিম যাচাই করতো; কেউ বলতে না পারলেই গুলি করে হত্যা করা হত। কখনো কখনো লুঙ্গি খুলে পরীক্ষা করতো হিন্দু না মুসলমান! অবশ্য শুধু হিন্দুরাই নয়, পুরো বাঙালি সমাজই তাদের গণহত্যার শিকার হয়েছিল।

‘Identification’ এর আরেক প্রমাণ হচ্ছে রাও ফরমান আলীর ডায়রি, যেখানে পাওয়া গিয়েছিল বুদ্ধিজীবীদের নামের তালিকা। তার ডায়রিতেই লেখা ছিল, “Green land of East Pakistan will be painted red”।
 
ভিকটিমদের সম্পত্তি লুটপাট করা কিংবা বাজেয়াপ্ত করা ও প্রস্তুতির অংশ; যার বেশীরভাগই করেছিল পাকিদের এ দেশীয় দোসররা। কনসেন্ট্রেশন ক্যাম্প তৈরি করা ও যাতায়াতের জন্যে Transportation  ব্যবস্থা করাও গণহত্যার প্রস্তুতির ভেতরে পড়ে। আমরা সকলেই জানি এ দেশের স্কুল, কলেজ, বিমানবন্দর, বিভিন্ন বাড়িকেই পাকিস্তানিরা ক্যাম্প বানিয়েছিল। কখনো কখনো খোলা মাঠে জমা করতো সবাইকে অতঃপর নির্বিচারে হত্যা করা হত সবাইকে।   

প্রস্তুতি সম্পন্ন হওয়ার পরেই আসে সপ্তম ধাপ, Extermination। এটাকে মার্ডার না বলে Extermination ই বলা হয়, কেননা এ ক্ষেত্রে আক্রান্তদের  কে মানুষ বলে বিবেচনা করা হয় না। পরিকল্পনামাফিক হত্যা করা শুরু হয় প্রতিটা লক্ষ্যবস্তুকে কেন্দ্র করে, এমনকি বাচ্চাদেরকেও রেহাই দেয়া হয় না। ‘অপারেশন  সার্চলাইট’ এর  কথা সকলেই জানি। পাকি জেনারেলদের বইপত্র প্রমাণ করে যে, ‘অপারেশন সার্চলাইট’ তাদের বহু দিনের প্ল্যান, হুট-হাট কোন সিদ্ধান্ত নয়। এই Extermination এতটাই ভয়াবহ ছিল যে এক পাকিস্তানি জেনারেলই (নিয়াজি) এটাকে চেঙ্গিস খানের নিষ্ঠুরতার চেয়ে বেশী ভয়াবহ বলেছিলেন। নিয়াজি লিখেন,
“The military action was a display of stark cruelty, more merciless than the massacre at Bukhara and Baghdad by Changez khan and Halaku khan and at Jalianwala Bagh by British General Dyer”।  

এখানে উল্লেখ্য, প্রতিটা Extermination এর শেষে হত্যাকারীরা শোধন প্রক্রিয়া বলে একে ইতিবাচক হিসেবে তুলে ধরার চেষ্টা করেছে। বসনিয়াতে বলা হয়েছিল, “ethnic cleansing”, আলজেরিয়া তে বলা হয়েছিল “Ratonade”(Rat extermination)। যেমন পঁচিশ মার্চ রাতের পর ভুট্টো বলেছিলেন, “ আল্লাহকে অশেষ ধন্যবাদ, পাকিস্তানকে রক্ষা করা গেছে”।  

সর্বশেষ ধাপ হচ্ছে Denial কিংবা অস্বীকার করা। খেয়াল করে দেখবেন, প্রতিটা গণহত্যাই শেষ হয় প্রত্যাখ্যানের মাধ্যমে। এই প্রত্যাখ্যানের জন্যে অপরাধীরা কয়েকটি নির্দিষ্ট পন্থা বেছে নেয়।
১) গণকবর গুলো লুকিয়ে ফেলা হয়
২) ঐতিহাসিক দলিলগুলো পুড়িয়ে নষ্ট করে ইতিহাসের দরজা বন্ধ করে দেয়া হয়
৩) গণহত্যা সংক্রান্ত সকল রিপোর্টকে বিরোধীদলের প্রোপাগান্ডা হিসেবে অবিহিত করা হয়
৪) গণহত্যার তথ্যগুলো Officially approved  সূত্র থেকে আসেনি – এই অজুহাতে গণহত্যার সকল রিপোর্টকে Unconfirmed অথবা alleged হিসেবে চিহ্নিত করা হায়
৫) হত্যাগুলো প্রচলিত গণহত্যার সংজ্ঞাকে সংজ্ঞায়িত করে কি না এই নিয়ে কু - তর্ক করা হয়
৬) ভিকটিম দলের হতাহতদের সংখ্যার চেয়ে নিজ দলের হতাহতের সংখ্যা আরো বেশী বলে দাবি করা হয়
৭) মানুষ মারা গিয়েছে “গৃহযুদ্ধ” এর কারণে, তাই এটা গণহত্যা না - বলে দাবি করা হয়
 
খুব মনোযোগ দিয়ে ৭ টা পয়েন্ট পড়ে দেখুন তো, এই কথাগুলো আমাদের সাথে খুবই পরিচিত কি না? প্রতিটা যুক্তি কিংবা পন্থাই কি আমাদের উপর  চালানো গণহত্যাকে অস্বীকার করতে ব্যবহৃত হয় নি? যুদ্ধ চলাকালীন অবস্থায় গণহত্যার সংক্রান্ত সব খবরকেই “ভারতীয়দের চক্রান্ত” হিসেবে উল্লেখ করা হত। ৭১ এর  আগস্ট মাসে পাকিস্তানি সরকার একটা শ্বেতপত্র প্রকাশ করে যেখানে আওয়ামীলীগকেই গণহত্যার জন্যে দায়ী করা হয়। এই শ্বেতপত্র নিয়ে ৬ ই আগস্ট New York Times প্রতিবেদন ছাপায় “Pakistan accuses of Bengalis massacring 100,000” শিরোনামে। খবরে বলা হয়, ‘In a white paper, the government asserted that 100,000 men, women and childern had died since March 1 in a “reign of terror unleashed by the Awami league” the now banned political party that pressed for autonomy and then independence”। এই শ্বেতপত্র প্রকৃত ইতিহাস থেকে কতটা দূরে ছিল সেটা সহজেই অনুমেয়। মে মাসের ২৫ তারিখ পাকিস্তানি এক সংবাদপত্র শরণার্থীদের নিয়ে খবর প্রকাশ করে  ‘Refugees are victims of Indian propaganda’ শিরোনামে।
 
গণহত্যায় পাকিস্তানিদের সহযোগী রাজাকার, আলবদর, আল শামস দের মুখপাত্র “দৈনিক সংগ্রাম” তখন নিয়মিতই মুক্তিযুদ্ধ কিংবা পাকিদের গণহত্যাকে ‘ভারতীয়দের চক্রান্ত’ বলে প্রচার করেছিল। ৬ মে পত্রিকাটি “শরণার্থী বাহানা” শিরোনামে একটি প্রতিবেদনে লিখে, “হিন্দুস্থান এখন নিজ দেশের তালাবদ্ধ মিল কারখানার বিপুল সংখ্যক শ্রমিক ও বেকার নাগরিকদের একত্র  করে তাদের শরণার্থী বলে প্রচার করছে। এবং বিশ্ববাসীর দরবারে মানবিকতার দোহাই দিয়ে তাদের নামে স্বার্থ হাসিলের চেষ্টা চালাচ্ছে” । ব্রিটিশ পত্র পত্রিকা তখন গণহত্যার খবর নিয়মিত ছাপানো শুরু করলে এ নিয়ে ৫ জুলাই “দৈনিক সংগ্রাম” খবর প্রকাশ করে; শিরোনাম “হিন্দুস্থানের চক্রান্ত জালে ব্রিটিশ” । মিথ্যে কয় প্রকার ও কি কি সেটা শুধু এই “দৈনিক সংগ্রাম” এর খবরগুলো দেখলেই বোঝা যায়।

এই পর্বের সবচেয়ে বড় প্রমাণ কিংবা দলিল হচ্ছে পাকিস্তানি জেনারেল-মেজরদের লেখা বইপত্র।  পাকিস্তানি জেনারেলরা আর কিচ্ছু পারেন আর নাই পারেন উনারা এই দেশের মানুষের রক্তে দুই হাত রঞ্জিত করে নিজ দেশে গিয়ে অতঃপর হাতে কলম তুলে নিয়েছেন। সবাই বই লিখে নিজের সাফাই গাওয়া শুরু করেন। সবারই এক কথা, ১৯৭১ এ দেশে কি হচ্ছিল তারা এ সম্পর্কে কিছুই জানতেন না, সবই তাদের অগোচরে হয়েছিল। অস্কার বিজয়ী মুভি "Judgment at Nuremberg "(1961) দেখেছিলাম অনেকদিন আগে। নাৎসি বাহিনীর চারজনের বিচার নিয়ে নির্মিত এই মুভিতে যখন আসামীদের কে "ইহুদী গণহত্যা" বিষয়ে জিজ্ঞেস করা হয়েছিল তখন তাদের উত্তরও ছিল অনেকটা "আমরা কিছুই জানতাম না" ধরণের। নাৎসি বাহিনীর সাথে এদের অমিল এক জায়গায় ওদের বিচার হয়েছিল, আর পাকি জেনারেলদের বিচার হয় নি।

যুদ্ধের এতটা বছর পর, এই ২০১৫ সালেও এসে পাকিস্তানিরা অস্বীকার করছে গণহত্যার কথা, বলছে ভিত্তিহীন এসব অভিযোগ। ৩০ নভেম্বর পাকিস্তানি পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে গণহত্যার কথা অস্বীকার করে বলা হয়, ‘baseless and unfounded assertions’ of Bangladesh against Pakistan.

যুদ্ধাপরাধীদের বিচার করার মাধ্যমে পাকিস্তানীদের সাথে বাংলাদেশের সম্পর্ক নাকি নষ্ট হয়ে যাচ্ছে এই অভিযোগ করে বাংলাদেশের সাথে সৌহার্দ্যপূর্ণ সম্পর্ক রাখার অভিপ্রায় ব্যক্ত করে সে বিজ্ঞপ্তিতে আবার বলা হয়, “It is regrettable that attempts have been made by the Government of Bangladesh to malign Pakistan, despite our ardent desire to develop brotherly relations with Bangladesh. Pakistan believes that the peoples of both countries not only want to maintain but also further strengthen the bonds of friendship and brotherhood. However, sadly, the Government of Bangladesh does not seem to respect these sentiments.”
 
দুঃখের বিষয় হচ্ছে, এই Denial টা শুধু পাকিস্তানিরাই করেনি  বরং এই পাকিস্তানি জেনারেলদের মন মানসিকতার সাথে আমাদের একটা সম্প্রদায়ের মানসিকতার প্রচণ্ড মিল বিদ্যমান। জেনারেল রা যেমন " গণহত্যা"টাকে কোনভাবেই মানতে চান না; সংখ্যাটা খুব বেশী হলে হাজার বিশেক হতে পারে! একজন জেনারেল জগন্নাথ হল এবং ইকবাল হল ঘুরে এসে লিখেছেন, "হল দুটি পরিত্যক্ত, কিন্তু ধ্বংসলীলা তেমন হয় নি" । অথচ আমরা সবাই জানি এখানকার নির্মম হত্যাকাণ্ডের কথা।  

ঠিক আমাদের মাঝের ঐ সম্প্রদায়ের অবস্থাটা তাই, আগে বলতো ত্রিশ লাখ না আরো কম হবে; এর পরে বলল, আসলে ৩ লক্ষ, ভুল করে ৩০ হয়ে গেছে! সংখ্যাটা শুধু নামছে, কয়দিন পর হয়তোবা বলবে, "১৯৭১ এ আসলে কিছুই হয় নাই...সবই ষড়যন্ত্র...!"

পাকিস্তানি থেকে শুরু করে যারাই এটাকে গণহত্যা হিসেবে স্বীকৃতি দিতে চান না তারা মোটামুটি সকলেই ৭ নম্বর যুক্তিটা দেখান সবসময়।  “ইহা একটি গৃহযুদ্ধ; তাই গণহত্যা হতে পারে না”। অথবা এটাও বলেন যে, “যুদ্ধের সময় হতাহতের ঘটনা ঘটবেই তো!” তাদের জন্যে লেখকের পরের দুইটা লাইন সরাসরি তুলে দিচ্ছি, “Infact civil war and genocide are not mutually exclusive. Most genocide occur during wars”।

এটা স্বীকার করতেই হবে, যে কোন ধরনের অপরাধের পর এর “বিচারহীনতা” কিংবা “দায় থেকে অব্যাহতি” সে ধরনের অপরাধ ভবিষ্যতে সংগঠিত হওয়ার সম্ভাবনা বাড়িয়ে তুলে। এ কথাটা গণহত্যার সাথেও সম্পর্কিত। হিটলার তখন পোল্যান্ড আক্রমণের সিদ্ধান্ত নিচ্ছিল; সে সময় হিটলারের সামনে ‘আন্তর্জাতিক নিয়ম ভঙ্গের’ প্রসঙ্গ তুললে সে  জবাব দেয়, “Who  ever heard of the extermination of the Armenians!” এটা বুঝতে হবে, যে কোন গণহত্যার একটি ভয়াবহ নেতিবাচক দিক হচ্ছে সেটাকে ভুলে যাওয়া কিংবা দোষীদের বিচারের কাঠগড়ায় দাড় করাতে না পারা – যা ইন্ধন যোগায় ভবিষ্যতের আরেক গণহত্যাকে।  তাই গণহত্যাকে অস্বীকার করার এই প্রবণতা দূর করার জন্যে লেখক জোর দিয়েছেন পাবলিক ট্রায়াল ও ট্রুথ কমিশনের উপর; “... public trials and truth commission, followed by the years of education about the fact of genocide”।

যখন আদালত আক্রান্তদেরকে সুবিচার দিতে পারে না তখন তাদের মধ্যে জন্ম নেয় প্রতিশোধ নেয়ার প্রবণতা বা আকাঙ্ক্ষা যা কিনা সমাজে বাড়িয়ে দেয় অপরাধের মাত্রা আরো বহু গুনে এমনকি কখনো কখনো সুগম করে গণহত্যার পথ; “In societies with histories of ethnic violence, the cycle of killing will eventually spiral downward  into the vortex of genocide”।এই আর্টিকেলের শেষ লাইনটাও তাই বিচার প্রসঙ্গ নিয়ে, “The strongest antidote to genocide is justice”

গণহত্যা পরবর্তী সময়ে গণহত্যার শিকার হওয়া যে কোন গোষ্ঠীর ওপর সেই রক্তাক্ত ঘটনার কারণেই অনেক ধরণের সামাজিক, শারীরিক ও মানসিক প্রভাব পড়ে। রুয়ান্ডাতেও গণহত্যার পরবর্তী সময়ে ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী কিংবা বেচে যাওয়াদের অনেক সমস্যার কথা জানা যায়। একাত্তরের পরবর্তীতে এই গণহত্যার কি ধরণের প্রভাব আমাদের সমাজ ও ব্যক্তি মানসে পড়েছিল সেটাও গবেষণার দাবি রাখে।  

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের কাহিনী নিয়ে হলিউডে এখনো সিনেমা বানানো হয়, সেসব সিনেমা দর্শক নন্দিতও হয়। বিভিন্ন উপায়ে হিটলারের কুকর্মগুলো উপস্থাপন করা হয় এই প্রজন্মের কাছে যেন তারা জানতে পারে  আসলে তখন কি হয়েছিল। নাৎসি বাহিনীর প্রতি ঘৃণা নিয়েই তাই বড় হচ্ছে ইউরোপের এই প্রজন্ম। এইতো কয় দিন আগে রাশিয়ান একটা ফুটবল টিমকে শাস্তি দেয়া হয় দলের সমর্থকেরা নাৎসি বাহিনীর চিহ্ন দেখিয়েছিল বলে। রাশিয়ান ফুটবলের অফিসিয়ালরা বলেন, “In Nazi Germany, they were used as emblems of the Hitlar Youth. We can’t ignore the appearance of these symbols – especially in our country”। (৭ এপ্রিল, ২০১৫, The Washington Post ) অথচ, মুদ্রার ঠিক উল্টো পাশে আমরা। পাকিস্তানকে শুধু সমর্থনই করেই ক্ষান্ত হই না, খেলার মাঠে নিয়ে যাই তাদের জাতীয় পতাকাও। মাত্র ৪৫ বছরের মাথায় আমরা ক্ষমা করে দিয়েছি সকল পাকি গনহত্যাকারীদের, আমার দেশের পতাকা টানিয়ে দিয়েছি এক রাজাকারের গাড়িতে, গনহত্যাকারীদের বুক ফুলিয়ে বলতে দিয়েছি “এই দেশে কোন যুদ্ধাপরাধী নেই”, শহীদের সংখ্যা নিয়ে কু তর্কে মেতেছি।  

“আজো আমি বাতাসে লাশের গন্ধ পাই
আজো আমি মাটিতে মৃত্যুর নগ্ন-নৃত্য দেখি
ধর্ষিতার কাতর চিৎকার শুনি আজো আমি তন্দ্রার ভেতরে...”
(রুদ্র মুহাম্মদ শহীদুল্লাহ)

[বি.দ্র. পরবর্তীতে লেখক আরো দুটি ধাপ এর সাথে যোগ করেছেন]
তথ্যসূত্র:
১) 8 Stages of Genocide – Dr. Gregory H. Stanton
২) মুক্তিযুদ্ধের  ছিন্ন দলিলপত্র -  মুনতাসীর মামুন
৩) পাকিস্তানি জেনারেলদের মন -  মুনতাসীর মামুন
৪) Witness to Surrender - Siddiq salik
৫) মুক্তিযুদ্ধের দৈনিক সংগ্রামের ভূমিকা - আলী আকবর টাবী
৬) The New York Times Archive   
৭) ত্রিশ লক্ষ শহীদ বাহুল্য নাকি বাস্তবতা? – আরিফ রহমান

সহুল আহমদ, অনলাইন এক্টিভিস্ট।

মুক্তমত বিভাগে প্রকাশিত লেখার বিষয়, মতামত, মন্তব্য লেখকের একান্ত নিজস্ব। sylhettoday24.com-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে যার মিল আছে এমন সিদ্ধান্তে আসার কোন যৌক্তিকতা সর্বক্ষেত্রে নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে sylhettoday24.com আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো দায় গ্রহণ করে না।

আপনার মন্তব্য

লেখক তালিকা অঞ্জন আচার্য অসীম চক্রবর্তী আজম খান ১০ আজমিনা আফরিন তোড়া আফসানা বেগম আবু এম ইউসুফ আবু সাঈদ আহমেদ আব্দুল করিম কিম ২০ আব্দুল্লাহ আল নোমান আব্দুল্লাহ হারুন জুয়েল আমিনা আইরিন আরশাদ খান আরিফ জেবতিক ১২ আরিফ রহমান ১৪ আরিফুর রহমান আলমগীর নিষাদ আলমগীর শাহরিয়ার ৩৯ আশরাফ মাহমুদ আশিক শাওন ইমতিয়াজ মাহমুদ ৫০ ইয়ামেন এম হক এখলাসুর রহমান ১৯ এনামুল হক এনাম ২৫ এমদাদুল হক তুহিন ১৯ এস এম নাদিম মাহমুদ ১৮ ওমর ফারুক লুক্স কবির য়াহমদ ৩১ কাজল দাস ১০ কাজী মাহবুব হাসান খুরশীদ শাম্মী ১২ গোঁসাই পাহ্‌লভী ১৪ চিররঞ্জন সরকার ৩৫ জফির সেতু জহিরুল হক বাপি ২৮ জহিরুল হক মজুমদার জান্নাতুল মাওয়া জাহিদ নেওয়াজ খান জুয়েল রাজ ৭৪ ড. এ. কে. আব্দুল মোমেন ড. কাবেরী গায়েন ২২ ড. শাখাওয়াৎ নয়ন ডা. সাঈদ এনাম ডোরা প্রেন্টিস তপু সৌমেন তসলিমা নাসরিন তানবীরা তালুকদার দিব্যেন্দু দ্বীপ দেব দুলাল গুহ দেব প্রসাদ দেবু দেবজ্যোতি দেবু ২৬ নিখিল নীল পাপলু বাঙ্গালী পুলক ঘটক ফকির ইলিয়াস ২৪ ফজলুল বারী ৬০ ফড়িং ক্যামেলিয়া ফরিদ আহমেদ ৩২ ফারজানা কবীর খান স্নিগ্ধা বদরুল আলম বন্যা আহমেদ বিজন সরকার বিপ্লব কর্মকার ব্যারিস্টার তুরিন আফরোজ ১৫ ভায়লেট হালদার মারজিয়া প্রভা মাসকাওয়াথ আহসান ১০২ মাসুদ পারভেজ মাহমুদুল হক মুন্সী মিলন ফারাবী মুনীর উদ্দীন শামীম ১০ মুহম্মদ জাফর ইকবাল ১১২ মো. মাহমুদুর রহমান মো. সাখাওয়াত হোসেন মোছাদ্দিক উজ্জ্বল মোনাজ হক রণেশ মৈত্র ১০৮ রতন কুমার সমাদ্দার রহিম আব্দুর রহিম ১৬ রাজেশ পাল ১৯ রুমী আহমেদ রেজা ঘটক ৩২ লীনা পারভীন শওগাত আলী সাগর শাখাওয়াত লিটন শামান সাত্ত্বিক শামীম সাঈদ শারমিন শামস্ ১৪ শাশ্বতী বিপ্লব শিতাংশু গুহ শিবলী নোমান শুভাশিস ব্যানার্জি শুভ ২৪ শেখ মো. নাজমুল হাসান ২১ শেখ হাসিনা শ্যামলী নাসরিন চৌধুরী সঙ্গীতা ইমাম সঙ্গীতা ইয়াসমিন ১৬ সহুল আহমদ সাইফুর মিশু সাকিল আহমদ অরণ্য সাব্বির খান ২৮

ফেসবুক পেইজ