নিজস্ব প্রতিবেদক

১৭ জুন, ২০২৪ ২২:২৯

সিলেট বিভাগে বৃষ্টি নিয়ে যে দুঃসংবাদ দিল আবহাওয়া অধিদপ্তর

ছবি: সংগৃহীত

সোমবার ভোররাত থেকে সিলেটে টানা টানা বৃষ্টি হয়েছে। এতে সিলেট নগরে ভয়াবহ জলাবদ্ধতা দেখা দিয়েছে। পানিতে তলিয়ে গেছে নগরের বেশির ভাগ এলাকা। ঈদের সকালে এমন পরিস্থিতি দুর্ভোগে পড়েছেন নগরবাসী। শুধু সিলেট জেলাই নয়, এই বিভাগের সুনামগঞ্জ ও মৌলভীবাজার জেলায় টানা বৃষ্টিতে শহর এলাকায় জলাবদ্ধতা দেখা দিয়েছে।

এসব জেলার বিভিন্ন উপজেলার নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হয়েছে। এতে মানুষের দুর্ভোগ বেড়েছে। এমন পরিস্থিতির মাঝে দুঃসংবাদ দিল আবহাওয়া অধিদপ্তর।

আবহাওয়া অধিদপ্তরের তথ্য অনুযায়ী, আগামী ২৪ হতে ৭২ ঘণ্টায় সিলেট অঞ্চলের উজানে এবং ভারী থেকে অতিভারী বৃষ্টিপাতের পূর্বাভাস রয়েছে। এতে সিলেট ও সুনামগঞ্জ জেলায় চলমান বন্যা পরিস্থিতির আরও অবনতির পাশাপাশি মৌলভীবাজার জেলায় বন্যা পরিস্থিতির সৃষ্টি হতে পারে।

বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ডের (পাউবো) সিলেট কার্যালয়ের তথ্যমতে, সোমবার দুপুর পর্যন্ত ২৪ ঘণ্টায় সিলেটে প্রায় ২৬০ মিলিমিটার ও সুনামগঞ্জে ৩৬৫ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়েছে।

সিলেট আবহাওয়া অধিদপ্তরের সহকারী আবহাওয়াবিদ শাহ মো. সজীব হোসাইন জানান, সোমবার সকাল ৬টা পর্যন্ত গত ২৪ ঘণ্টায় সিলেটে ১৭৩ দশমিক ৬ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়েছে। এ ছাড়া সোমবার সকাল ৬টা থেকে সকাল ৯টা পর্যন্ত সিলেটে ৮৬ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়েছে।

সুনামগঞ্জের পানি উন্নয়ন বোর্ডের (পাউবো) নির্বাহী প্রকৌশলী মো. মামুন হাওলাদার বলেন, রোববার সকাল ৯টা থেকে আজ সকাল ৯টা পর্যন্ত ২৪ ঘণ্টায় ৩৬৫ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়েছে, যা চলতি মৌসুমে সর্বোচ্চ। সুনামগঞ্জের উজানে ভারতের চেরাপুঞ্জিতেও বেশি বৃষ্টি হচ্ছে। উজান থেকে ঢল নামলেই মূলত সুনামগঞ্জে নদ-নদী ও হাওরে পানি বাড়ে।

ভারতীয় আবহাওয়া অধিদপ্তর পূর্বাভাস জারি করেছে, আগামী ৫ দিনে মেঘালয় রাজ্যের খাসি পর্বত এলাকার উপরে রেকর্ড পরিমানে ভারী বৃষ্টির আশংকার কথা। বিভিন্ন আবহাওয়া পূর্বাভাস মডেল অনুসারে আগামী ৫ দিনে মেঘালয় রাজ্যের উপরে ১০০০ থেকে ২০০০ মিলিমিটার পর্যন্ত বৃষ্টির আশংকার কথা। ফলে সিলেট বিভাগের জেলাগুলোয় বড় ধরনের বন্যার আশংকা করা হচ্ছে।

কানাডার সাসকাচুয়ান বিশ্ববিদ্যালয়ে আবহাওয়া ও জলবায়ুবিষয়ক পিএইচডি গবেষক আবহাওয়াবিদ মোস্তফা কামাল পলাশের তথ্যমতে, চলমান ভারী বৃষ্টি আরও ৫দিন অব্যাহত থাকতে পারে। ৫দিনে মেঘালয় রাজ্যের ওপর ১০০০ হাজার থেকে ২০০০ মিলিমিটার বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা রয়েছে।

আপনার মন্তব্য

আলোচিত