বৃহস্পতিবার, , ১৮ অক্টোবর ২০১৮ ইং

নিজস্ব প্রতিবেদক

০৬ মে, ২০১৮ ২১:৫৬

‘১৫ তে প্রেরণা’

নর্থ ইষ্ট মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালের ইন্টার্নি এন্ডিং প্রোগ্রাম

জীবনের বেশ বড় একটা অংশ আমাদের কেটে যায় ক্যাম্পাস প্রাঙ্গণে। স্কুল আর কলেজ জীবনের বন্ধুত্ব পেরিয়ে একসময় জীবনে আসে ভার্সিটি সময়ের বন্ধুরা। আর এই শিক্ষা জীবনের অলি গলি থেকেই কিন্তু আমরা খুঁজে নেই আমাদের আজীবনের বন্ধুদের।

কিন্তু যখনই একাডেমিক জীবনের শেষ সময় আসে তখনই মনের মধ্যে বেজে উঠে এক কান্নার সুর। আর তখনই মনে এই সময়টা যদি শেষ না হতো। অথবা সময়টা যদি আরো দীর্ঘ হতো তাহলে কিসেরইবা এতোটা ক্ষতি হতো।

ক্যাম্পাস জীবনের পরেও হয়তো বন্ধুত্ব হয় এবং ভালো বন্ধুত্বই হয়। কিন্তু সহপাঠীদের সাথে যে বন্ধুত্বের আবেদনটা চিরকালই কিন্তু একটু অন্য রকম রয়ে যায় মনের মাঝে। আর সময়টাকে স্মরণ করে রাখতেই এক ঝাঁক নবীন চিকিৎসক তাদের সহপাঠীদের সাথে একাডেমিক জীবনের শেষ সময় টুকু কাটাতে চষে বেড়াচ্ছেন পাহাড় থেকে সাগর আর সাগর থেকে প্রকৃতির প্রত্যেকটা বাঁকে বাঁকে।

বলছিলাম নর্থ ইষ্ট মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালের ১৫ তম ব্যাচের শিক্ষার্থীদের কথা। সদ্য তারা ইন্টার্নি শেষ করে একাডেমির কার্যক্রম গুটিয়ে দিয়ে ঘটা করে পালন করেছেন ইন্টার্নি এন্ডিং প্রোগ্রাম। নানা ভাবে এ আয়োজন পালনে কোন কমতি রাখেনি ১৫ তম ব্যাচের এ নবীন চিকিৎসকরা। সহপাঠীদের সাথে শেষ সময়টুকু স্মরণীয় করে রাখতে সবাই মিলে ছুটি কাটাতে এখন পুরোদমে ব্যস্ত সময় পার করছেন তারা।

‘১৫ তে প্রেরণা’ এই স্লোগানকে সামনে রেখে নর্থইষ্ট মেডিকেল কলেজের এক ঝাঁক প্রকৃতিপ্রেমী নবীন চিকিৎসক একাডেমিক কার্যক্রম শেষ করে বান্দরবন, রাঙ্গামাটি, বঙ্গপোসাগরসহ বাংলাদেশের বিভিন্ন পর্যটন স্পটে ৫ দিনের আনন্দ ভ্রমণে বেড়িয়ে পড়েছেন।

তাদের একজন ডা. দেবদুলাল দে পরাগ জানান, ব্যস্ততম জীবন থেকে বেরিয়ে এসে শান্তির কোলাহল প্রকৃতির অপরূপ লীলাভূমি কার না ভাল লাগে। তাই ব্যস্ততম জীবনের একটু শান্তির নীড় খুঁজতে ৫ দিনের আনন্দ ভ্রমণে বেরিয়েছি আমরা ১৫তম ব্যাচের সকল সহপাঠী। সামনে কর্মজীবনের ডাক তাই হয়ত এটাই সহপাঠীদের সাথে এটাই শেষ ট্যুর।

সেই দলের আরেক ভ্রমনপ্রেমী ডা. শর্মিষ্ঠা মিষ্টু জানান, ভ্রমণ এমন একটি জিনিস যার নিদিষ্ট কোন সীমারেখা নেই,   ভ্রমণে যতো পথ পাড়ি দেবেন মনের মধ্যে জমে থাকা চাপ, বিষণ্ণতা সব কিছুই কমে যেতে থাকবে আর সেই সঙ্গে বাড়তে থাকবে সামাজিক দক্ষতা।

উল্ল্যখ্য ১ এপ্রিল ইন্টার্নি শেষ করেছে নর্থ-ইষ্ট মেডিকেল কলেজের ১৫তম ব্যাচের শিক্ষার্থীরা। একাডেমীর জীবনের শেষে মূহুর্তটাকে স্মরণীয় করে রাখতে আয়োজন করা হয় নানা অনুষ্ঠানের।

নর্থ ইষ্ট মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালের ১৫ তম ব্যাচের সকল শিক্ষার্থীদের উদ্যোগে গত ২৮ এপ্রিল আনন্দ র‍্যালি, কেক কাটা, আলোচনা সভা, ক্রেস্ট প্রদান ও স্মৃতিচারণের মধ্যদিয়ে শুরু হয় ‘১৫ তে প্রেরণা’ নামের ইন্টার্নি এন্ডিং প্রোগ্রামের।

৩০ শে এপ্রিল আয়োজন করা হয় বর্ণাঢ্য সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের এতে গানে গানে মাতিয়ে রাখে জনপ্রিয় দেশীয় ব্যান্ড জলের গান।  একে একে পরিবেশন করেন বকুলফুল ও ঝড়া পাতাসহ অসংখ্য জনপ্রিয় গান। গানের তালে তালে একসাথে নাচে গানে সময়কে উপভোগ করেন নর্থ ইষ্ট মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালের ১৫তম ব্যাচের সকল শিক্ষার্থীসহ শিক্ষক ও অন্যান্য কলেজটির অন্য ব্যাচের শিক্ষার্থীবৃন্দ।

আয়োজকদের একজন জানান, সংস্কৃতির চর্চা আমাদের মননশীলতার পরিচয় দেয়। পৃথিবীতে সংস্কৃতি চর্চা ছাড়া কোথাও সমাজে পরিবর্তন আসেনি।

আনুষ্ঠানিকতা শেষ করেই ১৫ তম ব্যাচের শিক্ষার্থীরা চলে যান প্রকৃতির কোলে। সহপাঠীদের সাথে শেষ সময় টুকু উপভোগ করতে এখন তারা ঘুরে বেড়াচ্ছেন বান্দরবন, রাঙামাটি, কক্সবাজারসহ আশেপাশের কয়েকটি এলাকা।

আপনার মন্তব্য

আলোচিত