সিলেটটুডে ডেস্ক

১৯ জুলাই, ২০২১ ০২:০৮

বাংলাদেশি কীভাবে ভারতের মন্ত্রিসভায়, মোদিকে চিঠি

ভারতে নরেন্দ্র মোদি মন্ত্রিসভার নবীন সদস্য কোচবিহারের সাংসদ নিশীথ প্রামাণিক আসলে বাংলাদেশি নাগরিক কি না, এমনই চাঞ্চল্যকর প্রশ্ন তুলে প্রধানমন্ত্রীর কাছে তদন্তের দাবি জানালেন বিরোধীদল কংগ্রেসের জেষ্ঠ্য নেতা ও অসমের রাজ্যসভার সদস্য রিপুণ বোরা৷

কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী নিশীথ প্রামাণিকের নাগরিকত্ব ইস্যুতে জাতীয় এবং আঞ্চলিক পর্যায়ের বেশ কয়েকটি সংবাদমাধ্যমে (বারাক বাংলা, রিপাবলিক টিভি ত্রিপুরা, ইন্ডিয়া টুডে, বিজনেস স্ট্যান্ডার্ড) প্রকাশিত খবরের ভিত্তিতেই প্রশ্ন তুলে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে চিঠি দিয়েছেন রিপুণ বোরা৷

চিঠিতে তিনি লিখেছেন, নিশীথ প্রামাণিক একজন বাংলাদেশি নাগরিক৷ তার জন্মস্থান বাংলাদেশের গাইবান্ধা জেলার পলাশবাড়ি উপজেলার হরিনাথপুর গ্রামে৷ কম্পিউটার বিষয়ে উচ্চ শিক্ষার জন্য তিনি পশ্চিমবঙ্গে আসেন এবং ডিগ্রি লাভের পর প্রথমে তৃণমূল কংগ্রেসের রাজনীতিতে এবং পরে বিজেপিতে যোগ দিয়ে পরবর্তীতে তিনি কোচবিহারের সাংসদ হয়েছেন৷’

চিঠিতে কংগ্রেস সাংসদ আরও উল্লেখ করেছেন, কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পাওয়ার পর তার বাংলাদেশের বাড়িতে নিশীথের ভাইসহ পরিবারের সদস্যরা উচ্ছ্বাস প্রকাশ করেছেন৷

কংগ্রেস সাংসদের আরও অভিযোগ, কারসাজি করে নির্বাচনী হলফনামায় নিজের জন্মস্থান গাইবান্ধার স্থানে কোচবিহার দেখিয়েছেন নিশীথ৷

রিপুণ ভোরা প্রধানমন্ত্রীর উদ্দেশে লিখেছেন, ‘এই খবর যদি সত্যি হয় তা হলে তা অত্যন্ত ভয়াবহ ও স্পর্শকাতর একটি বিষয় হয়ে দাঁড়াবে৷

কারণ একজন বিদেশি নাগরিক ভারতের কেন্দ্রীয় মন্ত্রীর দায়িত্ব পেয়েছেন৷ আপনার কাছে আমার অনুরোধ, নিশীথ প্রামাণিকের প্রকৃত জন্মস্থান কোথায় তা জানতে তদন্তের নির্দেশ দিন৷ যাতে নিশীথ প্রামাণিকের নাগরিকত্ব নিয়ে স্বচ্ছতা বজায় থাকে এবং এ বিষয়ে দেশ জুড়ে তৈরি হওয়া বিভ্রান্তি দূর হয়৷’

শিক্ষামন্ত্রীরও একই দাবি

কংগ্রেস নেতার এই চিঠির কথা উল্লেখ করে নিশীথ প্রামাণিকের নাগরিকত্ব নিয়ে সরব হয়েছেন রাজ্যের শিক্ষামন্ত্রী ব্রাত্য বসুও৷

ট্যুইটারে তিনি লিখেছেন, ‘রাজ্যসভার সাংসদ রিপুণ বোরা এই প্রশ্নগুলি তুলেছেন৷ একাধিক সংবাদমাধ্যমেও দাবি করা হয়েছে যে নিশীথ প্রামাণিক বাংলাদেশের নাগরিক৷

মন্ত্রী হিসেবে তাকে নিয়োগের আগে কি কোনও তথ্যই যাচাই করা হয়নি? এ ছাড়াও তার বিরুদ্ধে থাকা একাধিক ফৌজদারি মামলার কথাও ভুলে গেলে চলবে না৷ লজ্জা!'

বিজেপির চ্যালেঞ্জ

বিজেপি অবশ্য কংগ্রেস নেতার বক্তব্য সরাসরি নাকচ করে দিয়ে পাল্টা চ্যালেঞ্জ ছুঁড়ে দিয়েছে। ক্ষমতাসীন দলটি জানিয়েছে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী নিশীথ প্রামাণিকের নাগরিকত্ব নিয়ে সন্দেহ থাকলে বিরোধীরা আদালতে যেতে পারেন।

নিশীথ প্রামাণিকের ঘনিষ্ঠ মহল সূত্রে সমস্ত অভিযোগ অস্বীকার করে দাবি করা হয়েছে, কোচবিহারের সাংসদের জন্ম থেকে শুরু করে পঠন-পাঠন এবং বড় হওয়া সবই ভারতের মাটিতে৷

উল্লেখ্য, গত ৭ জুলাই নরেন্দ্র মোদির মন্ত্রিসভার নবীন সদস্য হিসেবে রাষ্ট্রপতির কাছে শপথবাক্য পাঠ করেছেন নিশীথ প্রামাণিক।

কে এই নিশীথ প্রামাণিক

নিশীথ প্রামাণিকের পৈতৃক বাড়ি গাইবান্ধার পলাশবাড়ী উপজেলার ভেলাকোপা গ্রামে। তার বাবার নাম বিধু ভূষণ প্রামাণিক।

নিশীথের জ্যাঠা শ্রীদক্ষিণা রঞ্জন প্রামাণিক জানান, নিশীথের বাবা বিধু ভূষণ প্রামাণিক দেশভাগের আগে ভারতের কোচবিহারে পাড়ি জমান। এরপর সেখানে বিয়ে করে স্থায়ীভাবে বসবাস শুরু করেন। নিশীথ প্রামাণিক তাদের একমাত্র সন্তান। ১৯৮৬ সালে জন্মগ্রহণ করেন নিশীথ।

তিনি বলেন, ‘সাংসদ থেকে এবার মোদি সরকারের নবগঠিত মন্ত্রিসভায় কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র, যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্ব পেয়েছে নিশীথ। মাত্র ৩৫ বছরে তার এই অর্জনে আমরা খুশি।’

নিশীথের জ্যাঠা আরও বলেন, ‘২০১৮ সালে ঢাকায় এসেছিল নিশীথ। সে সময় ভেলাকোপায় বেড়াতে এসেছিল। ভারতে বাস করলেও নিশীথ আমাদের সন্তান। এটা আমাদের জন্য গৌরবের।

‘ভারতে লেখাপড়া শেষ করে প্রথম শিক্ষকতায় যোগ দেন নিশীথ। কিছুদিন পর তিনি শিক্ষকতা ছেড়ে রাজনীতিতে যোগ দেন। তার জনপ্রিয়তার কারণে প্রথমে তৃণমূল কংগ্রেসের কোচবিহার জেলার যুব সেক্রেটারি নির্বাচিত হন নিশীথ। পরে যোগ দেন বিজেপিতে।’

জ্যাঠাতো ভাই সঞ্জিত কুমার প্রামাণিক বলেন, ‘ভারতের কোচবিহার জেলার দিনহাটা থানার খারিজা বালাডাঙ্গা (ভেটাগুড়ি) গ্রামের বাসিন্দা আমার ভাই। তার এই সাফল্যে আমরা গর্বিত।’

প্রতিবেশী আনোয়ার হোসেন বলেন, ‘নিশীথ প্রামাণিক তার যোগ্যতা ও জনপ্রিয়তার মূল্যায়ন পেয়েছেন। অজপাড়া গ্রামের ছেলে নিশীথের এই অর্জন গ্রামের কেউ কল্পনাও করতে পারিনি।’

গাইবান্ধার জেলা পরিষদের সদস্য ও ভেলাকোপা গ্রামের বাসিন্দা মো. জরিদুল হক বলেন, ‘ছোটবেলা থেকেই নিশীথ মেধাবী। তার মেধা, মনন ও আত্মবিশ্বাস তাকে আজ এত দূর নিয়ে গেছে।’

আপনার মন্তব্য

আলোচিত