সিলেটটুডে ডেস্ক

০৬ জুন, ২০২৪ ১৩:১৮

চতুর্থ ধাপে ৬০ উপজেলায় চেয়ারম্যান হলেন যারা

প্রতীকী ছবি

ষষ্ঠ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চতুর্থ ধাপের ভোটগ্রহণ বুধবার (৫ জুন) শেষ হয়েছে।

দেশের ৬০ উপজেলার ৫ হাজার ১৪৪টি ভোটকেন্দ্রে চতুর্থ ধাপের ভোটগ্রহণ শুরু হয়। এরমধ্যে ছয়টিতে ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিনে (ইভিএম) এবং বাকিগুলোতে ব্যালটে ভোট হয়।

চতুর্থ ধাপে ৩৪ দশিক ৩৩ শতাংশ ভোট পড়েছে বলে জানিয়েছেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কাজী হাবিবুল আউয়াল।

চতুর্থ ধাপে চেয়ারম্যান হলেন যারা—

কানাইঘাট (সিলেট) : জেলা আওয়ামী লীগের বন ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক মোস্তাক আহমদ পলাশ মোটরসাইকেল প্রতীকে ৩৫ হাজার ৩০২ ভোট পেয়ে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন।

জকিগঞ্জ (সিলেট) : উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি লোকমান উদ্দিন চৌধুরী দোয়াত-কলম প্রতীকে ২৪ হাজার ৬৩ ভোট পেয়ে পুনরায় চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন।

মাধবপুর (হবিগঞ্জ) : উপজেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি সৈয়দ মো. শাহজাহান ঘোড়া প্রতীকে ৬২ হাজার ২৫৬ ভোট পেয়ে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন।

চুনারুঘাট (হবিগঞ্জ) : উপজেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি সৈয়দ লিয়াকত হাসান ঘোড়া প্রতীকে ৫২ হাজার ৮২৯ ভোট পেয়ে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন।

শান্তিগঞ্জ (সুনামগঞ্জ) : শান্তিগঞ্জ উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে বিজয়ী হয়েছেন সাদাত মান্নান অভি। তিনি আনারস প্রতীক নিয়ে ৪০ হাজার ৯৮৭ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন।

বাঁশখালী (চট্টগ্রাম) : চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের শ্রম বিষয়ক সম্পাদক মো. খোরশেদ আলম ৬১ হাজার ৫১১ ভোট পেয়ে চেয়ারম্যান পদে বিজয়ী হয়েছেন।

লোহাগাড়া (চট্টগ্রাম) : উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি খোরশেদ আলম চৌধুরী আনারস প্রতীকে ৩০ হাজার ৮৯৯ ভোট পেয়ে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন।

ছাগলনাইয়া (ফেনী) : জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য মো. মিজানুর রহমান মজুমদার কাপ-পিরিচ প্রতীকে ৫৪ হাজার ৯২১ ভোট পেয়ে চেয়ারম্যান পদে বিজয়ী হয়েছেন।

হোমনা (কুমিল্লা) : কুমিল্লা উত্তর জেলা মহিলা লীগের সদস্য রেহানা বেগম আনারস প্রতীকে ৪০ হাজার ২৭৭ ভোট পেয়ে পুনরায় চেয়ারম্যান পদে নির্বাচিত হয়েছেন।

নাঙ্গলকোট (কুমিল্লা) : উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক নাজমুল হাসান বাছির ভূঁইয়া দোয়াত-কলম প্রতীকে ৪৭ হাজার ৯৫ ভোট পেয়ে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন।

চৌদ্দগ্রাম (কুমিল্লা) : উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক রহমত উল্লাহ বাবুল আনারস প্রতীকে ১ লাখ ২৪ হাজার ৮৯৪ ভোট পেয়ে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন।

কচুয়া (চাঁদপুর) : পৌর যুবলীগের সভাপতি মো. মাহবুব আলম টেলিফোন প্রতীকে ৩৪ হাজার ৪৩০ ভোট পেয়ে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন।

ফরিদগঞ্জ (চাঁদপুর) : উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি খাজে আহমেদ মজুমদার চিংড়ি প্রতীকে ৬২ হাজার ৪৯৬ ভোট পেয়ে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন।

বাবুগঞ্জ (বরিশাল) : বরিশাল জেলা মহিলা শ্রমিক লীগের সাধারণ সম্পাদক মোসা. ফারজানা বিনতে ওহাব আনারস প্রতীকে ২৮ হাজার ৫১৪ ভোট পেয়ে চেয়ারম্যান হয়েছেন।

বানারীপাড়া (বরিশাল) : উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি গোলাম ফারুক দোয়াত-কলম প্রতীকে ৩৩ হাজার ৭৬২ ভোট পেয়ে চতুর্থবারের মতো চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন।

উজিরপুর (বরিশাল) : উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি হাফিজুর রহমান ইকবাল কাপ-পিরিচ প্রতীকে ৩১ হাজার ৩৫৫ ভোট পেয়ে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন।

আমতলী (বরগুনা) : উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি ও সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান গোলাম সরোয়ার ফোরকান আনারস প্রতীকে ৩৭ হাজার ১৮৮ ভোট পেয়ে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন।

তালতলী (বরগুনা) : উপজেলা যুবলীগের সাবেক সভাপতি মো. মনিরুজ্জামান মিন্টু আনারস প্রতীক নিয়ে ২০ হাজার ৩৯৬ ভোট পেয়ে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন।

বদরগঞ্জ (রংপুর) : জেলা যুবলীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি ফজলে রাব্বী সুইট কাপ-পিরিচ প্রতীকে ৬১ হাজার ৫৯৬ ভোট পেয়ে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন।

তারাগঞ্জ (রংপুর) : উপজেলা আওয়ামী লীগের সদস্য আনিচুর রহমান দোয়াত-কলম প্রতীকে ৪১ হাজার ৭৩৫ ভোট পেয়ে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন।

ফুলবাড়ী (দিনাজপুর) : উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আতাউর রহমান মিল্টন ৫৭ হাজার ৬৬২ ভোট পেয়ে পুনরায় চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন।

পার্বতীপুর (দিনাজপুর) : উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি হাফিজুর রহমান প্রামাণিক ৭১ হাজার ১৬৭ ভোট পেয়ে পুনরায় চেয়ারম্যান হয়েছেন।

নবাবগঞ্জ (দিনাজপুর) : উপজেলার ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক তাজওয়ার মোহাম্মদ ফাহিম ৪৯ হাজার ৯৩১ ভোট পেয়ে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন।

চারঘাট (রাজশাহী) : চারঘাট উপজেলার চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন মোটরসাইকেল প্রতীকের কাজী মাহমুদুল হাসান। তিনি পেয়েছেন ৩২ হাজার ২৮১ ভোট।

বাঘা (রাজশাহী) : বাঘা উপজেলায় চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন মোটরসাইকেল প্রতীকের লায়েব উদ্দিন লাভলু। তিনি পেয়েছেন ৩২ হাজার ৪০৫ ভোট।

কামারখন্দ (সিরাজগঞ্জ) : উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি আব্দুল মতিন চৌধুরী আনারস প্রতীকে ১৭ হাজার ২৮৬ ভোট পেয়ে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন।

রায়গঞ্জ (সিরাজগঞ্জ) : উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি গোলাম হোসেন শোভন সরকার ঘোড়া প্রতীকে ৭০ হাজার ৮৪২ ভোট পেয়ে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন।

যশোর সদর : যুবলীগ কর্মী তৌহিদ চাকলাদার ফন্টু মোটরসাইকেল প্রতীকে ৫৭ হাজার ৯১৪ ভোট পেয়ে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন।

নন্দীগ্রাম (বগুড়া) : উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আনোয়ার হোসেন রানা মোটরসাইকেল প্রতীকে ৪১ হাজার ৩৭৯ ভোট পেয়ে চেয়ারম্যান পদে বিজয়ী হয়েছেন।

ধুনট (বগুড়া) : উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মুহাম্মদ আসিফ ইকবাল আনারস প্রতীকে ৪০ হাজার ৬০ ভোট পেয়ে চেয়ারম্যান পদে নির্বাচিত হয়েছেন।

সরিষাবাড়ী (জামালপুর) : উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মো. রফিকুল ইসলাম আনারস প্রতীকে ৪২ হাজার ২১৩ ভোট পেয়ে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন।

ভালুকা (ময়মনসিংহ) : জেলা আওয়ামী লীগের কোষাধ্যক্ষ হাজী রফিকুল ইসলাম রফিক আনারস প্রতীক নিয়ে ৪৮ হাজার ৬৯৪ ভোট পেয়ে চেয়ারম্যান পদে বিজয়ী হয়েছেন।

গফরগাঁও (ময়মনসিংহ) : উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি আশরাফ উদ্দিন বাদল আনারস প্রতীক নিয়ে ৭১ হাজার ৩০৪ ভোট পেয়ে চেয়ারম্যান পদে বিজয়ী হয়েছেন।

নান্দাইল (ময়মনসিংহ) : উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আমিনুল ইসলাম শাহান দোয়াত-কলম প্রতীক নিয়ে ৪৬ হাজার ৪৩৬ ভোট পেয়ে চেয়ারম্যান পদে বিজয়ী হয়েছেন।

কেন্দুয়া (নেত্রকোনা) : উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে মোফাজ্জল হোসেন ভূইয়া ঘোরা প্রতীক নিয়ে ৩৭ হাজার ৭০ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন।

বাজিতপুর (কিশোরগঞ্জ) : রেজাউল হক কাজল আনারস প্রতীকে ৩৬ হাজার ২১২ ভোট পেয়ে চেয়ারম্যান হয়েছেন।

ভৈরব (কিশোরগঞ্জ) : উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে কাপ-পিরিচ প্রতীকে মো. আবুল মনসুর বিপুল ভোটে নির্বাচিত হয়েছেন। তিনি পেয়েছেন ৪৮ হাজার ২০০ ভোট।

কুলিয়ারচর (কিশোরগঞ্জ) : একক প্রার্থী হিসেবে আবুল হোসেন লিটন আগেই বিনাপ্রতিদ্বন্দ্বিতায় বিজয়ী হয়েছেন।

মির্জাপুর (টাঙ্গাইল) : আওয়ামী লীগ নেতা ব্যারিস্টার তাহরীম হোসেন সীমান্ত আনারস প্রতীকে ৫৫ হাজার ৬৪৪ ভোট পেয়ে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন।

সখীপুর (টাঙ্গাইল) : মুহাম্মদ আবু সাঈদ মিয়া আনারস প্রতীকে ৩৭ হাজার ৭৯১ ভোট পেয়ে চেয়ারম্যান হয়েছেন।

বাসাইল (টাঙ্গাইল) : কাজী অলিদ ইসলাম আনারস প্রতীকে ২৮ হাজার ৮৫৪ ভোট পেয়ে তৃতীয়বারের মতো চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন।

গোপালপুর (টাঙ্গাইল) : কে এম গিয়াস উদ্দিন দোয়াত-কলম প্রতীকে ৩৩ হাজার ৫১ ভোট পেয়ে চেয়ারম্যান পদে নির্বাচিত হয়েছেন।

বোয়ালমারী (ফরিদপুর) : উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এম এম মোশাররফ হোসেন মুশা মিয়া দোয়াত-কলম প্রতীকে ৪৩ হাজার ২৩৬ ভোট পেয়ে চতুর্থবারের মতো চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন।

আলফাডাঙ্গা (ফরিদপুর) : ব্যবসায়ী কাজী মনিরুল হক মোটরসাইকেল প্রতীকে ১৩ হাজার ৫৯৩ ভোট পেয়ে চেয়ারম্যান পদে বিজয়ী হয়েছেন।

দাকোপ (খুলনা) : দাকোপ উপজেলায় আবুল হোসেন ৩৬ হাজার ৩২৯ ভোট পেয়ে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন।

বটিয়াঘাটা (খুলনা) : বটিয়াঘাটা উপজেলায় মো. মোতাহার হোসেন ৩৩ হাজার ৭৮৭ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন।

রূপসা (খুলনা) : রূপসা উপজেলায় নির্বাচিত হয়েছেন এস এম হাবিবুর রহমান। তিনি পেয়েছেন ২৫ হাজার ৭৭৭ ভোট।

দেশের ৪৯৫টি উপজেলার মধ্যে নির্বাচন উপযোগী ৪৮৫ উপজেলায় চার ধাপে ভোট হয়েছে এবার। প্রথম ধাপে ১৩৯ উপজেলায় ভোট হয়েছে গত ৮ মে। এসব উপজেলায় গড়ে প্রায় ৩৬ শতাংশ ভোট পড়েছে। প্রথম ধাপে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় ২৮ জন নির্বাচিত হন।

দ্বিতীয় ধাপে ১৫৬টি উপজেলা নির্বাচনে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হন ২২ জন। ২১ মে এই ধাপের নির্বাচনে ভোট পড়ে ৩৮ শতাংশ। তৃতীয় ধাপে মোট ১ হাজার ১৫২ প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন। ২৯ মে এই ধাপের নির্বাচনে ৩৫ শতাংশ ভোট পড়ে।

ঘূর্ণিঝড় রেমালের কারণে তৃতীয় ধাপে ২২টি উপজেলা পরিষদ নির্বাচন স্থগিত করা হয়। এরমধ্যে দুটির নির্বাচন বুধবার অনুষ্ঠিত হয়েছে। বাকি ২০ উপজেলায় ভোট হবে আগামী ৯ জুন।

আপনার মন্তব্য

আলোচিত