আজ রবিবার, ১৮ আগস্ট, ২০১৯ ইং

একজন ভাষা সংগ্রামীর কথা

রণেশ মৈত্র  

বাংলাদেশের সমগ্র জনসংখ্যা তখন ছিল সাড়ে চার কোটি এ তথ্য ১৯৪৭ সালের পাকিস্তান সৃষ্টি পরবর্তী পূর্ব বাংলার। যে পূর্ব বাংলাকে পাকিস্তানের শাসকগোষ্ঠী পূর্ব পাকিস্তান বলে অভিহিত করতো। আর দ্বিখণ্ডিত পাঞ্জাবের পশ্চিমাংশে সিন্ধু, বেলুচিস্তান , উত্তর-পশ্চিম প্রদেশ নিয়ে গঠিত অংশকে পশ্চিম পাকিস্তান নামে অভিহিত করা হতো। সেই পূর্ব পাকিস্তান যা অতীতে পূর্ববাংলা এবং পশ্চিম পাকিস্তানের উত্তর পশ্চিম সীমান্ত প্রদেশ যাকে সেখানকার অধিবাসীরা পানতুনিস্তান হিসেবে অভিহিত করেন। নানা ভাষাভাষীর মানুষে সমৃদ্ধ ছিল। প্রতিটি প্রদেশের একটি করে প্রধান ভাষাও ছিল, ছিল ভিন্ন ভিন্ন সংস্কৃতিও।

পূর্ব বাংলার অধিবাসীদের মূলভাষা বাংলা, পাঞ্জাবের পাঞ্জাবী, সিন্ধুর সিন্ধী, বেলুচিস্তানের বালুচ বা বেলুচ এবং পানতুনিস্তানের (উত্তর পশ্চিম সীমান্ত প্রদেশ) জনগণের ভাষা পোশতু।

তদুপরি, পাকিস্তানের এই দুই অংশ বিশাল দেশ ভারতের দুই প্রান্তে অবস্থিত ছিল। মাঝখানে ভারত, পূর্বে পূর্ববাংলা এবং পশ্চিমে পশ্চিম পাকিস্তান। দুটি পাকিস্তানের মধ্যে সর্বনিম্ন দূরত্ব ছিল এক হাজার থেকে বার শত মাইল। সরাসরি যাতায়াতের কোন নৌপথ, সড়ক পথ বা রেলপথ ছিল না। একমাত্র বিমানযোগে সরাসরি চলাফেরা করা সম্ভব ছিল এবং তাও শুধুমাত্র পি.আই.এ (পাকিস্তান ইন্টার ন্যাশনাল এয়ার লাইন্স) এর বিমানের মাধ্যমে। স্বভাবত:ই দুই পাকিস্তানের যাতায়াত ছিল অত্যন্ত ব্যয় সাধ্য এবং তা ছিল সাধারণ মানুষের নাগালের বাইরে। তাই একদিকে ভিন্ন ভিন্ন ভাষা, ভিন্ন ভিন্ন সংস্কৃতি, ভিন্ন ভিন্ন সামাজিক ব্যবস্থা ও ভিন্ন সংস্কৃতের অস্তিত্ব ও যাতায়াতের সহজলভ্য সুযোগ-সুবিধা না থাকায় দুই পাকিস্তানের মধ্যে সকল ক্ষেত্রেই মাত্রাধিক ব্যবধান বিরাজ করতো।

শিক্ষাদীক্ষায় সর্বাধিক অগ্রসর ছিল পূর্ব বাংলা, অত:পর পশ্চিম পাঞ্জাব। এই অগ্রসরতাই হলো কাল। একারণেই পাকিস্তান মুসলিম লীগ এই দুটি প্রদেশকে বিভক্ত করেন ধর্মেও ভিত্তিতে। এই ষড়যন্ত্র সফল হওয়ায় বাঙালি ও পাঞ্জাবী এই দুই জাতিকে সর্বাধিক ক্ষতিগ্রস্ত করে।

সেখানেই এই শাসকগোষ্ঠীর ষড়যন্ত্র থেমে থাকে নি। তাদের মাথায় থাকলো পূর্ব বঙ্গকে সার্বিক শোষণের আওতায় নিয়ে যাওয়া। শিক্ষা-দীক্ষা, ব্যবসা-বাণিজ্য, অর্থনীতি অবকাঠামো, কৃষি-শিল্প প্রভৃতি তাবৎ ক্ষেত্রে এই অঞ্চলকে অবহেলিত করে রেখে তাকে দুর্বল করে দিয়ে অবাধে সার্বিক শোষণের লীলাক্ষেত্রে পরিণত করা। সেক্ষেত্রে পাঞ্জাব যেহেতু পশ্চিম পাকিস্তানের অন্তর্ভুক্ত ও বিস্তর শিক্ষিত মানুষের ঐ প্রদেশে বাস, তাই তাদেরকে সরকারী বিভিন্ন উচ্চ প্রশাসনিক পদে ও নানা-বাহিনীতে নিয়োগ দিয়ে তাদেরকে পরিতুষ্ট রাখা হয়। এভাবে ঐ প্রদেশের উচ্চ বিত্ত, উচ্চ ও মধ্যবর্তী মধ্যবিত্ত পরিবার সমূহ যথেষ্ট উপকৃত হন। তাঁরা পাকিস্তানী ভাবাদর্শ সংরক্ষণের দায়িত্বে নিয়োজিত হন।

অপরপক্ষে সকল প্রকার শোষণের করালে বিক্ষিপ্ত হলো পূর্ব বাংলা, বেলুচিস্তান, সিন্ধু ও পাখতুনিস্তানের মানুষেরা। তার মধ্যে পূর্ব বাংলা ও বাঙালি জাতিই সর্বাধিক শোষণ ও নিপীড়নের শিকার হন। আর নিপীড়ন ও শোষণ চালানোর অস্ত্র হিসেবে ব্যবহার করা হয় সাম্প্রদায়িকতা এবং ইসলাম ধর্মকে। কোমলমতি মুসলিম সমাজও প্রথম দিকে ঐ প্রচারণায় যথেষ্ট পরিমাণে প্রভাবিত হন।এই প্রভাবেই ১৯৪৬ সালের নির্বাচনে বাঙালি মুসলিম সমাজ ভারত-বিভাগ ও ধর্মের ভিত্তিতে পাকিস্তান প্রতিষ্ঠার অনুকূলে ঢালাওভাবে ভোট দিয়ে পাকিস্তান প্রতিষ্ঠান নিশ্চিত করেন।

বাঙালি জাতির মূলস্রোতের মাতৃভাষা বাংলা। এ ছাড়াও আদিবাসীদের অসংখ্য ভাষার অস্তিত্বও ছিল এবং আদিবাসীদের ভাষাগুলি ইংরেজ আমল থেকেই চরম ভাবে অবহেলিত থাকার ফলে সেগুলি বেশীর ভাগ ক্ষেত্রেই অপমৃত্যুর শিকার হয়।

কিন্তু বাংলা ভাষা অত্যন্ত সমৃদ্ধ এবং রবীন্দ্রনাথের মুল অবদান সমৃদ্ধ এই ভাষা পৃথিবীতে এক বিশেষ খ্যাতি অর্জন করে বিংশ শতাব্দীর শুরুতেই।

পাকিস্তানের শাসকচক্রের উপলব্ধিতে এল, বাঙালি জাতিকে ধর্মের নামে শ্লোগান তুলে বিভ্রান্ত করে পাকিস্তানের অনুকূলে ভোট আদায় করা যেহেতু সম্ভব হয়েছে সেই হেতু বাঙালির মুখের ভাষা বাংলাকে কেড়ে নিতে পারলে তাদেরকে শিক্ষার আলো থেকে দূরে সরিয়ে আনাও সম্ভব হবে এবং তার ফলে জাতিটি অসচেতন ও অশিক্ষিত হয়ে পড়লে স্থায়ী ভাবেই তাদের উপর শোষণ অব্যাহত রাখা সম্ভব হবে।

এখন একটা হিসেব কষে তারা বাংলা ভাষা ও বাঙালি সংস্কৃতির উপর বড় ধরণের একটি আঘাত হানার সিদ্ধান্ত নিয়েছিল। সুযোগ পেল খন পাকিস্তানের গণপরিষদের করাচী অধিবেশনের শহীদ ধীরেন দত্ত প্রস্তাব উত্থাপন করে বললেন, “বাংলা ভাষা পাকিস্তানের অধিকাংশ মানুষের মুখের ভাষা তাই বাংলাভাষাকে সংসদের অন্যতম ভাষা ও পাকিস্তানের অন্যতম রাষ্ট্রভাষার মর্যাদা প্রদান করা হোক।”

তৎক্ষণাৎ উঠে দাঁড়ালেন পাকিস্তানের তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী লিয়াকত আলী খান। তিনি বলে বসলেন, “প্রস্তাবটি ইসলাম ও পাকিস্তান-বিরোধী। প্রস্তাবকে ধীরেন দত্ত ভারতের দালাল.........। সুতরাং এ প্রস্তাব সম্পূর্ণ অগ্রহণযোগ্য।

ধীরেন দত্ত প্রতিবাদে অধিবেশন ত্যাগ করে সংসদ থেকে বেরিয়ে এসে দ্রুততম সময়ে পি, আই,এ যোগে ঢাকা টলে আসেন। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ও ঢাকার ছাত্রবৃন্দ ঢাকা বিমান বন্দরে তাঁকে বীরোচিত সম্বর্ধনা দেন। ভাষা আন্দোলনের সুরু সেখান থেকেই হয়ে যায় এবং তার পরিণতিতে আমরা বহু দেশপ্রেমিক বাঙালি সন্তানকে অকাতরে প্রাণ বিসর্জন দিতে এবং অসংখ্য তরুণ তরুণীকে কারা নির্যাতন ভোগ করতে দেখেছি। কিন্তু শাসক গোষ্ঠীতে পরাজিত করে শেষ পর্যন্ত বাংলা ভাষার মর্যাদা ও বাঙালি সংস্কৃতির জয় যাত্রা সংরক্ষণ অভূতপূর্ব বিজয় অর্জিত হয়। পরিণতিতে বাঙালির জীবনে বহু পরিবর্তন ও নতুন নতুন সফল আন্দোলন সংগ্রামেরও সূচনা হয়।

পরিত্যক্ত হয় পাকিস্তানের সাম্প্রদায়িক দ্বিজাতিতত্ত্বের, পুন:প্রতিষ্ঠিত হতে থাকে ধর্মনিরপেক্ষ বাংলাদেশের চির অভ্যস্ত ধারার, জন্ম হয় বাহান্নর ভাষা আন্দোলনের পর পরই পাকিস্তানের প্রথম অসাম্প্রদায়িক ছাত্র সংগঠন পূর্ব পাকিস্তান ছাত্র ইউনিয়নের। অবশ্য, ১৯৪৮ সালেই গঠিত হয়েছিল অসাম্প্রদায়িক প্রগতিশীল যুব সংগঠন পূর্ব পাকিস্তান যুবলীগের। এবং এই সাম্রাজ্যবাদ বিরোধী যুবসংগঠনটি বিপুল অবদান রেখেছিল ঐতিহাসিক ভাষা আন্দোলন সংগঠিত করার ক্ষেত্রে এবং ১৯৫৪ সালে মুসলিম লীগ-বিরোধী যুক্তফ্রন্ট গঠনেরও (যার নেতৃত্বে ছিলেন শেরে বাংলা এ.কে. ফজলুল হক, মওলানা আবদুল হামিদ খান ভাসানী ও হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দী)।

ভাষা আন্দোলনের মাত্র দু’বছর ব্যবধানে ১৯৫৪ সালে অনুষ্ঠিত পূর্ব বাংলার নির্বাচনে পাকিস্তানস্রষ্টা মুসলিম লীগের ভরাডুবি ঘটে এবং তার চির সমাধিও সূচিত হয়। দলটি আজতক আর মুহূর্তের জন্যেও মাথা তুলে দাঁড়াতে পারে নি।

অত:পর পূর্বপাকিস্তান মুসলিম ছাত্রলীগ তার নাম থেকে, “মুসলিম শব্দটি বর্জন করে পূর্ব পাকিস্তান ছাত্রলীগ”আওয়ামী মুসলিম লীগ ও তার নাম থেকে “মুসলিম” শব্দটি পরিত্যাগ করে হয়ে ওঠে পূর্ব পাকিস্তান আওয়ামী লীগ এবং দলীয় গঠনতন্ত্র ও মেনিফেষ্টো আরও সংশোধিত করে “ধর্মনিরপেক্ষতা” প্রতিষ্ঠা করে।

ছাত্র সংগঠনগুলির আবেদনের প্রেক্ষিতে দোকান পাটগুলির সাইনবোর্ড সারা দেশে ইংরেজি-আরবির পরিবর্তে বাংলায় লেখা হয়। ব্যাংক ও অন্যান্য সাইনবোর্ড ও বাংলায় লেখা হতে শুরু করে। ব্যাপকভাবে সহশিক্ষা প্রতিষ্ঠিত হতে থাকে সকল স্তরের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলিতে নারী শিক্ষার প্রসারও ঘটতে শুরু হতে থাকে।

মেয়েরা পুনরায় গান-বাজনা, নৃত্য পরিবেশন আবৃত্তি প্রভৃতিতে ব্যাপক ভূমিকা রাখতে এগিয়ে আসে। বাঙালি পুনরায় রবীন্দ্রনাথ , ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগর , নজরুল শরৎচন্দ্র সহ সকল বাঙালি কবি-সাহিত্যিক বিজ্ঞানী ও নানাস্তরের দিক পালকে উপযুক্ত মর্যাদায় শিক্ষা ও সমাজ জীবনে সম্মানজনক আসনে প্রতিষ্ঠিত করতে দৃঢ় পদক্ষেপ গ্রহণ করতে থাকে।

একুশ হয়ে ওঠে বাঙালি জাতির স্মারক জাতীয় উৎসব। আলপনায় মেয়েরা সাজাতে থাকে দেশের হাজার হাজার শহীদ মিনার ও তার গন্তব্যপথ সমূহকে। রবীন্দ্র জয়ন্তী, নজরুল জয়ন্তী, একুশে ফেব্রুয়ারি বাঙালির চেতনা অগ্রসর করে নিতে থাকে বাঙালি জাতীয়তাবাদী চেতনার সহস্র ধারায় সমগ্রজাতি অবগাহন করে একটি সমৃদ্ধ সাংস্কৃতিক বিপ্লব ঘটিয়ে তুলে দেশের সকল অঙ্গনেই এক সুস্থ ধারা পুন:প্রতিষ্ঠিত করতে থাকে। নতুন তরুণ-তরুণীদের বিবাহ অনুষ্ঠানেরও আলপনা, গায়ে হলুদ, বিয়ে বাড়ীর প্রবেশ তোরণে কুলা-চালুন, মাটির হাঁড়ি ফুল প্রভৃতি দিয়ে ধর্ম-বিশ্বাস নির্বিশেষে সাজানোও শুরু হয়ে যায়। বাঙালি সংস্কৃতির এ এক নবযাত্রার অভিযান যেন।

আর এই সকল স্রোত বাঙালিকে ঐক্যবদ্ধ করে এবং সূচিত হয় স্বাধীন বাংলাদেশ গঠনের অপ্রতিরোধ্য চেতনার যা জাতিকে মুক্তিযুদ্ধের অবিস্মরণীয় সুষমামণ্ডিত বাঙালি জাতি গঠন করে।

আর সেই ভাষা আন্দোলনের সূচনা করার গৌরবদীপ্ত সংগঠক ও আন্দোলনকারী তো আমি ও আমার মত আরও কয়েক হাজার আজও জীবিত এক বিপুল সংখ্যক আন্দোলনকারীকে ইতোমধ্যে আমরা হারিয়েছিও।

এখন ভাষা সংগ্রামীর গৌরব ও ঐতিহ্য ধারণ করে মুক্তিযুদ্ধেও অংশ নিয়ে বাঙালি জাতি শুধু সামরিক বিজয় অর্জন করে নি-এক বিশাল অসাম্প্রদায়িক চেতনার স্রোতে অবগাহন করেছে সমগ্রজাতি।

তাদের সম্মিলিত আকাঙ্ক্ষা ও এবারের দাবী:

এক. অবিলম্বে সকল ভাষা সংগ্রামীর তথ্য সংগ্রহ অভিযান সরকারীভাবে শুরু করা হোক;

দুই. সেগুলি তালিকাবদ্ধ করে তা এক বিশেষ গেজেট আকারে প্রকাশ করা হোক;

তিন. পাঠ্যপুস্তক গুলিতে হেফাজত ইসলামের দাবী অনুযায়ী যে সকল কবি-সাহিত্যিকের রচনা বাদ দেওয়া হয়েছে-সেগুলি পুন:স্থাপনের ব্যবস্থা অবিলম্বে গ্রহণ করে সকল রচনা পাঠ্যপুস্তক থেকে বাদ দেওয়া হোক;

চার. সংবিধান অবিলম্বে সংশোধন করে “বিসমিল্লাহ্” ও “রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম” তুলে দেওয়া হোক;

পাঁচ. ধর্মীয় বিবেচনায় সংখ্যালঘু সম্প্রদায় সমূহকে নির্যাতনকারীদেরকে অবিলম্বে বিচারের আওতায় এনে (২০০১সাল থেকে) অপরাধীদেরকে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি প্রদান করা ও সেই লক্ষ্যে প্রতি জেলায় বিশেষ ট্রাইব্যুনাল গঠন করা হোক;

ছয়. নারীর প্রতি বৈষম্যমূলক তাবৎ আইন বাতিল করে হিন্দু-মুসলিম উত্তরাধিকার আইন সংশোধন করে একটি সমন্বিত উত্তরাধিকার আইন প্রণয়ন করে পৈত্রিক সম্পত্তিতে নারী পুরুষ নির্বিশেষে সকল সন্তানের ও বিধবা পত্নীর সমান অধিকার প্রতিষ্ঠা করা হোক-নারী নির্যাতন বিরোধী তাবৎ আইন অর্থবহভাবে কার্যকর করা হোক;

সাত. শহীদ ধীরেন দত্ত, বরকত, সালাম, রফিক, জব্বার, শফিউর ও ভাষা আন্দোলনের নেতা যেমন মওলানা ভাসানী শেখ মুজিবুর মওলানা আবদুল রশিদ, তর্ক বাগীশ, তাজউদ্দিন আবদুল মতিন, গাজীউল হক, মোঃ আহমেদ, তোয়াহা, ইমাদুল্লাহ, মোহাম্মদ সুলতান সহ আপর নেতৃবৃন্দকে বাংলাদেশের “জাতীয় বীর” হিসেবে ঘোষণা করে বিশেষ গেজেট প্রকাশ করা হোক।

আট. অর্পিত সম্পত্তি প্রত্যর্পণ আইন, ২০০১ অবিলম্বে পুরোপুরি বাস্তবায়ন করা হোক;

 

রণেশ মৈত্র, লেখক, একুশে পদকপ্রাপ্ত সাংবাদিক; মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক। ইমেইল : [email protected]

মুক্তমত বিভাগে প্রকাশিত লেখার বিষয়, মতামত, মন্তব্য লেখকের একান্ত নিজস্ব। sylhettoday24.com-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে যার মিল আছে এমন সিদ্ধান্তে আসার কোন যৌক্তিকতা সর্বক্ষেত্রে নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে sylhettoday24.com আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো দায় গ্রহণ করে না।

আপনার মন্তব্য

লেখক তালিকা অঞ্জন আচার্য অসীম চক্রবর্তী আজম খান ১০ আজমিনা আফরিন তোড়া আফসানা বেগম আবু এম ইউসুফ আবু সাঈদ আহমেদ আব্দুল করিম কিম ২০ আব্দুল্লাহ আল নোমান আব্দুল্লাহ হারুন জুয়েল আমিনা আইরিন আরশাদ খান আরিফ জেবতিক ১২ আরিফ রহমান ১৪ আরিফুর রহমান আলমগীর নিষাদ আলমগীর শাহরিয়ার ৩৯ আশরাফ মাহমুদ আশিক শাওন ইমতিয়াজ মাহমুদ ৪৯ ইয়ামেন এম হক এখলাসুর রহমান ১৯ এনামুল হক এনাম ২৫ এমদাদুল হক তুহিন ১৯ এস এম নাদিম মাহমুদ ১৫ ওমর ফারুক লুক্স কবির য়াহমদ ৩১ কাজল দাস ১০ কাজী মাহবুব হাসান খুরশীদ শাম্মী ১১ গোঁসাই পাহ্‌লভী ১৪ চিররঞ্জন সরকার ৩৫ জফির সেতু জহিরুল হক বাপি ২৮ জহিরুল হক মজুমদার জান্নাতুল মাওয়া জাহিদ নেওয়াজ খান জুয়েল রাজ ৭০ ড. এ. কে. আব্দুল মোমেন ড. কাবেরী গায়েন ২২ ড. শাখাওয়াৎ নয়ন ডা. সাঈদ এনাম ডোরা প্রেন্টিস তপু সৌমেন তসলিমা নাসরিন তানবীরা তালুকদার দিব্যেন্দু দ্বীপ দেব দুলাল গুহ দেব প্রসাদ দেবু দেবজ্যোতি দেবু ২৪ নিখিল নীল পাপলু বাঙ্গালী পুলক ঘটক ফকির ইলিয়াস ২৪ ফজলুল বারী ৫১ ফড়িং ক্যামেলিয়া ফরিদ আহমেদ ৩২ ফারজানা কবীর খান স্নিগ্ধা বদরুল আলম বন্যা আহমেদ বিজন সরকার বিপ্লব কর্মকার ব্যারিস্টার তুরিন আফরোজ ১৫ ভায়লেট হালদার মারজিয়া প্রভা মাসকাওয়াথ আহসান ১০১ মাসুদ পারভেজ মাহমুদুল হক মুন্সী মিলন ফারাবী মুনীর উদ্দীন শামীম ১০ মুহম্মদ জাফর ইকবাল ১১০ মো. মাহমুদুর রহমান মো. সাখাওয়াত হোসেন মোছাদ্দিক উজ্জ্বল মোনাজ হক রণেশ মৈত্র ৯৬ রতন কুমার সমাদ্দার রহিম আব্দুর রহিম ১৫ রাজেশ পাল ১৯ রুমী আহমেদ রেজা ঘটক ৩২ লীনা পারভীন শওগাত আলী সাগর শাখাওয়াত লিটন শামান সাত্ত্বিক শামীম সাঈদ শারমিন শামস্ ১৪ শাশ্বতী বিপ্লব শিতাংশু গুহ শিবলী নোমান শুভাশিস ব্যানার্জি শুভ ২৪ শেখ মো. নাজমুল হাসান ২১ শেখ হাসিনা শ্যামলী নাসরিন চৌধুরী সঙ্গীতা ইমাম সঙ্গীতা ইয়াসমিন ১৬ সহুল আহমদ সাইফুর মিশু সাকিল আহমদ অরণ্য সাব্বির খান ২৮

ফেসবুক পেইজ